সংবাদ শিরোনাম :
সংবাদ শিরোনাম :
কামারগাঁ ইউনিয়নের ০১ন‌ং ওয়ার্ডে এবার মেম্বার পদে লড়বেন মোঃ হাবিল মন্ডল – গ্রামীন নিউজ২৪ নিজেকে মানুষ এরপর বাঙ্গালী ভাবতে শিখুন -শিক্ষামন্ত্রী – গ্রামীন নিউজ২৪ পরিতোষের দোষ স্বীকার ৩৯ আসামী কারাগারে – গ্রামীন নিউজ২৪ বাংলাদেশ একটি অসম্প্রদায়িক রাষ্ট্র প্রধানমন্ত্রী – গ্রামীন নিউজ২৪ আগাম আলু চাষিদের স্বপ্ন এখন গুড়েবালি – গ্রামীন নিউজ২৪ ঠাকুরগাঁওয়ে বালিয়াডাঙ্গীতে ১০ হাজারে আওয়ামী লীগের দলীয় ফরম বিক্রয় – গ্রামীন নিউজ২৪ ১২ নং কামারজানি কে আধুনিক ইউনিয়ন বিনির্মানের স্বপ্নদ্রষ্টা আঃ কাদের – গ্রামীন নিউজ২৪ রাবির গণরুমের ডাইনিংয়ে খাওয়া বাধ্যতামূলক শিক্ষার্থীদের – গ্রামীন নিউজ২৪ ঠাকুরগাঁওয়ে রানীশংকৈলে ভাঙা কালভার্ট জনগণের মরণফাঁদ – গ্রামীন নিউজ২৪ সিরাজগঞ্জে দেশীয় অস্ত্রসহ ডাকাত দলের ৬ সদস্য আটক – গ্রামীন নিউজ২৪
বিজ্ঞপ্তি :
গ্রামীন নিউজ২৪টিভি পরিবারের জন্য দেশব্যাপী প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। যোগ্যতা এইচ এসসি পাশ, অভিজ্ঞতাঃ ১ বৎসর, আগ্রহীরা যোগাযোগ করুন 01729188818, সিভি ইমেইল করুনঃ grameennews24tv@gmail.com

ঠাকুরগাঁওয়ে সদর হাসপাতালে দিনে বরাদ্দ ৩০০ হলেও করোনা রোগীদের খাবার দেয়া হচ্ছে ৭০ টাকার – গ্রামীন নিউজ২৪

মোঃ মজিবর রহমান শেখ, ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধিঃ / ৬১১ বার পঠিত
প্রকাশের সময় : মঙ্গলবার, ৬ জুলাই, ২০২১, ১২:৪৪ অপরাহ্ন

একজন করোনা রোগীর প্রতিদিনের খাবারের জন্য ৩০০ টাকা সরকারি বরাদ্দ থাকলেও ঠাকুরগাঁও সদর হাসপাতালে একজন রোগীকে ৩ বেলা যে খাবার দেয়া হচ্ছে তার বাজারমূল্য ৭০-৮০ টাকার বেশি নয়। পাশাপাশি বিভিন্ন ধরনের ফলমূল দেয়ার কথা থাকলেও তা পাচ্ছেন না রোগীরা। ফলে বেশিরভাগ রোগীকেই বাড়ির খাবারের ওপর নির্ভর করতে হচ্ছে। খাবার সরবরাহে করোনা ইউনিটে দর্শনার্থীর আনাগোনায় সংক্রমণ ছড়ানোর ঝুঁকি বাড়ছে।

