সংবাদ শিরোনাম :
সংবাদ শিরোনাম :
শাকিব-বুবলীর সন্তানের খবরে ভক্তের মিষ্টি বিতরণ – গ্রামীন নিউজ২৪ রাজধানীর মীরবাগ থেকে গৃহবধুর লাশ উদ্ধার – গ্রামীন নিউজ২৪ মাঠে গড়ালো নারী এশিয়া কাপ, টস হেরে বোলিংয়ে বাংলাদেশ- গ্রামীন নিউজ২৪ নড়াইলে এসএসসি পরীক্ষার্থীর উপর সন্ত্রাসী হামলা – গ্রামীন নিউজ২৪ সাতক্ষীরা জেলা পরিষদে মন্ত্রানালয়ের চিঠি জালিয়াতি করে বাবার নামে এতিমখানা – গ্রামীন নিউজ২৪ কয়রায় ছোট ভাইয়ের দায়ের কোপে বিছিন্ন বড় ভাইয়ের হাত – গ্রামীন নিউজ২৪ আইজিপি হিসেবে চৌধুরী আবদুল্লাহ আল-মামুন আনুষ্ঠানিকভাবে দায়িত্ব গ্রহণ – গ্রামীন নিউজ২৪ ঠাকুরগাঁওয়ে মাদক মামলায় ৩ জনের যাবজ্জীবন – গ্রামীন নিউজ২৪ ৯ ঘন্টা পর রিয়াদগামী ফ্লাইটের যাত্রা – গ্রামীন নিউজ২৪ বিএনপির এখন প্রধান কাজ দেশের বিরুদ্ধে বিদেশে অপপ্রচার চালানো প্রধানমন্ত্রী – গ্রামীন নিউজ২৪
বিজ্ঞপ্তি :
গ্রামীন নিউজ২৪টিভি পরিবারের জন্য দেশব্যাপী প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। যোগ্যতা এইচ এসসি পাশ, অভিজ্ঞতাঃ ১ বৎসর, আগ্রহীরা যোগাযোগ করুন 01729188818, সিভি ইমেইল করুনঃ grameennews24tv@gmail.com

একজন মোস্তফা কামাল মিলন

বিশেষ প্রতিনিধি / ১২২১ বার পঠিত
প্রকাশের সময় : শনিবার, ১৪ মে, ২০২২, ১:৪১ পূর্বাহ্ণ
  • Print
  • একজন মোস্তফা কামাল মিলন

    দীর্ঘ ১৬ বছর পর আজ দিনাজপুর জেলা বিএনপির কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে।

    দিনাজপুর জেলা বিএনপির কাউন্সিলে সিনিয়র যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক পদে একটি প্যানেল থেকে প্রার্থী হয়েছেন আলহাজ্ব মোস্তফা কামাল মিলন। দিনাজপুর জাতীয়তাবাদী রাজনীতির কয়েকটি শক্তিশালী স্তম্ভ্যের মধ্যে অন্যতম একটি স্তম্ভ্য, আলহাজ্ব মোস্তফা কামাল মিলন। তিনি দিনাজপুর জেলা ছাত্রদলের সোনালি ফসল এবং ছাত্রদলের গর্ব-অহংকার। দিনাজপুরে জেলা ছাত্রদলের প্রোডাকশন হিসেবে জাতীয়তাবাদী রাজনীতিতে সাবেক ছাত্র নেতা হিসেবে মোস্তফা কামাল মিলন শুধুমাত্র একটি নাম নয়, একটি ব্রান্ড।

    ছাত্র রাজনীতিতে থাকাকালীন মোস্তফা কামাল মিলন (শিক্ষা জীবনে) স্নাতক ডিগ্রি অর্জনকারী এবং দিনাজপুর গভঃপলিটেকনিক কলেজ থেকে ডিপ্লোমা ইন্জিনিয়ারিং (মেকানিক্যাল) সম্পন্ন করেছেন।

    ছাত্র রাজনীতিতে মোস্তফা কামাল মিলন দিনাজপুর গভঃপলিটেকনিক কলেজ ছাত্র সংসদ নির্বাচনে ছাত্রদলের প্যানেল থেকে ক্রিড়া সম্পাদক এবং পরবর্তীতে জি এস নির্বাচিত হয়েছিলেন। ১৯৯০ সাল থেকে শুরু করে ২০২২ সাল, তথা- একটানা এই দীর্ঘ সময়ে দিনাজপুরে আন্দোলন সংগ্রাম থেকে শুরু করে সাংগঠনিক কর্মকাণ্ডে তার অগ্রনী ভূমিকা ও উল্লেখযোগ্য অবদান ভুলার মতো নয়। ২০১৬ সালে তিনি জেলা বিএনপির যুগ্ম-আহবায়ক হিসেবেও মনোনীত হোন।

