সংবাদ শিরোনাম :
সংবাদ শিরোনাম :
ঘোড়াঘাটে গলায় ওড়না পেচিয়ে যুবকের আত্মহত্যা – গ্রামীন নিউজ২৪ ঘরে ঘরে বিদ্যুতায়নের লক্ষে সোলার হোম সিস্টেম বিতরণ – গ্রামীন নিউজ২৪ ময়মনসিংহের শম্ভুগঞ্জে ভ্যানের উপরে বিদ্যুতের তার ছিড়ে নিহত দুই – গ্রামীন নিউজ২৪ জয়পুরহাটে ডিবি পরিচয়ে ছিনতাইয়ের সময় আটক-৪ – গ্রামীন নিউজ২৪ গাজীপুরের কালীগঞ্জে অরক্ষিত রেলক্রসিংয়ে ট্রেনের ধাক্কায় পিকআপের তিন যাত্রী নিহত – গ্রামীন নিউজ২৪ রেল লাইনের উপরে গাছ ট্রেন যোগাযোগ বন্ধ – গ্রামীন নিউজ২৪ শ্যামনগরে ভ্যান শ্রমিকদের সাথে এম পি জগলুলের মতবিনিময় – গ্রামীন নিউজ২৪ এক এক করে বাড়ছে নিত্যপণ্যের দাম – গ্রামীন নিউজ২৪ পদ্মাসেতু নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর দেয়া বক্তব্য নিয়ে ভুল ব্যাখ্যা দিচ্ছে বিএনপি- ওবায়দুল কাদের – গ্রামীন নিউজ২৪ ১০ কোটি টাকার স্বর্ণের বারসহ আটক এক – গ্রামীন নিউজ২৪
বিজ্ঞপ্তি :
গ্রামীন নিউজ২৪টিভি পরিবারের জন্য দেশব্যাপী প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। যোগ্যতা এইচ এসসি পাশ, অভিজ্ঞতাঃ ১ বৎসর, আগ্রহীরা যোগাযোগ করুন 01729188818, সিভি ইমেইল করুনঃ grameennews24tv@gmail.com

রাজশাহী আমদানি কম, বাড়ছে পেঁয়াজ মাছ শাকসবজি ডিমের দাম – গ্রামীন নিউজ২৪

মানিক হোসেন, রাজশাহী প্রতিনিধি: / ৩৭৮ বার পঠিত
প্রকাশের সময় : শুক্রবার, ১৩ মে, ২০২২, ৯:৩৩ অপরাহ্ন

রাজশাহীর বাজারে আমদানি কমে যাওয়ায় বাড়ছে মাছ শাকসবজি ও ডিমের দাম। ক্রেতাদের বাজার সদাই যেন কিছুতেই স্বস্তি মিলছে না। সয়াবিন তেলের কারসাজির মধ্যে চাহিদা না থাকলেও সরিষার তেলের মূল্য চোখ রাঙাচ্ছে। চাল, মাংসের বাজারে মূল্যবৃদ্ধি না হলেও চিনি আটা ও মসুর ডালের মূল্য ক্রমান্বয়ে বাড়ছে। কাঁচা বাজার ঘুরে দেখা গেছে, প্রতি কেজি পেয়াজে ১০ টাকা, রসুনে, কাঁচা মরিচে ২০ টাকা বেড়েছে।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

শুক্রবার (১৩ মে) নগরীর সাহেব বাজার সহ কয়েকটি বাজার ঘুরে দেখা গেছে বাজারদরে মূল্যবৃদ্ধির চিত্র। সরকার দাম বেঁধে দেয়ার বোতলজাত সয়াবিন তেল ১৯৮ টাকা, খোলা তেল ১৮০ এবং পাম ওয়েল তেল ১৭০ টাকা লিটার বিক্রি হচ্ছে। ইদের আগে আটার দাম ৩২ টাকা থেকে ৩ টাকা বেড়ে ৩৫ টাকা কেজি বিক্রি হতে দেখা গেছে। সেই আটার কেজি ৩৮ টাকায় এসেছে। সরিষার তেলের চাহদা নেই তবুও খোলা সরিষার তেল ২০ টাকা বেড়ে ২২০ টাকা লিটার বিক্রি হচ্ছে। সুশিল স্টোরের বিক্রেতা রমেশ বলেন, আমরাও বলতে পারবো না সরিষার তেলের দাম বাড়ছে কেনো। সারাদিনে তো সরিষার তেলের ক্রেতা চোখে পড়েনা। সবাই সরিষার তেল খেতে চাইলেও সয়াবিনের তেলই কিনে যায়।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

