সংবাদ শিরোনাম :
সংবাদ শিরোনাম :
মামুনুল হক ডিবি কার্যালয়ে গিয়েছিলেন জব্দ করা মোবাইল আনতে – গ্রামীন নিউজ২৪ সাঘাটায় অবৈধ ইটভাটা বন্ধে অভিযান: ৩ ইটভাটায় জরিমানা – গ্রামীন নিউজ২৪ আবারও বেড়েছে সোনার দাম – গ্রামীন নিউজ২৪ পুকুর থেকে প্রকৌশলীর লাশ উদ্ধার – গ্রামীন নিউজ২৪ রাহুল বিয়ে করুক, সুখী হোক: প্রিয়াঙ্কা গান্ধী – গ্রামীন নিউজ২৪ নাগরিকদের প্রতি যে কোনো বৈষম্য আইনের শাসনের পরিপন্থী: রাষ্ট্রপতি – গ্রামীন নিউজ২৪ গাইবান্ধার পলাশবাড়ীতে ছুরিকাঘাতে নিহত ১ – গ্রামীন নিউজ২৪ ১ ঘন্টার চেষ্টায় কাওরানবাজারের আগুন নিয়ন্ত্রণে – গ্রামীন নিউজ২৪ সাতক্ষীরার তালায় সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ২ – গ্রামীন নিউজ২৪ শিক্ষককে পিটিয়ে হত্যা, চাচিসহ গ্রেপ্তার ৩ – গ্রামীন নিউজ২৪
বিজ্ঞপ্তি :
গ্রামীন নিউজ২৪টিভি পরিবারের জন্য দেশব্যাপী প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। যোগ্যতা এইচ এসসি পাশ, অভিজ্ঞতাঃ ১ বৎসর, আগ্রহীরা যোগাযোগ করুন 01729188818, সিভি ইমেইল করুনঃ grameennews24tv@gmail.com। স্বল্প খরচে সাপ্তাহিক, মাসিক, বাৎসরিক চুক্তিতে আপনার প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন ০১৭২৯১৮৮৮১৮

অতিরিক্ত ফি আদায়ের নির্দেশে ফেঁসে যাচ্ছেন শিক্ষা কর্মকর্তা, প্রকাশ্যে এলো ঘুষ বানিজ্য – গ্রামীন নিউজ২৪

স্টাফ রিপোর্টারঃ / ১০৩৯ বার পঠিত
প্রকাশের সময় : মঙ্গলবার, ২৬ এপ্রিল, ২০২২, ১১:৪২ পূর্বাহ্ণ
  • Print
  • ফুলবাড়ীয়ায় এসএসসি পরীক্ষার ফরম পূরণে বিজ্ঞান শাখার শিক্ষার্থীদের ক্ষেত্রে কেন্দ্র ফিসহ ১৬১৫ টাকা এবং মানবিক ও বাণিজ্য শাখার শিক্ষার্থীদের জন্য ১৪৯৫ টাকা ফিস নির্ধারণ করে নির্দেশনা প্রদান করেন ইউএনও । তিনি ইউএনও ফুলবাড়িয়া ফেইসবুক আইডি থেকে ফি নির্ধারণ করে একটি পোস্ট করেন। ফেইসবুক পোস্টে লিখেন নির্ধারিত ফি’র সাথে সেশনচার্জ ও বকেয়া বেতন বাবদ সর্বোচ্চ আরো ৫ শত টাকা নিতে পারবেন।

     

     

     

     

     

     

     

     

     

     

     

     

     

    কিন্তু ইউএনও নির্দেশকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে উপজেলার প্রায় প্রতিটি স্কুলেই আলাদা ভাউচারের মাধ্যমে অতিরিক্ত ফি আদায় করে স্কুল কতৃপক্ষ। যা বর্তমান সময়ে টক অব দ্যা ফুলবাড়িয়ায় পরিণত হয়। এনিয়ে একাধিক গণমাধ্যম ফরম পূরণে অতিরিক্ত ফি আদায়ের সংবাদ প্রকাশ করে।

     

