সংবাদ শিরোনাম :
সংবাদ শিরোনাম :
দীর্ঘ যানজটে নাকাল যাত্রী ও চালক – গ্রামীন নিউজ২৪ লালমনিরহাটে দায়ের কোপে বৃদ্ধা মা রক্তাক্ত, ছেলে গ্রেফতার – গ্রামীন নিউজ২৪ গোবিন্দগঞ্জে ইয়াবা, পিস্তল ও এক রাউন্ড গুলিসহ এক মাদক কারবারী আটক – গ্রামীন নিউজ২৪ আজকে বিশ্ব করোনার আঘাতে বিপর্যস্ত – গ্রামীন নিউজ২৪ হেলেনা জাহাঙ্গীরের বিরুদ্ধে পল্লবী থানায় মামলা করেছে র‍্যাব – গ্রামীন নিউজ২৪ সাদুল্লাপুরে ইউএনও, ওসি’র বিদায়ী সংবর্ধনা – গ্রামীন নিউজ২৪ দূরপাল্লার গাড়ি না চলায়,ভোগান্তিতে শ্রমিকরা – গ্রামীন নিউজ২৪ করোনায় আবারো মৃত্যু ২১৮ – গ্রামীন নিউজ২৪ সুন্দরবনে স্মার্ট টিমের অভিযানে ১৩ টি নৌকা আটক – গ্রামীন নিউজ২৪ ডুমুরিয়ায় প্রতিটি ঘরে বিদ্যুতের আলোয় আলোকিত —ডিজিএম মোঃ আবদুল মতিন – গ্রামীন নিউজ২৪
বিজ্ঞপ্তি :
আমাদের সাইটের উন্নয়ন মূলক কাজ চলছে... সাথেই থাকুন! গ্রামীন নিউজ২৪টিভি পরিবারের জন্য দেশব্যাপী প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। আগ্রহীরা যোগাযোগ করুন 01729188818, সিভি ইমেইল করুনঃ grameennews24tv@gmail.com

ঠাকুরগাঁওয়ে কেউ খবর রাখে না বৃক্ষ শিশু রিপনের – গ্রামীন নিউজ২৪

মোঃ মজিবর রহমান শেখ, ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধিঃ / ১১৬০৯ বার পঠিত
প্রকাশের সময় : বুধবার, ৭ জুলাই, ২০২১, ৯:২৫ পূর্বাহ্ন

এমনিতে তাদের খোঁজ কেউ তেমন একটা রাখে না। তারপর আবার করোনাকালীন সময় এই মহাদুর্যোগে কেমন আছেন ঠাকুরগাঁও জেলার বৃক্ষ মানবখ্যাত রিপন। কিভাবে কাটছে তার জীবন, করোনাকালীন সময় দেড় বছরের মধ্যে তারা কি পেয়েছে সরকারি ও বেসরকারি সহায়তা? কেউ কী তার পরিবারের খোঁজ নিয়েছে এমন প্রশ্ন বৃক্ষমানব খ্যাত শিশু রিপনের পরিবারের। রিপন বলেন, আমার হাতে-পায়ে অনেক ব্যথা। আমি স্বাভাবিকভাবে চলাফেরা করতে পারি না। আমি সুস্থ হতে চাই। আমি সুস্থ হতে কি পারব? এভাবেই সুস্থ হওয়ার ইচ্ছা পোষণ করে হাজারো প্রশ্ন ঠাকুরগাঁও জেলার বৃক্ষমানব শিশু রিপনের।

বর্তমানে শিকড়ের মত গজিয়ে আবারো দু হাত ও পা হয়েছে আগের মতো। এই দুই হাত দিয়েই করছে রিপন যাবতীয় কাজ। প্রায় তিন বছর আগে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিট থেকে নিজ গ্রাম ঠাকুরগাঁও জেলার পীরগঞ্জ উপজেলায় ফিরেন রিপন। তিনটি অপারেশন করার পর কিছুটা সুস্থ হন। কিন্তু বাড়িতে এসে টাকার অভাবে চিকিৎসা বন্ধ হওয়ায় খারাপ হতে থাকে তার শরীর। বর্তমানে হাত ও পায়ের ব্যথায় কাতরাচ্ছে সে। ভ্যানচালক বাবার সামান্য উপার্জনে রিপনের ৫ সদস্যের পরিবার চলছে করোনার দূর্যোগে সেই উপার্জনে পড়েছে ভাটা। স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের কাছে ধরনা দিয়েও পায়নি আর্থিক সহায়তা ,রিপনের বিষয়ে স্থানীয় চেয়ারম্যান কার্তিক চন্দ্র রায় বলেন, করোনা দূর্যোগে নিদারুন কষ্টে আছে রিপনের পরিবার। জীবনের সাথে যুদ্ধ করাই রিপনের পরিবার কেন সরকারি সহায়তা পেল না তা স্পষ্ট নয়। এসব প্রশ্নের উত্তর যাদের কাছে তাদের বাখ্যাও অস্পষ্ট, স্বাভাবিকভাবেই তাই প্রশ্ন জাগে বৈশিক এই দুর্যোগে সরকারের দেয়া প্রকল্প ও অর্থ সহায়তা যাচ্ছে কোথায়। এ বিষয়ে রিপনের ভ্যানচালক বাবা মহেন্দ্রনাথ বলেন, সকলের সহযোগিতা পেলে আমার ছেলের চিকিৎসা হতো। এ ব্যাপারে চেয়ারম্যান কার্তিক চন্দ্র রায় বলেন, আমরা যতদূর পেরেছি সহযোগিতা করেছি। বিত্তবানদের এগিয়ে আসার আহবান করছি।


এ জাতীয় আরো সংবাদ
এক ক্লিকে বিভাগের খবর