সংবাদ শিরোনাম :
সংবাদ শিরোনাম :
সাতক্ষীরা ১৮ মাস পর পানিমুক্ত হলো সাতক্ষীরার চারটি গ্রাম – গ্রামীন নিউজ২৪ ওয়ানডে বিশ্বকাপের মূলপর্বে জায়গা পেল  বাংলাদেশ নারী ক্রিকেট দল – গ্রামীন নিউজ২৪ একটি বাস দিয়ে নিজের সংসার চালায় কেউ কেউ – গ্রামীন নিউজ২৪ সাতক্ষীরার দেবহাটা ও কালিগঞ্জ উপজেলায় আওয়ামী লীগের ৯নেতা বহিস্কার – গ্রামীন নিউজ২৪ তাহিরপুরে বিআইডব্লিওটিএর নামে চাঁদাবাজী বন্ধের প্রতিবাদে ধর্মঘট ও মানববন্ধন – গ্রামীন নিউজ২৪ পঞ্চম ধাপের তফসিল ঘোষণা করেছে নির্বাচন কমিশন – গ্রামীন নিউজ২৪ মোংলায় সহিংস উগ্রবাদ প্রতিরোধে মতবিনিময় সভা – গ্রামীন নিউজ২৪ মুম্বাইয়ে সন্ত্রাসী হামলায় নিহতদের স্মরণে শাহবাগে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের মোমবাতি প্রজ্বলন – গ্রামীন নিউজ২৪ ঠাকুরগাঁওয়ে হরিপুরে বিলুপ্তপ্রায় নীলগাই উদ্ধারের পরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু – গ্রামীন নিউজ২৪ শ্যামনগরের শিশু ধর্ষন মামলার পলাতক আসামী র‌্যাবের হাতে আটক – গ্রামীন নিউজ২৪
বিজ্ঞপ্তি :
গ্রামীন নিউজ২৪টিভি পরিবারের জন্য দেশব্যাপী প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। যোগ্যতা এইচ এসসি পাশ, অভিজ্ঞতাঃ ১ বৎসর, আগ্রহীরা যোগাযোগ করুন 01729188818, সিভি ইমেইল করুনঃ grameennews24tv@gmail.com

টাঙ্গাইলে যমুনার ভাঙ্গনে নদীগর্ভে অনেক বাড়ি – গ্রামীন নিউজ২৪

স্টাফ রিপোর্টারঃ / ৩৩৩০ বার পঠিত
প্রকাশের সময় : সোমবার, ৩০ আগস্ট, ২০২১, ৩:১১ অপরাহ্ন

টাঙ্গাইলের কালিহাতী উপজেলার দুটি গ্রামে দুই দিনে যমুনার ভাঙনে ৩৫টি বাড়ি নদীগর্ভে চলে গেছে। এছাড়াও অনেকের ঘর ও আসবাবপত্র যমুনায় ভেসে গেছে। ঘরবাড়ি হারিয়ে শত শত মানুষ বসবাস করছে খোলা আকাশের নিচে।

ভাঙনের শিকার মানুষের অভিযোগ, ভাঙনের বিষয়টি পানি উন্নয়ন বোর্ডকে জানানো হলেও তারা কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করেনি। এতে আরও শত শত ঘরবাড়ি ভাঙনের হুমকিতে রয়েছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, পানি বৃদ্ধির ফলে যমুনার চরাঞ্চলসহ টাঙ্গাইল সদর, নাগরপুর, কালিহাতী, ভূঞাপুর ও বাসাইল উপজেলার নিম্নাঞ্চলে বন্যার পানি প্রবেশ করে অর্ধশতাধিক নতুন গ্রাম বন্যার কবলে পড়ছে। সেই সঙ্গে বিভিন্ন এলাকায় দেখা দিয়েছে তীব্র ভাঙন। ভাঙনের ফলে টাঙ্গাইল সদর, কালিহাতী, ভূঞাপুর ও বাসাইলের বেশ কয়েকটি ইউনিয়নের শতাধিক বসতভিটা, মসজিদ, বাঁধসহ নানা স্থাপনা নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে।

সরেজমিন কালিহাতী উপজেলার ভৈরববাড়ী ও আলীপুর গ্রাম ঘুরে দেখা যায়, যমুনার পাড়ে থাকা প্রতিটি বাড়ির মানুষ ঘর ও আসবাবপত্র সরানোর কাজে ব্যস্ত সময় পার করছেন। আবার অনেকেই ঘর ও আসবাবপত্র সরিয়ে অন্যের জমিতে রেখে দিয়েছেন। কেউ কেউ নৌকা করে আসবাব পত্র দূরের আত্মীয়স্বজনের বাড়িতে রেখে আসছেন। তাদের প্রতিটি মুহূর্ত যেন কাটছে আতঙ্কের মধ্য দিয়ে। নাওয়া-খাওয়া ভুলে রাত-দিন কাজ করছেন তারা। তাদের অনেকেরই ভবিষ্যৎ ঠিকানা কোথায় হবে সেটিও জানা নেই তাদের।

ভৈরববাড়ী গ্রামের মহর মিয়া জানান, এ পর্যন্ত পাঁচবার তার বাড়ি ভেঙে যমুনায় চলে গেছে। এখন তার আর থাকার কোন জায়গা নেই, ঘর ভেঙে রেখেছেন অন্যের জমিতে। স্থায়ী বাঁধের আশ্বাস দেওয়া হলেও তা এখনো করা হয়নি। স্থায়ী বাঁধ করা হলে আর তাদের ঠিকানাহীন হতে হবে বলেও জানান তিনি।

স্থানীয় ইউপি সদস্য আব্দুল খালেক জানান, গত দুই দিনে ভৈরববাড়ী এলাকার অন্তত ৩৫টি বাড়ি যমুনার গর্ভে চলে গেছে। অনেকেই আসবাবপত্র সরানোর মতোও সময় পায়নি। অনেকের দুই তিনটি করে ঘর যমুনায় ভেসে গেছে। বিষয়টি পানি উন্নয়ন বোর্ডকে বারবার জানানো হলেও কোনো সুরাহা হয়নি।

চলতি মৌসুমে আড়াই শতাধিক ঘরবাড়ি যমুনায় বিলীন হয়েছে। এছাড়াও পাশ্ববর্তী আলীপুর গ্রামসহ আশপাশের গ্রামে যমুনার ভাঙনে হুমকির মুখে থাকা শতাধিক ঘরবাড়ি সরিয়ে নেওয়া হচ্ছে বলেও জানান তিনি।

জেলা প্রশাসন সূত্র জানায়, যমুনার ভাঙনে ক্ষতিগ্রস্ত ৯০ পরিবারকে ১০ হাজার টাকা করে আর্থিক সহযোগিতা করা হয়েছে।

  • আমাদের ইউটিউব পেজ ভিজিট করতে লগইন করুনঃ Grameen news24 Tv

এ জাতীয় আরো সংবাদ
এক ক্লিকে বিভাগের খবর