    অভিযোগের প্রেক্ষিতে কাহালগাঁও দোলমা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের কাছে অতিরিক্ত ফি আদায়ের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি জানিয়েছিলেন, ফুলবাড়িয়ার প্রতিটি স্কুলেই ফরম পূরণে নির্ধারিত ফি, সেশনচার্জ, বকেয়া বেতন বাবদ সাড়ে ৩ হাজার থেকে ৪ হাজার নেওয়া হচ্ছে। আর এগুলো আলাদা আলাদা ভাউচারের মাধ্যমে। আর উপজেলা উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার বেলায়েত হোসেন শিক্ষকদেরকে আলাদা ভাউচারে টাকা গুলো উত্তোলনের নির্দেশনা দিয়েছিলেন বলে এই প্রতিবেদককে জানিয়েছিলেন। যা পূর্বের নিউজে গুরুত্বের সাথে প্রকাশ হয়। এমন নির্দেশনার পর প্রকাশ্যে এলো তার ঘুষ বানিজ্য। আর একজন শিক্ষা কর্মকর্তার এমন বক্তব্যের পর আরো গভীরভাবে অনুসন্ধানের জন্য দৈনিক বর্তমান কথা পত্রিকা অফিস থেকে নির্দেশনা প্রদান করা হয়।

     

     

     

     

     

     

     

     

     

     

     

     

    এরই ধারাবাহিকতায় অনুসন্ধানে উঠে আসে চাঞ্চল্যকর তথ্য। অনুসন্ধানে জানাযায়, উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার বেলায়েত হোসেন যোগদানের পর থেকেই চুক্তিতে বিভিন্ন কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছেন। এসএসসি ফরম পূরণে অতিরিক্ত ফি’র একটা নির্ধারিত অংশ তাকে দিতে হবে এই শর্তেই তিনি আলাদা ভাউচারের মাধ্যমে টাকা উত্তোলনের নির্দেশ দিয়েছিলেন। তার কথা শর্তমতেই উপজেলার প্রতিটি স্কুলেই আলাদা ভাউচারে সাড়ে তিন থেকে চার হাজার টাকা পর্যন্ত উত্তোলন করা হয়। এছাড়াও করোনাকালীন সময়ে এসাইনমেন্ট ফি আদায়ের ক্ষেত্রে ব্যাপক অনিয়ম পরিলক্ষিত হয়। প্রত্যেক শিক্ষার্থীর কাছ ২ থেকে ৫ ‘শ টাকা পর্যন্ত আদায় করে স্কুল কতৃপক্ষ। যা উপজেলা উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তার যোগসাজশ ও নির্দেশে আদায় করা হয়। এছাড়াও এই কর্মকর্তার বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে তিনি অসৎভাবে উৎকোচ গ্রহণ করে বিভিন্ন স্কুলের ম্যানেজিং কমিটি গঠন করে থাকেন। যা শিবগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয়ের কমিটি গঠনের সময় প্রকাশ্যে আসে।

    এনিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যাপক সমালোচনার সৃষ্টি হয়।

     

     

     

     

     

     

     

     

     

     

     

    এদিকে ২৪ এপ্রিল সোমবার বাংলাদেশ জামিয়াতুল মুদার্রেছিন ফুলবাড়িয়া উপজেলা শাখার ইফতার মাহফিলে ইবতেদায়ী মাদ্রাসার প্রধান শিক্ষকদের কাছ থেকে নিজ অফিসকক্ষ সৌন্দর্য বর্ধন কাজের জন্য ১ হাজার টাকা করে চাঁদা নেওয়ার অভিযোগ উঠে এই কর্মকর্তার বিরুদ্ধে। তারা আরো অভিযোগ করেন,মাদ্রাসায় প্রতিটি নিয়োগের ইন্টারভিউ দিতে তার কাছে আসলে ৫০ হাজার টাকা দিতে হয়। তার এসব দূর্নীতি ও অনিয়মের বিষয়ে বক্তব্য রাখেন নেতৃবৃন্দ। এসময় উপজেলা আ’লীগ সভাপতি এডভোকেট ইমদাদুল হক সেলিম, কৃষকলীগ সভাপতি এ কে এম মাসুদ আলমসহ উপজেলা আ’লীগ সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

