সংবাদ শিরোনাম :
সংবাদ শিরোনাম :
কে কার আত্মীয়, তা দেখবে না নির্বাচন কমিশন: ইসি আলমগীর – গ্রামীন নিউজ২৪ বোতল সয়াবিন তেলের লিটার ১৬৭, খোলা ১৪৭ কাল থেকে কার্যকর – গ্রামীন নিউজ২৪ খালেদা জিয়া মানুষকে ডালভাত খাওয়াতেও ব্যর্থ হয়েছিল: প্রধানমন্ত্রী – গ্রামীন নিউজ২৪ সুনামগঞ্জে বাস-সিএনজি সংঘর্ষে জনপ্রিয় সংগীত শিল্পী নিহত – গ্রামীন নিউজ২৪ লালমনিরহাটের হাতীবান্ধায় ছাত্রলীগ নেতাকে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতন – গ্রামীন নিউজ২৪ ঠাকুরগাঁওয়ে রানীশংকৈলে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে মাঠে নেমেছেন সম্ভাব্য প্রার্থীরা – গ্রামীন নিউজ২৪ আটঘরিয়ায় ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস উদযাপন উপলক্ষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত – গ্রামীন নিউজ২৪ ঝালকাঠিতে ট্রাক-প্রাইভেটকার-অটোরিকশার সংঘর্ষে ১১ জন নিহত – গ্রামীন নিউজ২৪ বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে কারিকুলাম যুগোপযোগী করার তাগিদ রাষ্ট্রপতির – গ্রামীন নিউজ২৪ ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস আগামীকাল – গ্রামীন নিউজ২৪
বিজ্ঞপ্তি :
গ্রামীন নিউজ২৪টিভি পরিবারের জন্য দেশব্যাপী প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। যোগ্যতা এইচ এসসি পাশ, অভিজ্ঞতাঃ ১ বৎসর, আগ্রহীরা যোগাযোগ করুন 01729188818, সিভি ইমেইল করুনঃ grameennews24tv@gmail.com। স্বল্প খরচে সাপ্তাহিক, মাসিক, বাৎসরিক চুক্তিতে আপনার প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন ০১৭২৯১৮৮৮১৮

একজন ভিন্নধর্মী উদ্যোক্তার গল্প – গ্রামীন নিউজ২৪

সাহিম রেজাঃ / ১৫২৭ বার পঠিত
প্রকাশের সময় : রবিবার, ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২২, ১১:০৩ পূর্বাহ্ণ
  • Print
  • আজ আমরা বলবো একজন সফল উদ্যোক্তার কথা। যার নাম প্রকৌশলী  মোঃ শফিকুল ইসলাম। গাইবান্ধা সদর উপজেলার খামার বোয়ালী গ্রামের মৃত আফসার উদ্দিনের ছেলে সে। ছোট বেলা থেকে কিছু করার অদম্য মানসিকতার কারনে আজ কম্পিউটার সায়েন্স এ্যান্ড  ইঞ্জিনিয়ারিং বিষয়ে উচ্চতর পড়াশুনা শেষ করে নিজেই হয়েছেন একজন উদ্যোক্তা। তার তৈরী ইলেকট্রিক ঢেঁকি আজ এলাকার সাধারন মানুষসহ অনেকের কাছে আলোচনার কেন্দ্রবিন্দু।

     

     

     

     

     

     

     

     

     

     

     

     

    সরেজমিনে গাইবান্ধা সদর উপজেলার বোয়ালী ইউনিয়নের খামার বোয়াল গ্রামে গিয়ে দেখা মেলে সেই ইলেকট্রিক ঢেঁকি দিয়ে লাল চাল চাটাই এর দৃশ্য। সেখানে গিয়ে দেখা যায় একটি ঘরে দুটি ইলেকট্রিক ঢেঁকি পাশাপাশি স্থাপন করা হয়েছে। মাঝখানে একজন কর্মী বসে পরিচালনা করছেন ঢেঁকি। এই দৃশ্য দেখার পরে আমরা নিজেরা প্রথমে একটু চিন্তায় পরে গেলেও সম্পূর্ণ প্রোজেক্টটি দেখার পরে মনে হল মানুষ ছাড়াও ইলেকট্রিক পদ্ধতিতে এই ঢেঁকি চালানো সম্ভব।

     

     

     

     

     

     

     

     

     

     

     

     

     

    এই বিষয়ে উদ্যোক্তা প্রকৌশলী মোঃ শফিকুল  ইসলামের সাথে কথা হলে তিনি তার সফলতার বিষয়টি নিয়ে আমাদের জানতে চাওয়া প্রশ্নের জবাবে বলেনঃ