    মোস্তফা কামাল মিলনের ছাত্র রাজনীতিতে পদার্পণ সেই ১৯৯০ সালে স্কুল জীবন থেকে। পরবর্তীতে ২০০৬ সালে (আজিজুল বারী হেলাল-সফিউল বারী বাবু-আব্দুল কাদির ভুঁইয়া জুয়েল কেন্দ্রীয় কমিটি) কর্তৃক দিনাজপুর জেলা ছাত্রদলের অনুমোদিত ৪১সদস্য বিশিষ্ট আহবায়ক কমিটিতে মোস্তফা কামাল মিলন আহবায়ক এবং মাহবুবুল হক হেলাল সদস্য সচিব মনোনীত হয়। যেটা ২০০৬ থেকে ২০১০ সালের এপ্রিল পর্যন্ত ছিল। এই সময়টুকুতে জেলা থেকে শুরু করে ১৩ উপজেলার অধিকাংশ নেতা কর্মীরা অকপটে স্বীকার করেন যে, একজন ছাত্র নেতা হিসেবে মোস্তফা কামাল মিলনের সততা, বিচক্ষণতা, তার সংগঠনের প্রতি আন্তরিকতা ও কমিটমেন্ট যা অকল্পনীয়-অসাধারণ। সংগঠন কে ঘিরে তার চিন্তা ভাবনাগুলো সব সময়ই ছিলো যুগপোযোগী এবং পজেটিভ। শুধু তাই নয়, রাজনৈতিক অঙ্গনে তিনি মারাত্বক রকমের পরিশ্রমী, সাহসী এবং স্পষ্ঠবাদীও বটে। নিজ দলের ভিতরে বাইরে তিনি সব সময় অন্যায় অনিয়ম এসবের বিরুদ্ধে অসম্ভব রকমের প্রতিবাদী। নেতৃত্বের প্রতিযোগিতায় কেউই তার মাঝে কোন প্রতিহিংসা পরায়ন মনোভাব বা আচরন খুজে পায়নি। বরং তিনি বেশ কমিউনিকেটিভ এবং আন্তরিক, সেটা আন্দোলন সংগ্রাম কে ঘিরেই হোক কিংবা যে কোন সাংগঠনিক কর্মকাণ্ড বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে।

    পেশাগত জীবনে তিনি একজন সু-প্রতিষ্ঠিত সরকারি ঠিকাদার- একজন সফল ব্যবসায়ী। রাজনীতির পাশাপাশি তিনি দিনাজপুর চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি এর পরিচালনা পরিষদে “সদস্য পদে” কম বয়সে অংশ নিয়ে প্রথমবারেই নির্বাচিত হয়েছিলেন। ব্যক্তি জীবনে তিনি একজন পরহেজগার এবং হজ্জ্ব সম্পন্নও করেছেন। তিনি দিনাজপুর জেলা শহরে (বালুবাড়ীস্থ) একটি প্রভাবশালী পরিবারেরই একজন।
    বিগত পনের বছরে জেলা শহরে রাজপথে দলীয় আন্দোলন সংগ্রামের অংশ স্বরুপ পালিত হরতাল-মিছিল-মিটিং- অবরোধ-সভা সমাবেশে মিলনের সরব উপস্থিতি ও অগ্রণী ভূমিকা লক্ষণীয়। বর্তমানে তিনি প্রায় ১ডজন মামলায় আসামী এবং একাধিকবার কারাবরণও করেছেন। যে কোন প্রতিবাদ প্রতিরোধ গড়ে তোলার ক্ষেত্রে মোস্তফা কামাল মিলনের কোন বিকল্প নেই। দলের মধ্যে ক্ষতিগ্রস্ত ও অসহায় নেতাকর্মীদের প্রতি তিনি সব সময় সহানুভূতির হাত বাড়িয়ে দিয়েছে। তিনি অসংখ্য নেতাকর্মীদের আইনী সহায়তা প্রদান করেছে। বর্তমানে তার রাজনৈতিক জীবদ্বশায় ৩২ বছরের রাজনীতিতে অসংখ্যবার গ্রেফতার হয়েছেন, পুলিশ রিমান্ডে থেকেছেন এবং পুলিশ কর্তৃক নির্মম নির্যাতনের শিকারও হয়েছেন।

    একজন মোস্তফা কামাল মিলন বারবার জন্মায় না। একজন মোস্তফা কামাল মিলন হেরে যাওয়া মানে পুরো দল হেরে যাওয়া।

     

    লেখক-সাংবাদিক,
    এস এম আরিফুল ইসলাম জিমন
    সদস্য সচিব, ঘোড়াঘাট প্রেস ক্লাব
    ওসমানপুর, ঘোড়াঘাট, দিনাজপুর।

    • আমাদের ইউটিউব পেজ ভিজিট করতে লগইন করুনঃ Grameen news24 Tv

    এ জাতীয় আরো সংবাদ
    এক ক্লিকে বিভাগের খবর