কোম্পানির বোতলজাত সরিষার তেলের মধ্যে হাসান আলী ২৪০ টাকা, লাঙ্গল, জমজম ২৩০ টাকা আর রাধুনীর সরিষার তেল ২৯০ টাকা লিটার বিক্রি হচ্ছে। এখানে ২৯০ লিটার তেলের দাম কেন? কি গুনাগুনের জন্য এত বেশি মাথায় আসছে না।
এদিকে চিনির বাজরে টাকা করে বেড়ে চিনি ৮২ টাকা এবং দেশি চিনি ৮৬ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে। মোটা মসুর ডাল ১০০ টাকা ছিল এ সপ্তাহে ১০ টাকা বেড়ে ১১০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে । চালের দোকানে মূল্যবৃদ্ধি বা কমতির অভিযোগ নেই ক্রেতা বিক্রেতাদের।

দরগা পাড়া থেকে সাহেব বাজার মাছ কিনতে এসেছেন রহিদুল ইসলাম। তিনি বলেন, বড় মাছের মধ্যে কাতল, রুই, বোয়াল, কৈ, সিলভার, পাঙ্গাস মাছের দাম বেড়েছে। যেগুলো সাধারণ মানুষেরা খায়। তেলের সাথে কি মাছেরও সঙ্কট পড়ল?
এদিকে মাছের দাম বৃদ্ধির কারণ জানতে চাইলে মাছ ব্যবসায়ী নুরুল ইসলাম বলেন, মাছের ডিম পাড়ার সময় এখন। পুকুরের মাছ তেমন পাওয়া যাচ্ছে না। অন্যদিকে সেলিম নামের মাছ ব্যবসায়ী বলেন, ইদের আগে ৭ থেকে ১০ হাজার কেজি মাছ রাজশাহীর বাজারে আসতো। এখন, ৪ থেকে ৫ হাজার মাছ আসছে। কারণ, মাছের আমদানি কমে গেছে চাহিদা ঠিক থাকলেও দাম বাড়ছে। এই বাজারে ১০ থেকে ১৫ গাড়ি মাছ আসতো। বায়া, আমচত্বর ও খাটাখালি বাজার যখন থেকে বসেছে তখন থেকে মাছ কম আসে এই বাজারে। মাছের দাম আরও বাড়তে পারে বলে জানান তিনি। দেখা গেছে প্রতি কেজি কাতল ৩০০ টাকা, বোয়াল ৬০০ টাকা, পাবদা ও রুই ২৮০ টাকা, কৈ ২০০ টাকা, মিড়কা ১৬০ টাকা, গুচি ৭০০ টাকা, ইলিশ ১ হাজার ৩০০ টাকা, পুঁটি ও সিলভার ২০০ টাকা, পাঙ্গাস ২৫০ টাকা, শিং ৩৫০ টাকা, বাটার মাছ ১৬০ টাকা, শোল ৫০০ টাকা, টাকি ৩০০ টাকা দরে বিক্রি হয়েছে।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