    উদ্যোগের নামঃ ঢেঁকি ছাটা চালের প্রজেক্ট

    স্লোগানঃ নিরাপদ খাবার, নিরোগ দেহ।

    উদ্দেশ্যঃ প্রধান খাবার ভাত সহ সকল খাবারে পুষ্টি নিশ্চিত করে নিরাপদ, রোগমুক্ত জীবন উপহার দিয়ে চিকিৎসা ব্যয় হ্রাস করা ও জাতীয় শ্রমঘন্টার সঠিক ব্যবহার নিশ্চিত করা।

    উদ্যোগের কারনঃ বাংলাদেশ তথা দঃ এশিয়ার মানমানুষের প্রধান খাবার ভাত।

    কিন্ত আমাদের ভাত খাওয়ার যে অভ্যাস বা বাজারেযে ধরনের চাল পাওয়া যায় অথবা অটো রাইস বা
    হাস্কিং মিলে যে ধরনের চাল প্রস্তুত করা হয়, সেটাতেমুলত কার্ব হাইড্রেড ছাড়া অন্য কোন উপাদান থাকে না।

     

     

     

     

     

     

     

     

     

     

    মানে শুধু কার্ব হাইড্রেড দীর্ঘ সময় ধরে গ্রহন করায় মুলত আমাদের শরীরে ধীর মাত্রায় বিষ জমা হচ্ছে, যার ফলপ্রসূটিতে আমরা ৩৫ থেকে ৪৫ বছর বয়স সীমার মধ্যে কোন না কোন জটিল রোগে আক্রান্ত
    হচ্ছি যেমনঃ ডায়াবেটিস, ক্যান্সার, হার্ট-ডিজিজ,  কিডনি ডিজিজ, কোষ্টকাঠিন্য বা পাইলস সহ নানা বিধ নতুন ও পুরাতন রোগ।

    এই সমস্যা থেকে বেরিয়ে আশার জন্য আমার  ভাবনাতে আসল কিভাবে প্রধান খাবার ভাত কে পুষ্টি নিশ্চিত করে খাওয়ানো যায়।সর্বপরি, অনেক  স্টাডি, মুরব্বিদের পরামর্শে এই মর্মে উপনীত হলাম যে, আগের মানুষের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বেশি  হওয়ার অন্যতম কারন উনারা ঢেঁকি ছাটা আমন  ধানের ভাত, বিষমুক্ত মাছ মাংস খাইতেন ও কায়িক পরিশ্রম করতেন। সেই ভাবনা থেকেই আদি চাল  ঢেঁকি ছাটা উৎপাদন শুরু।

     

     

     

     

     

     

     

     

     

     

     

    ঢেকির ধরনঃ এটি একটি আধুনিক ঢেঁকি ।ঢেঁকির ধান বানার প্রক্রিয়া আগের মত থাকলে ঢেঁকিওঠানামা করে বিদ্যুতের সাহায্যে, তার মানে দাড়াল ইহা একটি ইলেক্ট্রিক ঢেঁকি, যা আমার নিজস্ব ডিজাইনে প্রস্তুতকৃত , স্থাপিত ও উৎপাদন  কাজে চলমান ।

    নতুন প্রজেক্টঃ আমরা নিরাপদ খাদ্যের আন্দোলন, উৎপাদন ও বিপনন প্রক্রিয়া কে সারাদেশ ব্যাপি  ছড়িয়ে দিতে চাই, তাই চাইলে যে কেউ আমাদের  কাছ থেকে ঢেঁকি প্রজেক্ট করে নিতে পারবেন।

     

     

     

     

     

     

     

     

     

     

     

    ঢেঁকি ছাটাই করা পণ্যের তালিকাঃ ঢেঁকি ছাটা  লাল চাল, ঢেঁকি ছাটা ব্রাউন চাল।ঢেঁকি ছাটা  কাউনের চাল।

    ঢেঁকি ছাটা লাল চালের গুনাগুনঃ

    ·         ফাইবার বা মেকোবালামিন

    ·         জার্ম

    ·         রাইস ব্রান

    ·         কার্ব-হাইড্রেড

    প্রজেক্ট কষ্টিংঃ মেক্যানিকাল পার্ট, ইলেক্ট্রিক পার্ট, সিভিল পার্ট ও ঢেঁকি পার্ট ।

    ০১ টি ঢেঁকিতে প্রায় ৭৫০০০, ০২ টি ঢেকিতে প্রায়  ১০০০০০/- খরচ নির্ধারন করা হয়েছে।

    বাৎসরিক উৎপাদনঃ ধানের হিসাবে +- ৮৫ টন।

    চালের হিসাবে +- ৫০ টন।

    মাসিক উৎপাদনঃ ধানের হিসাবে +- ০৭ টন।

    চালের হিসাবে +- ৩.৮ টন।

    জনবল বা মানব সম্পদঃ বর্তমানে দুইটি ঢেঁকি  উৎপাদন প্রক্রিয়া সচল রাখার জন্য ০৬ জন  লোকের লাগে।(২+২+১+১)