    এবিষয়ে উপজেলা কৃষক লীগ সভাপতি এ কে এম মাসুদ আলমের সাথে আলোচনা কালে তিনি বলেন, আমরা ফুলবাড়িয়াবাসী শিক্ষা খাত নিয়ে খুব বিপদের মধ্যে রয়েছি। বেলায়েত হোসেন সাহেবের পূর্বে যিনি ছিলেন তিনি হাদিয়া নিতেন আর বেলায়েত হোসেন সাহেব চুক্তি করেন বলে শুনছি।এছাড়াও নিয়োগ প্রার্থীদের কাছ থেকে জনপ্রতি ৫০ হাজার টাকা ঘুষ গ্রহণ তার ওপেন সিক্রেট।যা আজকের ইফতার পার্টিতে প্রকাশ্যে তাদের বক্তব্যে বলেছেন জামিয়াতুল মুদার্রেছিন এর নেতৃবৃন্দ।বেলায়েত হোসেনের পূর্বে যিনি কর্মরত ছিলেন তিনি নিতেন হাদিয়া। ঐ হাদিয়া নেওয়া শিক্ষা কর্মকর্তাকে নিয়ে দৈনিক আমাদের কন্ঠ- পত্রিকাসহ কয়েকটি পত্রিকায় সংবাদ হলে তাকে অন্যত্র বদলী করা হয়। এর এখন বেলায়েত হোসেন সাহেব চুক্তি করে কাজ করেন বলে লেখা হচ্ছে তাহলে শিক্ষাখাত কোন দিকে যাচ্ছে তা ভেবে দেখতে হবে। আমি মনে করি আমাদের ফুলবাড়িয়ার শিক্ষা খাতকে ধ্বংসের দিকে নিয়ে যাচ্ছে এসব দূর্ণীতিবাজ কর্মকর্তারা। দুইদিন পূর্বে ফুলবাড়িয়া গার্লস স্কুলের একজন গরীব ছাত্রী আমার কাছে এসে কেঁদে ফেলে পাশে তার মা ছিল। ঐ ছাত্রটি জানায় স্কুলের ধার্যকৃত সাড়ে ৩ হাজার টাকা দেওয়ার মত সামর্থ তার না থাকায় মা ছেলে দুজনেই অনেক অনুনয় বিনয় করেছি। তারপরও একটুও ছাড় দেওয়া হয়নি। অবশেষে সুদে টাকা নিয়ে ফরম পূরণ করতে হয়েছে তার। আজ এই ছাত্রের সাথে যা হয়েছে কাল যদি এই ছাত্রটি শিক্ষক হয় তাহলে তার আচরণ বা কার্যক্রমতো এর চেয়েও খারাপ হতে পারে। আমাদের সন্তানরা স্কুলে গিয়ে কি শিখছেন। লেখা পড়ার পাশাপাশি এগুলো তারা সাফার করছেন। তাই আমি শিক্ষা বিভাগের উর্ধ্বতন কর্মকর্তা ও মাননীয় শিক্ষামন্ত্রী মহোদয় এর হস্তক্ষেপ কামনা করে বলতে শিক্ষাখাতকে দূর্ণীতি মুক্ত করতে ব্যবস্থা নিন। বিশেষ করে আমাদের ফুলবাড়িয়ার শিক্ষাখাত দূর্ণীতিতে এখন সয়লাভ। ফুলবাড়িয়ার প্রতি নজর দিন।

     

     

     

     

     

     

     

     

     

     

     

     

    ফুলবাড়িয়া গার্লস স্কুলের প্রধান শিক্ষক মোঃ রুহুল আমীন অতিরিক্ত ফি আদায়ের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমরা বোর্ডের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ফি আদায় করেছি। বোর্ডের নির্দেশনা মতে আমরা ২ বছরের বকেয়া বেতন আদায় করতে পারি।

    এসব অভিযোগের বিষয়ে মুঠোফোনে জানতে চাইলে উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা বেলায়েত হোসেন বলেন, আপনি অফিসে আইসেন, দেখি কি জানতে চান বলে ফোন রেখে দেন।


    এ জাতীয় আরো সংবাদ
    • আমাদের ইউটিউব পেজ ভিজিট করতে লগইন করুনঃ Grameen news24 Tv
    এক ক্লিকে বিভাগের খবর