সংবাদ শিরোনাম :
সংবাদ শিরোনাম :
কামারগাঁ ইউনিয়নের ০১ন‌ং ওয়ার্ডে এবার মেম্বার পদে লড়বেন মোঃ হাবিল মন্ডল – গ্রামীন নিউজ২৪ নিজেকে মানুষ এরপর বাঙ্গালী ভাবতে শিখুন -শিক্ষামন্ত্রী – গ্রামীন নিউজ২৪ পরিতোষের দোষ স্বীকার ৩৯ আসামী কারাগারে – গ্রামীন নিউজ২৪ বাংলাদেশ একটি অসম্প্রদায়িক রাষ্ট্র প্রধানমন্ত্রী – গ্রামীন নিউজ২৪ আগাম আলু চাষিদের স্বপ্ন এখন গুড়েবালি – গ্রামীন নিউজ২৪ ঠাকুরগাঁওয়ে বালিয়াডাঙ্গীতে ১০ হাজারে আওয়ামী লীগের দলীয় ফরম বিক্রয় – গ্রামীন নিউজ২৪ ১২ নং কামারজানি কে আধুনিক ইউনিয়ন বিনির্মানের স্বপ্নদ্রষ্টা আঃ কাদের – গ্রামীন নিউজ২৪ রাবির গণরুমের ডাইনিংয়ে খাওয়া বাধ্যতামূলক শিক্ষার্থীদের – গ্রামীন নিউজ২৪ ঠাকুরগাঁওয়ে রানীশংকৈলে ভাঙা কালভার্ট জনগণের মরণফাঁদ – গ্রামীন নিউজ২৪ সিরাজগঞ্জে দেশীয় অস্ত্রসহ ডাকাত দলের ৬ সদস্য আটক – গ্রামীন নিউজ২৪
বিজ্ঞপ্তি :
গ্রামীন নিউজ২৪টিভি পরিবারের জন্য দেশব্যাপী প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। যোগ্যতা এইচ এসসি পাশ, অভিজ্ঞতাঃ ১ বৎসর, আগ্রহীরা যোগাযোগ করুন 01729188818, সিভি ইমেইল করুনঃ grameennews24tv@gmail.com

ঠাকুরগাঁওয়ে পীরগঞ্জ পৌরসভা দুর্নীতিতে ভরাডুবির পথে – গ্রামীন নিউজ২৪

মোঃ মজিবর রহমান শেখ, ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধিঃ / ২১৭ বার পঠিত
প্রকাশের সময় : রবিবার, ২০ জুন, ২০২১, ১:২০ অপরাহ্ন

সাবেক মেয়রের অনিয়ম, স্বেচ্ছাচারিতা ও দুর্নীতির কারণে ঠাকুরগাঁও জেলার পীরগঞ্জ পৌরসভা এখন ভরাডুবির পথে। ৫ বছরের শাসনকালে এখানে কর্মচারীদের বেতনভাতা বকেয়া পড়েছে প্রায় ৭ কোটি টাকা। অধিকাংশের বকেয়ার পরিমাণ ৩৮ মাস। বেতন নিতেও এখানে উৎকোচ দিতে হতো কর্মচারীদের। উৎকোচ যারা দিয়েছেন তাদের বেতন হয়েছে নিয়মিত।