     

     

     

     

     

     

     

     

     

     

     

     

     

     

    পণ্যের মুল্যঃ প্রতি কেজি ঢেঁকি ছাটা লাল চালের  মূল্যঃ ( ৮৮/- প্রিমিয়াম কোয়ালিটি ও রেগুলার কোয়ালিটি ৭৮/- ) ,  প্রতি কেজি ঢেঁকি ছাটা ব্রাউন  চালের মূল্য ৭৫/-, প্রতি কেজি ঢেঁকি ছাটা কাউনের চালের মূল্য ১২৫/-

    বিপনন এরিয়াঃ সমগ্র বাংলাদেশ

    মাধ্যমঃ অনলাইন ভিক্তিক মার্কেটিং ও কাষ্টমার টু কাষ্টমার ।

    কেন খাবেন ঢেঁকি ছাটা চালঃ
    সুস্থতা আল্লাহ তায়ালার সবচেয়ে বড় নেয়ামত, সুস্থ থাকার জন্য উনি আমাদের কে ফরমুলা দিয়েছেন, আমরা সঠিক ভাবে বিধাতার নিয়ম ফলো ও সঠিক খাবার গ্রহন করলেই ডাক্তার হাস্পাতাল ছাড়াই  নিরাপদ ও নিশ্চিন্ত জীবন লাভ করতে পারব।ভাত খাওয়ার যথাযথ ও সঠিক প্রক্রিয়া হল  খোসাটাকে ফেলে খাওয়ার এর জন্য অবশ্যই ঢেঁকি ছাটা চাল খেতে হবে।তবে লাল চালে এন্টি অক্সিডেন্টের পরিমান বেশি থাকায় লাল চাল  খাওয়াই ভাল।

    সাদা চালের চেয়ে ঢেঁকি ছাঁটা চাল পুষ্টিগুণের দিক থেকে উৎকৃষ্ট মানের ও সুস্বাদু ।

     

     

     

     

     

     

     

     

     

     

     

     

     

     

    সাদা চালের মতো ঢেঁকি ছাঁটা চাল (ব্রাউনরাইস) বেশি পালিস হয় না।তাই দেখতে লাল এই চালের উপরিভাগে রাইস ব্রান বা ধানের তুষের কিছুটা অংশ থেকে যায়।

    কমপ্লেক্স কার্বোহাইড্রেট সমৃদ্ধ ব্রাউন রাইসে স্টার্চ ও ফাইবার রয়েছে।

    এই ব্রাউন রাইস হজম হতে বেশি সময় লাগে বলে ধীরে ধীরে সারাদিনে শরীরে প্রচুর শক্তি যোগান দেয়।

    এ ছাড়া ব্রাউন রাইসে রয়েছে ভিটামিন- বি, ভিটামিন- ই, ম্যাঙ্গানিজ ওসেলেনিয়াম যা অ্যালঝাইমার রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায় ও ক্যান্সার কোষ ধ্বংস করে।

    ব্রাইন রাইসে ইনসলিউবল ফাইবার বেশি থাকে ফলে এটি কোষ্ঠকাঠিন্য রোগীদের জন্য ভালো।

    যাদের হজমের সমস্যাতাদের জন্য ও ব্রাউন রাইস ভালো কেননা এটি হজম শক্তি বাড়ায় ।

    ডায়াবেটিকস নিয়ন্ত্রনে রাখে।

    তাই পুষ্টি গুণবিচার করে সাদা ভাতের চেয়ে ঢেঁকি ছাঁটা চালের ভাত খাওয়াভালো।

     

     

     

     

     

     

     

     

     

     

     

     

     

     

     

    নিয়মিত ঢেঁকি ছাটা চাল খাওয়ার অভ্যাস করলে অনেক উপকার পাওয়া যায়।

    যেমন ;

    ১. শরীরে এন্টিবডি তৈরি করে।

    ২.শরীরের ওজন কমায়

    ৩. হজম শক্তি বাড়ায়

    ৪.ক্যানসার রোগকে দূরে রাখে

    ৫. ঢেকি ছাটা চালে  প্রচুর পরিমানে ভিটামিন বি এবং ভিটামিন ইরয়েছে।

    ৬। ফাইবার আছে, যা লম্বা সময় ধরে ক্যালরির যোগান দেয়, এমন কি এই ফাইবার কোষ্ঠকানিষ্ট রোগ নিরাময়ে অগ্রণী ভুমিকা রাখে।

    ঔষধ নয়, নিরাপদ খাদ্যই পারে সুস্থ রাখতে।


    এ জাতীয় আরো সংবাদ
    • আমাদের ইউটিউব পেজ ভিজিট করতে লগইন করুনঃ Grameen news24 Tv
    এক ক্লিকে বিভাগের খবর