সংবাদ শিরোনাম :
সংবাদ শিরোনাম :
কৃষিজমি নষ্ট করে বালু ভরাট চলমান উন্নয়নকে প্রশ্নবিদ্ধ করবে – গ্রামীন নিউজ২৪ ফুলছড়ি ও সাঘাটা উপজেলার ১৫ ইউনিয়নে নৌকা প্রতীক পেলেন যারা – গ্রামীন নিউজ২৪ আগামী তিন দিন পরে বৃষ্টির সম্ভবনা – গ্রামীন নিউজ২৪ ভোক্তা পর্যায়ে গ্যাসের দাম কমলো – গ্রামীন নিউজ২৪ ময়মনসিংহ এইচএসসি পরীক্ষায় ৭০ হাজার ৯৪১ জন ছাত্রছাত্রী – গ্রামীন নিউজ২৪ সাদুল্লাপুরে বিনামূল্যে কৃষকের মাঝে বীজ ও সার বিতরণ – গ্রমীন নিউজ২৪ রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষামন্ত্রী আসছেন আগামীকাল – গ্রামীন নিউজ২৪ সড়ক দুর্ঘটনায় পিতা-পুত্র নিহত- গ্রামীন নিউজ২৪ স্ত্রীকে হত্যার দায়ে স্বামীর ফাঁসির আদেশ – গ্রামীন নিউজ২৪ ৬ ছাত্র হত্যা মামলার রায়ে ১৩ আসামির মৃত্যুদণ্ড ও ১৯ জনের যাবজ্জীবন – গ্রামীন নিউজ২৪
বিজ্ঞপ্তি :
গ্রামীন নিউজ২৪টিভি পরিবারের জন্য দেশব্যাপী প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। যোগ্যতা এইচ এসসি পাশ, অভিজ্ঞতাঃ ১ বৎসর, আগ্রহীরা যোগাযোগ করুন 01729188818, সিভি ইমেইল করুনঃ grameennews24tv@gmail.com

প্রধানমন্ত্রীর গাড়িবহর হামলার সর্বোচ্চ বিচারের দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ – গ্রামীন নিউজ২৪

সাতক্ষীরা প্রতিনিধিঃ / ১২৮৫ বার পঠিত
প্রকাশের সময় : সোমবার, ৩০ আগস্ট, ২০২১, ২:৫৫ অপরাহ্ন

২০০২ সালে তৎকালীন বিরোধীদলীয় নেত্রী ও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপরে প্রাণনাশের উদ্দেশ্যে যে হামলা করা হয়েছিল তার প্রতিবাদে কলারোয়া উপজেলা আওয়ামীলীগের উদ্যোগে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

আজ সোমবার ৩০(আগস্ট) বিকাল ৪ টায় কলারোয়া উপজেলা আওয়ামীলীগের উদ্যোগে বিক্ষোভ মিছিল কলারোয়া পৌরসভার সম্মুখ থেকে শুরু হয়ে বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষীন করে পৌরসভা চত্বরে এসে শেষ হয়। বিক্ষোভ মিছিলে উপস্থিত ছিলেন সাতক্ষীরা জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক জনাব আলহাজ্ব নজরুল ইসলাম, কলারোয়া উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান ফিরোজ আহমেদ স্বপন, ১ নাং জয়নগর ইউনিয়ন চেয়ারম্যান আল মাসুদ শামসুদ্দিন( বাবু) কলারোয়া আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সাবেক ছাত্রনেতা বেনজিন হেলাল, সিনিয়র সহ-সভাপতি এবং জেলা পরিষদের সদস্য শেখ আমজাদ হোসেন, স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি মুন্না, কলারোয়া পৌরসভার মেয়র মনিরুজ্জামান বুলবুল, সাতক্ষীরা জেলা দপ্তর সম্পাদক হারুনুর রশিদ, উপজেলা যুবলীগের জনাব মোঃ মাসুম আমি লীগের ধর্মবিষয়ক সম্পাদক জনাব আলহাজ্ব আরাফাত হোসেন, সাংবাদিক জুলফিকার আলী, উপজেলা ছাত্রলীগ পৌর ছাত্রলীগ যুবলীগ নেতা কাজী আসাদুজ্জামান শাহজাদা সহ বিভিন্ন স্থানের নেতৃবৃন্দ বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন।

বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জনাব আলহাজ্ব নজরুল ইসলাম। অনুষ্ঠানে বক্তারা ২০০২ সালের ৩০শে আগস্ট তৎকালীন বিরোধীদলীয় নেত্রী মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গাড়িবহর হামলার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান এবং আসামিদের সাজা বৃদ্ধির দাবি ও ফাঁসির রায়ের আবেদন জানান।