এ কারণে ৩ মাস আর বেশির ভাগের ৩৮ মাসে বকেয়া। দুর্নীতির কারণে এখানকার ঠিকাদাররা সঠিক সময়ে কাজ শেষ করলেও তাদের অর্থ পরিশোধ করা হয়নি। ফেরত দেওয়া হয়নি তাদের জামানতের অর্থও। জানা যায়, ঠাকুরগাঁও জেলার পীরগঞ্জ পৌরসভার সাবেক মেয়র কশিরুল আলম ২০১৬ সালে নির্বাচিত হওয়ার পরই নিজের আখের গোছাতে ব্যস্ত হয়ে পড়েন। সাধারণ মানুষের সুযোগ-সুবিধার কথা চিন্তা না করে মেতে ওঠেন নানামুখী অন্যায় অপকর্মে। পৌরসভার ৬৮ জন কর্মচারী, মেয়রের অত্যাচার নিপীড়নে অতিষ্ঠ হয়ে ওঠেন। স্বেচ্ছাচারী মেয়র নিয়ম কানুনের তোয়াক্কা না করে নিজের খেয়াল খুশিমতো পরিষদ চালানো শুরু করেন। এ সময়ে কর্মচারীদের মোট বকেয়ার পরিমাণ দাঁড়ায় ৬ কোটি ৭২ লাখ ৭৫ হাজার টাকা। ইতিমধ্যে পৌরসভার ২ জন কর্মচারী অবসরে গেলে তাদের অবসরপরবর্তী প্রাপ্তব্য ৪১ লাখ টাকা পরিশোধ করা হয়নি। অন্যায় কাজে সাপোর্ট না করায় ৩ জন কর্মচারীকে পৌরসভা থেকে পঞ্চগড় জেলার বোদা পৌরসভায় বদলি করে দেন। বদলির পরে চলে রামরাজত্ব ও হয়রানির ভয়ে তার অপকর্মে মুখ বন্ধ রাখেন কর্মচারীরা। গত ৫ বছরে নতুন বাড়ি ঘর করার অনুমোদন নিতে গিয়ে মেয়রকে নির্দিষ্ট জমার বাইরে লাখ লাখ টাকা ঘুষ দিতে হয়েছে। তার ভয়ে অনেকে বাড়ি করা থেকে বিরত থেকেছেন। তিনি বিভিন্ন ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের ট্রেড লাইসেন্স বাবদ পৌরসভার ভুয়া রসিদ ব্যবহার করে লাইসেন্স ফি আদায় করে প্রায় ৭ লাখ টাকা আত্মসাৎ করেছেন। এক্ষেত্রে শহরের গুয়াগাওয়ের ব্যবসায়ী শাহজাহান আলীর মেসার্স সিহাব ট্রেডার্স, রনি অটো রাইস মিল, এমবি ব্রিকস ইটভাটাসহ অনেক ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে আদায় করা লাইসেন্স ফি ফান্ডে জমার সঙ্গে আদায়ের কোনো মিল নেই। পৌরসভার বিভিন্ন নির্মাণ কাজের বিল ও জামানত বাবদ প্রায় ৪৫ লাখ টাকা না দিয়ে নিজের স্বার্থে খরচ করেছেন। ইতিমধ্যে বিল না পাওয়া ঠিকাদাররা পাওনা আদায়ের জন্য ঠাকুরগাঁও জেলা প্রশাসক বরাবরে আবেদন করেছেন। পৌরসভার ঠিকাদার সোহরাব আলী বলেন, সময়মতো কাজ শেষ করার পরও দীর্ঘদিনেও বিল পরিশোধ করা হয়নি। বাধ্য হয়ে ডিসি. ইউএনও ও মেয়র বরাবরে অভিযোগ করেছি। কভিড-১৯ এর সহায়তা ফান্ডে কমচারীদের জন্য সরকারি বরাদ্দের ১৫ লাখ টাকা কর্মচারীদের না দিয়ে ভুয়া মাস্টাররোল বানিয়ে আত্মসাৎ করা হয়েছে। পৌরসভা ক্যাম্পাসে নতুন ভবন নির্মাণের সময় ২০ বছর বয়সী পুরনো কয়েকটি মেহগনি গাছ এবং শহরের পল্লীবিদ্যুৎ সংলগ্ন ড্রেন নির্মাণের সময় ১৫টি গাছ কেটে নিজের বাড়িতে নিয়ে যান মেয়র কশিরুল আলম। এ ছাড়া শহরের কলেজ হাটে মাছের বাজারে পানির উৎস টেন্ডার দিয়ে ৫ বছরে কমপক্ষে ১০ লাখ টাকা আত্মসাৎ করা হয়। সাবেক কাউন্সিলর ইমাম হোসেন এই টেন্ডার নিয়ে যথারীতি টাকা পরিশোধ করেন কিন্তু পৌরসভার ফান্ডে কোনো টাকা জমা করা হয়নি। চলতি বছরে নতুন মেয়র দায়িত্ব নেওয়ার পর এ ফান্ডে এবার ১ লাখ ৫৫ হাজার টাকা জমা হয়েছে। পৌরসভার পুরনো ভবন ভাড়া দিয়েও করা হয়েছে ঘাপলা। ২০১৭ সাল থেকে এটি ভাড়া দিয়ে জামানত আদায় করা হলেও ফান্ডে কোনো টাকা জমা করা হয়নি। পৌরসভার একটি মূল্যবান চালু রোলার অকেজো দেখিয়ে গোপনে বিক্রি করা হয়েছে। এভাবেই পৌরসভাকে নিজস্ব সম্পত্তির মতো যাচ্ছেতাইভাবে ব্যবহার করে নিজের আখের গুছিয়েছেন সাবেক মেয়র কশিরুল আলম। এসব অভিযোগের বিষয়ে বর্তমান মেয়র বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. ইকরামুল হক বলেন, এ বিষয়ে আমি ইন্টারনাল অডিটের মাধ্যমে গত ৫ বছরের আত্মসাৎকৃত টাকার পরিমাণ নির্ধারণ করার চেষ্টা করে যাচ্ছি। ইতিমধ্যে জেলা প্রশাসককে লিখিতভাবে জানিয়েছি। এ ব্যাপারে সাবেক মেয়র কশিরুল আলমের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি অসুস্থতার কথা বলে সব প্রশ্ন এড়িয়ে যান।

  • আমাদের ইউটিউব পেজ ভিজিট করতে লগইন করুনঃ Grameen news24 Tv

এ জাতীয় আরো সংবাদ
এক ক্লিকে বিভাগের খবর