সংবাদ শিরোনাম :
সংবাদ শিরোনাম :
সুন্দরবনের দুই জীবন্ত কিংবদন্তি – গ্রামীন নিউজ২৪ বাগমারায় পানিতে ডুবে এক শিশুর মৃত্যু – গ্রামীন নিউজ২৪ লকডাউনে ‘ডোরস্টেপ ডেলিভারি’দিচ্ছে ভিভো হটলাইনে কল করলেই পৌঁছে যাবে ভিভো স্মার্টফোন – গ্রামীন নিউজ২৪ ঠাকুরগাঁওয়ে বালিয়াডাঙ্গীতে মসজিদ উন্নয়নের জন্য অনুদান দিলেন এমপি পুত্র – গ্রামীন নিউজ২৪ দেশে আইপি টিভির অনুমোদন নেই তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী হাছান মাহমুদ – গ্রামীন নিউজ২৪ করোনায় ২৪৬ জনের মৃত্যু – গ্রামীন নিউজ২৪ ঠাকুরগাঁওয়ে ৩ কেজি গাঁজা উদ্ধার ও ভ্রাম্যমাণ আদালতে সাজা – গ্রামীন নিউজ২৪ কয়রায় ভারী বর্ষনে রোপা আমন মৌসুমের বীজতলা নষ্ট হয়ে কৃষকের ব্যাপক ক্ষতি – গ্রামীন নিউজ২৪ করোনায় ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে এফডিএ’র ত্রাণ সহায়তা – গ্রামীন নিউজ২৪ শিবগঞ্জে নিখোঁজ গৃহবধূর লাশ ভাসছিল পুকুরে – গ্রামীন নিউজ২৪
বিজ্ঞপ্তি :
আমাদের সাইটের উন্নয়ন মূলক কাজ চলছে... সাথেই থাকুন! গ্রামীন নিউজ২৪টিভি পরিবারের জন্য দেশব্যাপী প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। আগ্রহীরা যোগাযোগ করুন 01729188818, সিভি ইমেইল করুনঃ grameennews24tv@gmail.com

আরএমপি কমিশনার অপরাধ দমনে বিশ্বাসযোগ্যতায় আরএমপির সাইবার ক্রাইম ইউনিট – গ্রামীন নিউজ২৪

মোঃ মানিক হোসেন, রাজশাহী প্রতিনিধি: / ৫৫২ বার পঠিত
প্রকাশের সময় : শুক্রবার, ৯ জুলাই, ২০২১, ৫:১৯ অপরাহ্ন

অপরাধ দমনে বিশ্বাসযোগ্যতা অর্জন করেছে আরএমপির সাইবার ক্রাইম ইউনিটআরএমপি কমিশনার মো. আবু কালাম সিদ্দিক।

রাজশাহী মেট্রোপলিটন (মহানগর) পুলিশের (আরএমপি) সাইবার ক্রাইম ইউনিট যাত্রা শুরুর পর থেকে অত্যন্ত দক্ষতা ও আন্তরিকতার সাথে ডিজিটাল মাধ্যমে সংগঠিত অপরাধ দমনে সফলতার সাক্ষর রেখে যাচ্ছে।

সাইবার ক্রাইমে জড়িতদের শনাক্ত করে দ্রুত আইনের আওতায় আনতে গঠিত এই সাইবার ইউনিট ইতোমধ্যে রাজশাহীবাসীর কাছে বিশ্বাসযোগ্যতা অর্জন করতে সক্ষম হয়েছে।

আরএমপির কমিশনার হিসেবে ২০২০ সালের ১০ সেপ্টেম্বর যোগদান করেই সাইবার ক্রাইম ইউনিট গঠনের উদ্যোগ নেন মো. আবু কালাম সিদ্দিক। এরই অংশ হিসেবে ওই মাসের ১৭ সেপ্টেম্বর আরএমপির সদর দপ্তরে সাইবার ক্রাইম ইউনিটের উদ্বোধন করেন তিনি।

যাত্রা শুরুর পর থেকে অসংখ্য জটিল ও ক্লুলেস ঘটনাগুলো উদঘাটন করে ভুক্তোভোগীদের সহায়তা দেয়ায় রাজশাহীবাসীর আস্থার প্রতিষ্ঠানে পরিণত আরএমপির এই সাইবার ক্রাইম ইউনিট।

সাইবার ক্রাইম ইউনিট প্রতিষ্ঠা, এর কার্যক্রম ও সফলতাসহ নগরীর আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতির সার্বিক বিষয় নিয়ে উত্তরা প্রতিদিনের সঙ্গে কথা বলেছেন আরএমপি কমিশনার মো. আবু কালাম সিদ্দিক। সাক্ষাৎকারটি নিয়েছেন উত্তরা প্রতিদিনের প্রধান বার্তা সম্পাদক এনায়েত করিম।

আরএমপি কমিশনার মো. আবু কালাম সিদ্দিক বলেন, রাজশাহীতে স্বতন্ত্র সাইবার ক্রাইম ইউনিট ছিল না। আমি যোগদানের পর সাংবাদিকদের দেওয়া প্রতিশ্রুতির বাস্তবায়ন ও রাজশাহীবাসীর প্রত্যাশা পূরণে এ সাইবার ক্রাইম ইউনিট গঠন করি। এ ইউনিটের তত্ত্বাবধানে দক্ষ ও চৌকস পুলিশ অফিসারকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে; যারা সাইবার ক্রাইম বিষয়ে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত। এছাড়া সাইবার ক্রাইম ইউনিটে সবধরনের লজিস্টিক সাপোর্টও রয়েছে। ফলে খুব দ্রুত সময়ের মধ্যে অপরাধীকে খুঁজতে ও ধরতে কাজ করতে পারে এ ইউনিট।

