সংবাদ শিরোনাম :
সংবাদ শিরোনাম :
সাতক্ষীরা ১৮ মাস পর পানিমুক্ত হলো সাতক্ষীরার চারটি গ্রাম – গ্রামীন নিউজ২৪ ওয়ানডে বিশ্বকাপের মূলপর্বে জায়গা পেল  বাংলাদেশ নারী ক্রিকেট দল – গ্রামীন নিউজ২৪ একটি বাস দিয়ে নিজের সংসার চালায় কেউ কেউ – গ্রামীন নিউজ২৪ সাতক্ষীরার দেবহাটা ও কালিগঞ্জ উপজেলায় আওয়ামী লীগের ৯নেতা বহিস্কার – গ্রামীন নিউজ২৪ তাহিরপুরে বিআইডব্লিওটিএর নামে চাঁদাবাজী বন্ধের প্রতিবাদে ধর্মঘট ও মানববন্ধন – গ্রামীন নিউজ২৪ পঞ্চম ধাপের তফসিল ঘোষণা করেছে নির্বাচন কমিশন – গ্রামীন নিউজ২৪ মোংলায় সহিংস উগ্রবাদ প্রতিরোধে মতবিনিময় সভা – গ্রামীন নিউজ২৪ মুম্বাইয়ে সন্ত্রাসী হামলায় নিহতদের স্মরণে শাহবাগে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের মোমবাতি প্রজ্বলন – গ্রামীন নিউজ২৪ ঠাকুরগাঁওয়ে হরিপুরে বিলুপ্তপ্রায় নীলগাই উদ্ধারের পরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু – গ্রামীন নিউজ২৪ শ্যামনগরের শিশু ধর্ষন মামলার পলাতক আসামী র‌্যাবের হাতে আটক – গ্রামীন নিউজ২৪
বিজ্ঞপ্তি :
গ্রামীন নিউজ২৪টিভি পরিবারের জন্য দেশব্যাপী প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। যোগ্যতা এইচ এসসি পাশ, অভিজ্ঞতাঃ ১ বৎসর, আগ্রহীরা যোগাযোগ করুন 01729188818, সিভি ইমেইল করুনঃ grameennews24tv@gmail.com

আটঘরিয়ায় রুপালি কাঠিতে কৃষকের সুদিন ফিরেছে – গ্রামীন নিউজ২৪

ইব্রাহীম খলীল, পাবনা জেলা প্রতিনিধি: / ৩০১৯ বার পঠিত
প্রকাশের সময় : শনিবার, ৪ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ৮:৫৩ পূর্বাহ্ন

সোনালি আঁশ পাটের জন্য বিখ্যাত আটঘরিয়া উপজেলা। গুণে ও মানে দেশসেরা এ উপজেলার পাট। তবে আগে পাটের দুর্দিন গেলেও এখন পাটের সুদিন চলছে। কারণ পাটের আর কোনো কিছুই এখন ফেলানাে হয় না। আগে পাটকাঠি অবহেলা করে ফেলে দেয়া হতো। এখন রান্নার জ্বালানি, ঘরের বেড়া কিংবা পানের বড়ের ছাউনি তৈরিতে ব্যবহৃত হয়।

কিন্তু বর্তমানে বিশ্ববাজারে পাটকাঠির ব্যাপক চাহিদা বেড়েছে। আর তাই সোনালি আঁশের রুপালি কাঠিতে আশার আলো দেখছে এই উপজেলার কৃষকেরা। আটঘরিয়া উপজেলার সুতার বিলের পাট চাষিরা চাহিদা অনুপাতে পাটের ভালো দাম পাচ্ছে এই মৌসুমে। সোনালি আঁশের পাশা পাশি পাট কাঠিতেও তারা ভালো লাভ করছেন।

উপজেলার সুতার ব্রীজ থেকে পূর্বে ডেঙ্গাগ্রাম পর্যন্ত আড়াই কিলোমিটার,সুতার নদীর দুই পাশ দিয়ে দক্ষিণে পাবনা সদর উপজেলার কামার গ্রাম পর্যন্ত তিন কিলোমিটার, সুতার ব্রীজ হতে উত্তরে তারাপাশা সুইচ গেট পর্যন্ত চার কিলোমিটার এবং সুতার এ ব্রীজ হতে পশ্চিমে কয়ড়াবাড়ী বাজার পর্যন্ত আড়াই কিলোমিটার রাস্তা ও নদীর পাড় দিয়ে সাড়ি সাড়ি পাট কাঠি শুকানো হচ্ছে।