২০০২ সালের ৩০ আগস্ট সকালে সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে ধর্ষণের শিকার হয়ে চিকিৎসাধীন মুক্তিযোদ্ধার স্ত্রীকে দেখতে আসেন তৎকালীন বিরোধীদলীয় নেতা ও আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা। তাকে দেখে সড়ক পথে ঢাকায় ফেরার পথে বেলা ১১টার দিকে কলারোয়া উপজেলা বিএনপি অফিসের সামনে গাড়ি থামিয়ে শেখ হাসিনার গাড়ি বহরে হামলা চালায় তৎকালীন ক্ষমতাসীন বিএনপি, যুবদল ও ছাত্রদলের ক্যাডাররা। হামলাকারীরা শেখ হাসিনাকে লক্ষ করে গুলি ছোড়ে এবং বোমা বিস্ফোরণ করে। অল্পের জন্য প্রাণে বেঁচে যান শেখ হাসিনা। এ সময় গাড়িবহরে থাকা ১৫–২০টি গাড়ি ভাঙচুর করা হয়। এ ঘটনায় ঢাকা থেকে আসা কেন্দ্রীয় নেতাদের অনেকেই আহত হন প্রায় একশতোর মতো নেতা-কর্মী আহত হয়েছিলেন বলে জানান বক্তারা। তৎকালীন সাতক্ষীরা-১ আসনের সাংসদ হাবিবুল ইসলাম ও তাঁর নেতা-কর্মীরা এ হামলার পেছনে ছিলেন বলে অভিযোগ ওঠে। এ ঘটনায় উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মোসলেম উদ্দীন বাদী হয়ে যুবদলের সভাপতি আশরাফ হোসেনসহ ২৭ জনের নাম উল্লেখ করে এবং অজ্ঞাতপরিচয় ৭০-৭৫ জনকে আসামি করে কলারোয়া থানায় মামলা করতে গেলে মামলাটি রেকর্ড করেনি পুলিশ।

এ ঘটনার ১২ বছর পর ২০১৪ সালের ১৫ অক্টোবর সাতক্ষীরা আদালতে একটি মামলা করা হয়। আদালত কলারোয়া থানায় মামলাটি রেকর্ড করার আদেশ দেন। মামলাটি আমলে নিয়ে তদন্ত শেষে ২০১৫ সালের ১৭ মে বিএনপির তৎকালীন সাংসদ হাবিবুল ইসলামসহ ৫০ জনের নাম উল্লেখ করে শেখ হাসিনাকে হত্যাচেষ্টা, বিস্ফোরক দ্রব্য ও অস্ত্র আইনে তিন ভাগে আদালতে সম্পূরক অভিযোগপত্র দাখিল করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা। এতে সাক্ষী করা হয় ৩০ জনকে। তবে ৯ জনের সাক্ষ্য নেওয়ার পর ২০১৭ সালের ২১ সেপ্টেম্বর উচ্চ আদালতে আসামিদের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে মামলাটি স্থগিত করা হয়। হাইকোর্ট মামলাটির স্থগিতাদেশ দেওয়ায় সাতক্ষীরার নিম্ন আদালতে গত তিন বছর বন্ধ হয়ে ছিল মামলাটির বিচারকাজ। এরপর রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবীদের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে উচ্চ আদালত চলতি বছরের ২২ অক্টোবর মামলাটির স্থগিতাদেশ প্রত্যাহার করে নথি পাওয়ার ৯০ দিনের মধ্যে মামলা নিষ্পত্তি করতে চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতকে নির্দেশ দেন।

পরবর্তীত ৪ ফেব্রুয়ারি আলোচিত এ মামলায় জেল হাজতে থাকা ৩৪ জন আসামির উপস্থিতিতে রায় ঘোষণা করেন সাতক্ষীরার মুখ্য বিচারিক হাকিম মো. হুমায়ুন কবীর।

দীর্ঘ ১৯ বছর পর সাতক্ষীরার কলারোয়ায় তৎকালীন বিরোধী দলীয় নেতা ও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গাড়ি বহরে হামলা মামলার রায় ঘোষণা করেছেন আদালত। রায়ে সাতক্ষীরা-১ আসনের সাবেক এমপি হাবিবুল ইসলাম হাবিবসহ তিন জনকে ১০ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। ১০ বছরের সাজাপ্রাপ্ত অপর দুজন হলেন ৪ নম্বর পলাতক আসামি মো. আরিফুর রহমান ওরফে রঞ্জু এবং রিপন। এছাড়া পলাতক আসামি যুবদল নেতা আব্দুল কাদের বাচ্চুকে ৯ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। বাকি ৪৬ জন আসামির ৪ বছর থেকে শুরু করে বিভিন্ন মেয়াদে সাজা হয়েছে।

তৎকালীন বিরোধীদলীয় নেতা ও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গাড়িবহরে হামলার ঘটনায় দায়ের করা মামলায় বিচারিক আদালতে সাজাপ্রাপ্ত ৭ আসামিকে জামিন দিয়েছে হাইকোর্ট।সাত আসামি হলেন আবদুস সাত্তার, গোলাস রসুল, আব্দুস সামাদ, জহিরুল ইসলাম, রাকিব, শাহাবুদ্দিন ও মনিরুল ইসলাম। ২৫ মে হাইকোর্ট ওই মামলায় এই সাত দণ্ডিতকে অন্তর্বর্তীকালীন জামিন দিয়েছিলেন।কিন্তু ২৭ মে সাত আসামির জামিন স্থগিত করেছেন আপিল বিভাগ। আদালত বৃহস্পতিবার এ আদেশ দেন। আদালতের আদেশের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রপক্ষের করা আবেদনের শুনানি নিয়ে আজ আপিল বিভাগের চেম্বার বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী এ আদেশ দেন। গাড়িবহর হামলার পলাতক আসামিদের মধ্যে চলতি মাসেই দুজন গ্রেপ্তার হয়েছে।

  • আমাদের ইউটিউব পেজ ভিজিট করতে লগইন করুনঃ Grameen news24 Tv

এ জাতীয় আরো সংবাদ
এক ক্লিকে বিভাগের খবর