সংবাদ শিরোনাম :
সংবাদ শিরোনাম :
সাতক্ষীরা ১৮ মাস পর পানিমুক্ত হলো সাতক্ষীরার চারটি গ্রাম – গ্রামীন নিউজ২৪ ওয়ানডে বিশ্বকাপের মূলপর্বে জায়গা পেল  বাংলাদেশ নারী ক্রিকেট দল – গ্রামীন নিউজ২৪ একটি বাস দিয়ে নিজের সংসার চালায় কেউ কেউ – গ্রামীন নিউজ২৪ সাতক্ষীরার দেবহাটা ও কালিগঞ্জ উপজেলায় আওয়ামী লীগের ৯নেতা বহিস্কার – গ্রামীন নিউজ২৪ তাহিরপুরে বিআইডব্লিওটিএর নামে চাঁদাবাজী বন্ধের প্রতিবাদে ধর্মঘট ও মানববন্ধন – গ্রামীন নিউজ২৪ পঞ্চম ধাপের তফসিল ঘোষণা করেছে নির্বাচন কমিশন – গ্রামীন নিউজ২৪ মোংলায় সহিংস উগ্রবাদ প্রতিরোধে মতবিনিময় সভা – গ্রামীন নিউজ২৪ মুম্বাইয়ে সন্ত্রাসী হামলায় নিহতদের স্মরণে শাহবাগে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের মোমবাতি প্রজ্বলন – গ্রামীন নিউজ২৪ ঠাকুরগাঁওয়ে হরিপুরে বিলুপ্তপ্রায় নীলগাই উদ্ধারের পরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু – গ্রামীন নিউজ২৪ শ্যামনগরের শিশু ধর্ষন মামলার পলাতক আসামী র‌্যাবের হাতে আটক – গ্রামীন নিউজ২৪
বিজ্ঞপ্তি :
গ্রামীন নিউজ২৪টিভি পরিবারের জন্য দেশব্যাপী প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। যোগ্যতা এইচ এসসি পাশ, অভিজ্ঞতাঃ ১ বৎসর, আগ্রহীরা যোগাযোগ করুন 01729188818, সিভি ইমেইল করুনঃ grameennews24tv@gmail.com

ঘোড়াঘাটে লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়েছে পাটের আবাদ, দামেও খুশি কৃষকরা – গ্রামীন নিউজ২৪

এস এম আরিফুল ইসলাম জিমন / ১৯৬৫ বার পঠিত
প্রকাশের সময় : শুক্রবার, ৩ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ৬:১০ অপরাহ্ন

গত কয়েক বছর ধরে পাটের ন্যায্য দাম না পাওয়ায় কৃষকরা পাট চাষ থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছিলেন। তবে বর্তমানে এই অবস্থার একটু পরিবর্তন হয়েছে।দিনাজপুরের ঘোড়াঘাটে এ বছর আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় পাটের বাম্পার ফলন হয়েছে। এর ফলে গত বছরের তুলনায় হেক্টর প্রতি পাটের ফলন বৃদ্ধিসহ পাটের দাম পেয়ে খুশি এ উপজেলার কৃষকরা। দেখে মনে হচ্ছে দেশে সোনালী আঁশ পাটে সুদিন ফিরতে শুরু করেছে।

উপজেলা কৃষি দপ্তর সুত্রে জানা যায়, এ বছর উপজেলার ৪ টি ইউনিয়ন ও ১ টি পৌরসভার ১৪০ হেক্টর জমিতে দেশী ও তোষা জাতের পাটের চাষ করেছে কৃষকরা। হেক্টর প্রতি পাটের গড় ফলন নিধার্রন করা হয়েছে ১০.৯ বেল। আর ১৪০ হেক্টর জমি থেকে পাটের উৎপাদন নির্ধারন করা হয়েছ ১৫ শ ২৬ বেল।

যা গত বছর হেক্টর প্রতি পাটের গড় ফলন ছিল ১০.৬বেল ও ১২৫ হেক্টর জমিতে পাটের উৎপাদন ছিল ১৩ শ ২৫ বেল। বর্তমান সময়ে পাট কাটা, পানিতে জাগ দেয়া, আশঁ ছাড়ানো ও শুকানোর কাজে ব্যস্ত সময় পার করছেন কৃষকরা। অনেকে পাট শুকিয়ে বাজারে বিক্রিও করছেন।

উপজেলার কুলানন্দপুর গ্রামের পাট চাষী সেকেন্দার আলী বলেন, গত বছর প্রতি মন পাট বিক্রি করেছি ১,৫০০ থেকে ১,৮০০ টাক পর্যন্ত। এ বছর প্রতি মন পাট বিক্রি করছি ৩,০০০ টাকা থেকে ৩,৫০০ টাকা পর্যন্ত।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা এখলাছ হোসেন সরকার জানান, এবার পাটের উৎপাদন ভালো হয়েছে। কৃষকরা তাদের উৎপাদিত পাটের ভালো দাম পাচ্ছেন। আশা করছি আগামী বছরে পাটের আরো ফলন বাড়বে। পাট সংরক্ষণ ও বাজার জাতকরণে কৃষককে উপজেলা কৃষি অফিস সবসময় বিভিন্নভাবে পরামর্শ দিয়ে সহযোগিতা করে যাচ্ছে।

  • আমাদের ইউটিউব পেজ ভিজিট করতে লগইন করুনঃ Grameen news24 Tv

এ জাতীয় আরো সংবাদ
এক ক্লিকে বিভাগের খবর