তিনি বলেন, বর্তমানে দেশে সাইবার ক্রাইম বেড়ে যাওয়ায় অসংখ্য মানুষ এর শিকার হচ্ছে। বিশেষ করে নারীরা বেশি শিকার হচ্ছে। এই ইউনিট গঠনের পর প্রচুর ভুক্তভোগী সেবা নিতে আসায় বিষয়টি আরও দৃশ্যমান হয়েছে। তাই রাজশাহী মহানগরে যাতে কোনো ধরনের সাইবার ক্রাইম সংঘটিত হতে না পারে সেজন্য কাজ করছে আরএমপির সাইবার ক্রাইম ইউনিট। এছাড়া কোনো অপরাধ সংঘটিত হলে দ্রুত অপরাধীদের শনাক্ত করতেও কাজ করছে এ ইউনিট। বিশেষ করে ফেসবুক, টুইটার, ইউটিউবসহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সংঘটিত অপরাধ নিয়ে কাজ করছে সাইবার ক্রাইম ইউনিট। শুধু তাই নয়, বিকাশের টাকা, সাইবার বুলি, হ্যাকিং, নারীদের ছবি-ভিডিও সামাজিক মাধ্যমে ছেড়ে দিয়ে হেও করা। এমন অসংখ্য ঘটনার সমাধান করতে সক্ষম হয়েছি। একইসঙ্গে তদন্ত করে এসব বিষয়ে আইনগত ব্যবস্থাও নেয়া হচ্ছে। এতে মানুষ বিশেষ করে নারীরা বেশি উপকৃত হচ্ছে, নিজেদের নিরাপদ অনুভব করছে। ফলে আরএমপির সাইবার ইউনিট রাজশাহীবাসীর কাছে গ্রহণযোগ্যতা অর্জন করেছে।

আরএমপি কমিশনার বলেন, আমি আরএমপি কমিশনার হিসেবে যোগদানের পর রাজশাহীকে নিরপত্তার চাঁদরে ঢেকে দেয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলাম। সেক্ষেত্রে নগরীর আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে নজরদারীর বিকল্প নেই। ফলে রাজশাহীকে নিরাপত্তার নগরী হিসেবে গড়ে তুলতে নগরজুড়ে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থানে প্রায় তিন শতাধিক সিসি ক্যামেরা স্থাপন করা হয়েছে। এতে মহানগরীর নিরাপত্তা ব্যবস্থার উন্নতির পাশাপাশি অপরাধ নিয়ন্ত্রণ ও অপরাধী শনাক্ত করা সহজ হয়েছে।

উদাহরণ হিসেবে তিনি বলেন, চুরি যাওয়া শিশু উদ্ধার, অটোরিকশায় ফেলে যাওয়া তিন লাখ টাকা এবং ছিনতাই হওয়া ১৭টি স্বর্ণের বার ও ৬০ লাখ টাকাও সিসি টিভির ফুটেজের মাধ্যমেই উদ্ধার করা হয়েছে। একইসঙ্গে সেই ফুটেজ দেখে আমরা অপরাধীদের আইনের আওতায় আনতে সক্ষম হয়েছি।

কিশোর অপরাধ ঠেকাতে দেশে প্রথমবারের মতো কিশোর গ্যাং সদস্যদের ডিজিটাল ডাটাবেজ তৈরি করেছে রাজশাহী মহানগর পুলিশ (আরএমপি)। এতে বখাটেপনা, ছিনতাই, ইভটিজিং, প্রতারণাসহ নানা অপরাধে যুক্ত ৫০০ কিশোরের তথ্য, ছবি ও মোবাইল ফোন নম্বরসহ অভিভাবকের তথ্যও সংরক্ষণ করা হয়েছে। কিশোরদের বিপথে গমন ঠেকাতে আরএমপির এই উদ্যোগ খুবই কার্যকরী বলে জানিয়েছেন আরএমপি কমিশনার মো. আবু কালাম সিদ্দিক।

এদিকে, সাইবার ক্রাইম ইউনিটের প্রধান আরএমপির সহকারী পুলিশ কমিশনার উৎপল কুমার চৌধুরীও এসব বিষয় নিয়ে কথা বলেন উত্তরা প্রতিদিনের সঙ্গে। তিনি বলেন, ফেসবুক হ্যাক, হয়রানিমূলক পোস্ট, হোয়াটসঅ্যাপ, ইমো, টুইটারসহ রাজশাহী মহানগরীর মধ্যে যত ধরনের ডিজিটাল ক্রাইম আছে প্রত্যেকটা বিষয় আমরা নজরদারি করছি। একইসঙ্গে প্রকৃত অপরাধীদের শনাক্ত করে সংশ্লিষ্ট থানার মাধ্যমে আইনের আওতায় নিয়ে আসছি। সাইবার ক্রাইম প্রতিষ্ঠার পর থেকে অসংখ্য জটিল ও ক্লুলেস ঘটনাগুলো আমরা বের করতে সক্ষম হয়েছি। আরএমপির সাইবার ক্রাইম ইউনিট সব সময় উন্মুক্ত করা আছে। যে কোনো মূহুর্তে যেকোনো ব্যক্তি অভিযোগ নিয়ে আসতে পারেন। এছাড়া আমাদের হট মেইল, হেল্প লাইন তথা হট লাইনও চালু আছে।

তিনি আরও বলেন, আরএমপির কমিশনারের নির্দেশক্রমে আমরা সব সময় তৎপর আছি। আশা করছি ভবিষ্যতে মহানগরীর সাইবার ক্রাইম সম্পর্কিত যা কিছু ঘটবে সব কিছুই উদঘাটন করতে সক্ষম হবো।


এ জাতীয় আরো সংবাদ
এক ক্লিকে বিভাগের খবর