সাংবাদিকগণ অনুসন্ধানে দেখা গেছে, ঠাকুরগাঁও সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ১৭৪ জন করোনা রোগী। তাদের সকালের নাস্তায় দেয়া হচ্ছে একটি করে পাঁচ টাকা দামের পাউরুটি, আট টাকা দামের ডিম ও চার-পাঁচ টাকা দামের কলা। দুপুরের খাবারে ভাতের সঙ্গে দেয়া হচ্ছে ডাল, একটি ডিম অথবা এক টুকরো মাছ এবং রাতের খাবারেও ভাতের সঙ্গে এক টুকরো মাছ অথবা একটি ডিম। বর্তমান বাজারদরে ৩ বেলার খাবারের দাম হিসাব করলে দাঁড়ায় ৭০-৮০ টাকা। রোগীদের খাবারের সঙ্গে নিয়মিত ফলমূল দেয়ার কথা থাকলেও সেগুলো দেয়া হচ্ছে না। হাসপাতালের করোনা আইসোলেশন ইউনিটে চিকিৎসা নেয়া রোগী আবু তালেব বলেন, ‘১০ দিন হাসপাতালে থেকে একদিনও একটি মাল্টা পাওয়া যায়নি। হাসপাতালের দেয়া খাবার আমি খেতে পারিনি।’ তিনি বলেন, ‘সকালের নাস্তা একটা কলা দিয়েছিল সেটিও খাবার উপযোগী ছিল না। তরকারি দেখলে খাবার ইচ্ছা নষ্ট হয়ে যেত। সরকারি বরাদ্দের টাকায় নিয়ম অনুযায়ী করোনা রোগীকে নিয়মিত ফলমূল ও দুধ, হরলিক্স দেয়ার কথা কিন্তু হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রোগীরা তা পাচ্ছেন না।’ ঠাকুরগাঁও সদর হাসপাতালে করোনা আইসোলেশন ইউনিটে চিকিৎসাধীন সবুর উদ্দিন নামের এক রোগী জানান, তিনি করোনা শনাক্ত হওয়ার পর কয়েক দিন ধরে হাসপাতোলের করোনা আইসোলেশন ইউনিটে চিকিৎসাধীন। একদিনের জন্যও হাসপাতালের দেয়া খাবার তিনি খেতে পারেননি। ভাত ঠিকমতো সিদ্ধ হয় না। সকালে নাস্তা হিসেবে দেয়া পাউরুটিও খাবার মতো না। তিনি কোনো দিন ফলমূল পাননি। বাধ্য হয়েই বাড়ি থেকে খাবার এনে খেতে হচ্ছে। হাসপাতালে চিকিসাধীন এক করোনা রোগীর স্বজন পারভীন আখতার বলেন, ‘করোনা রোগীদের দেয়া খাবার খুবই নিম্নমানের। রোগী হাসপাতালের দেয়া খাবার খেতে পারে না বলে বাড়ি থেকে খাবার পাঠাতে হয়।’ হাসপাতালের খাদ্য সরবরাহকারী ঠিকাদার নিপুন মোহন্ত দাবি করেন, চুক্তি অনুযায়ী সব ধরনের খাবার, ফলমূল ও খাদ্যসামগ্রী সরবরাহ করা হচ্ছে। করোনা রোগীকে তালিকা অনুযায়ী খাদ্য বিতরণ করার দায়িত্ব হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের। এ বিষয়ে কথা হয় ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ডা. রাকিবুল ইসলাম চয়নের সঙ্গে। তিনি সাংবাদিকগণ কে বলেন, ‘তালিকা অনুযায়ী চিকিৎসাধীন করোনা রোগীদের সব ধরনের খাবার পাওয়ার কথা। বিষয়টি খোঁজ নিয়ে ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. নাদিরুল ইসলাম চপল বলেন, ‘ঠিকাদার যেভাবে খাদ্য সরবরাহ করছেন সেভাবেই করোনা রোগীকে খাবার বিতরণ করা হচ্ছে। অনেক সময় ঠিকাদারের খাদ্য সরবরাহে সমস্যা হলে খাবারের মান খারাপ হতে পারে। তিনি বিষয়টি খতিয়ে দেখবেন বলে জানান।

  • আমাদের ইউটিউব পেজ ভিজিট করতে লগইন করুনঃ Grameen news24 Tv

এ জাতীয় আরো সংবাদ
এক ক্লিকে বিভাগের খবর