বিস্তীর্ণ এলাকার যতদূর চোখ য়ায় শুধু রুপালী পাটকাঠি আর পাঠকাটি। নিজ চোখে না দেখলে বোঝাই যাবেনা এত সুন্দর গ্রাম বাংলার সেই চির চেনারুপ। এই গ্রামে গিয়ে দেখা যায়, এখানকার চাষিরা পাট ঘরে তোলার পাশাপাশি পাটের কাঠি আগের মতো অবহেলায় ফেলে না রেখে যত্ন করে শুকিয়ে গুছিয়ে রাখছেন। কেউ কেউ আবার বিক্রি করছেন। এখানকার পাট কাঠি ও পাট দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে বিক্রি করা হয়। তবে এর বেশী ভাগই বিক্রি করা হয়, খিদিরপুর, কুষ্টিয়া ভেড়ামারা, আল্লার দরগা,কুচিয়ামাড়া, মেহেরপুরসহ, রাজশাহীর মহোনপুরে।

আটঘরিয়া উপজেলার মহেশপুর এলাকার পাট চাষি শামিম হোসেন জানান, গত কয়েক বছর আগেও পাটকাঠির তেমন চাহিদা ছিল না। কিন্তু এখন এর বেশ চাহিদা। দূর-দূরান্ত থেকে ব্যবসায়ীরা এসে পাটের এই রুপালি কাঠি কিনে নিচ্ছেন, ভালো দামও দিচ্ছেন। একশ মোটা পাট কাঠি বিক্রয় হচ্ছে ৪০০ থেকে ৫০০ টাকায়। তিনি বলেন, পাটের আবাদে যে খরচ তা শুধু পাট বিক্রয় করে হয় না। নতুন করে পাটের এই কাঠি আমাদের আশা যুগিয়েছে।

কয়ড়াবাড়ী এলাকার পাট চাষি উবাই, সুতার বিলের আব্দুর রাজ্জাক এবং পাটেশ্বরের ফুল মিয়া জানান, এই পাটকাঠি এক সময় রান্নার জ্বালানি, ঘরের বেড়া, পানের বড়ের ছাউনির কাজে ব্যবহৃত হত। আমরা শুনেছি এখন এই রুপালি কাঠি দেশের পার্টিকেল বোর্ড তৈরিতে ব্যবহৃত হচ্ছে। বর্তমানে বিশ্ববাজারে এর ব্যাপক চাহিদা থাকায় পাট কাঠির ছাই বিদেশে রফতানি হচ্ছে। তাই ভালো দাম পাচ্ছি।

জুলহাজ্ব নামের এক কলেজ শিক্ষর্থী জানান, আমরা ইতিমধ্যে জানতে পেরেছি যে, চীনসহ বিভিন্ন দেশে পাটকাঠির ছাই থেকে কার্বন পেপার, কম্পিউটার ও ফটোকপিয়ারের কালি, আতশবাজি ও ফেসওয়াশের উপকরণ, মোবাইলের ব্যাটারি, প্রসাধনী পণ্য, এয়ারকুলার, পানির ফিল্টার, বিষ ধ্বংসকারী ওষুধ, জীবন রক্ষাকারী ওষুধ, দাঁত পরিষ্কারের ওষুধ ও ক্ষেতের সার উৎপাদনের কাঁচা মাল হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে। যে কারণেই দিন দিন পাটকাঠির চাহিদা বেড়ে যাচ্ছে। এটা আমাদের জন্য অনেক ভালো বিষয়।

আটঘরিয়া উপজেলা কৃষি কমকর্তা জানান, সম্প্রতি তার দপ্তর পাটের ফলনের উপর জরিপ করেছে। চলতি মৌসুমে এ উপজেলায় ৪ হাজার ৬৫০ হেক্টর জমিতে পাটের আবাদ হয়েছে। যা গত বছরের চেয়ে বেশি। সে অনুযায়ি আটঘরিয়ার গড় ফলন একর প্রতি ২৬ মণ। বিঘা প্রতি ৮থেকে ৯ মণ হারে হয়েছে। তবে নদী, খাল সংলগ্ন জমি ও নীচু মাঠে পাট চাষ অনেক টা লাভজনক। কারন পাট কাটার পরে নিকটেই পচাতে পারে। পচনের উদ্দেশ্যে পাট বহন একটি বড় ব্যয়। স্থান ভেদে একর প্রতি বহন খরচ ১০ হাজার টাকা ছাড়িয়ে যায়। তখন লাভ গিয়ে দাঁড়ায় পাট কাঠিতে। তবে এ বছর পর্যাপ্ত পরিমাণ পানি পাওয়ায় পাট আশের গুণগত মান ভালো থাকায় কৃষকেরা ভালো দামও পাচ্ছে। এতে কৃষকেরা অনেক খুশি।

  • আমাদের ইউটিউব পেজ ভিজিট করতে লগইন করুনঃ Grameen news24 Tv

এ জাতীয় আরো সংবাদ
এক ক্লিকে বিভাগের খবর