শাকসবজির বাজারে পেঁয়াজ ১০ টাকা বেড়ে ৪০ টাকা, সজনে ১০ টাকা বেড়ে ৮০ টাকা, গাজর ৪০ টাকা বেড়ে ৮০ টাকা, রসুন ও কাঁচা মরিচ ২০ টাকা বেড়ে ১০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া আদা ৮০ টাকা, শুকনা মরিচ ৩২০ টাকা, ফুলকপি ২০ টাকা কমে ৮০ টাকা, তরই ২০ টাকা কমে ৬০ টাকা, আলু ২৫ টাকা, বেগুন ১০ টাকা কমে ৫০ টাকা কাকরোল ২০ টাকা কমে ৬০ টাকা, কচুর লতি ৬০ টাকা, শশা, ঝিঙে, মিষ্টি কমুড়া, ঢেড়স ও মুলা ৪০ টাকা, লাউ ৩০ টাকা, টমেটো ৬০ টাকা, কচু ১০০ টাকা কেজি বিক্রি হয়েছে।

জয়নাল নামের একজন ক্রেতা শাকসবজি কিনছিলেন। তার সাথে কথা বললে তিনি বলেন, তেলের খেলা শেষ না হতেই এখন পেয়াঁজের খেলা শুরু। গত সপ্তাহে ২৫ টাকা কেজি কিনে নিয়ে গেছি। এ সপ্তাহে এসে দেখি ৪০ টাকা কেজি। তেলের মত পেয়াজেও কি তেলেসমাতি চলবে।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

কিছু সবজির দাম বেড়ে গেছে। বাজারের জামাল নামের বিক্রেতা বলেন, চাষীরা এখন পেয়াজ সংরক্ষণ করছে। বর্ষায় দাম বাড়লে বিক্রি করবে। বাজারে পেয়াজ আসছে কম তাই দাম বাড়ছে।
এদিকে পুইশাক, ডাটা শাক, পাটের শাক, কচু ও কলমী শাক ২০ টাকা কেজি বিক্রি হতে দেখা গেছে। সেই সাথে তরকারি রান্না করে খাওয়া কাঁঠালের পিচ ২০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

এদিকে বাজারের মাংসের বাজার স্থির হলেও অস্থির হয়ে উঠছে ডিমের দাম। মাংসের বাজারে গরুর মাংস ৬৫০ টাকা, ছাগলের মাংস ৭০০ থেকে সাড়ে ৭০০ টাকা, খাসির মাংস ৯০০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। গোশতের জন্য ব্রয়লার মুরগি ১৬০ টাকা, সোনালী ২৭০ টাকা, সাদা লেয়ার ২২০ থেকে ২৩০ টাকা, পাতিহাঁস ৩৫০ টাকা, রাজহাঁস ও চিনা হাঁস ৪৫০ টাকা দেশি মুরগি ৪৮০ টাকা কেজি হিসেবে বিক্রি হতে দেখা গেছে। পিচ হিসেবে কোয়েল পাখি ৩৫ থেকে ৪০ টাকা, কবুতর ১০০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। অন্যদিকে, বাজারে মুরগির লাল ডিম হালিতে ৬ টাকা বেড়ে ৩৮ টাকা ও সাদা ডিম ৪ টাকা বেড়ে ৩৪ টাকা, হাঁসের ডিম ৪৫ টাকা, দেশি মুরগী ৬০ টাকা, কোয়ল পাখির ডিম ১০ টাকা হালি বিক্রি হচ্ছে।

মাহফুজ নামের একজন ক্রেতা জানান, বিক্রেতারা এক ধরণের দরকষাকষি কসাইয়ের মত করছে। মুরগির মাংসের দাম কোথাও ২৫০ টাকা একই মুরগির মাংস অন্য জায়গায় ২৭০ টাকা। এ সপ্তাহে মাছ, ডিম, সরিষার তেল, ডাল, পেঁয়াজ, আটা, চিনি এবং কিছু শাকসবজির দাম বেড়েছে। রাজশাহীর বাজারগুলো মনিটরিং শুধু সয়াবিন তেলই নয় সকল দ্রব্যের দিকেই নজর রাখা সময়ের দাবি।

  • আমাদের ইউটিউব পেজ ভিজিট করতে লগইন করুনঃ Grameen news24 Tv

এ জাতীয় আরো সংবাদ
এক ক্লিকে বিভাগের খবর