সংবাদ শিরোনাম :
সংবাদ শিরোনাম :
রোহিঙ্গা ক্যাম্প থেকে অস্ত্রসহ আরসা কমান্ডার গ্রেপ্তার – গ্রামীন নিউজ২৪ বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে বিদায়ী সেনাপ্রধানের শ্রদ্ধা – গ্রামীন নিউজ২৪ সাগরে মিয়ানমারের ৩ যুদ্ধজাহাজ, সেন্টমার্টিনে আতঙ্ক – গ্রামীন নিউজ২৪ শিমুল-তানভীর-শিলাস্তির পর দায় স্বীকার বাবুর – গ্রামীন নিউজ২৪ চৌদ্দগ্রামে সড়ক দুর্ঘটনায় কাভার্ডভ্যান চালক নিহত – গ্রামীন নিউজ২৪ ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে যানজট – গ্রামীন নিউজ২৪ ময়মনসিংহে পানিতে ডুবে তিন ভাই-বোনের মৃত্যু – গ্রামীন নিউজ২৪ পাবনায় কলেজছাত্র হত্যায় ৩ জনের যাবজ্জীবন – গ্রামীন নিউজ২৪ প্রধানমন্ত্রীর দেয়া ঈদ উপহার ভিজিএফের চাল বিতরণে অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে – গ্রামীন নিউজ২৪ র‍্যাব সেজে ডাকাতি করে তারা, হাতে থাকে হাতকড়া – গ্রামীন নিউজ২৪
বিজ্ঞপ্তি :
গ্রামীন নিউজ২৪টিভি পরিবারের জন্য দেশব্যাপী প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। যোগ্যতা এইচ এসসি পাশ, অভিজ্ঞতাঃ ১ বৎসর, আগ্রহীরা যোগাযোগ করুন 01729188818, সিভি ইমেইল করুনঃ grameennews24tv@gmail.com। স্বল্প খরচে সাপ্তাহিক, মাসিক, বাৎসরিক চুক্তিতে আপনার প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন ০১৭২৯১৮৮৮১৮

সরকার, রাজনীতিবিদ, সমাজকর্মী সাধারণ জনগণ ঐক্যবদ্ধ হলে হৃদরোগ কে গলা টিপে হত্যা করা সম্ভব

ডাঃ কামরুল ইসলাম মনা / ১৯১৬ বার পঠিত
প্রকাশের সময় : মঙ্গলবার, ২৪ আগস্ট, ২০২১, ১০:৪৪ পূর্বাহ্ণ
  • Print
  • ভেড়ামারা অনলাইন প্রেসক্লাবের সভাপতি দেশ-বিদেশ খ্যাত স্বনামধন্য হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসক ডাঃ কামরুল ইসলাম মনা বলেন, দিন দিন হৃদ রোগীর সংখ্যা বেড়েই চলেছে তাই দেশের সরকার, রাজনীতিবিদ, সমাজকর্মী সাধারণ জনগণ ঐক্যবদ্ধ হলে হৃদরোগ কে গলা টিপে হত্যা করা সম্ভব। তিনি আরো বলেন, সচেতনতা, খাদ্যভাস পরিবর্তন, প্রাণায়াম যোগ, লাইফ স্টাইল পরিবর্তন করে আমরা হৃদ রোগের সংখ্যা কমাতে পারি। তাই আসুন সকলে ঐক্যবদ্ধ হয়ে নিজেদের পরিবর্তনে কাজ করি এবং হৃদ রোগ কে না বলি।

    প্রথমেই বাংলাদেশে হৃদরোগের পরিসংখ্যান এবং
    হৃদরোগের ঝুঁকি কমানোর পদ্ধতি সমূহ নিয়ে আলোচনা করা যাক:

    বাংলাদেশে হৃদরোগের পরিসংখ্যান:
    হৃদরোগের ঝুঁকিতে আছে সমগ্র জনসংখ্যার প্রায় 80 পার্সেন্ট, প্রতিদিন ডাক্তারদের চেম্বার এ যে পরিমাণ রোগী হয় তার তিনজনের একজন হৃদরোগী, শিশুদের মাঝেও এ রোগটি হুহু করে বেড়ে চলছে, 2020 সালের 9 মাসের ডেথ সার্টিফিকেট পর্যালোচনায় দেখা যায় হৃদরোগে মারা গিয়েছে এক লক্ষ আশি হাজার, করোনায় মারা গিয়েছে মাত্র পাঁচ হাজার, করো না নিয়ে যতটা সচেতন, মিডিয়ার বাগাড়ম্বর, হৃদরোগ নিয়ে ততটা নয়, হৃদরোগের ঝুঁকি প্রতিরোধ করা একেবারে মামুলি ব্যাপার, শুধু পদক্ষেপ এর অভাব, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বলেছে 2025 সাল নাগাদ হৃদরোগ ভয়াবহ রূপ নিবে, 2030 সালে ক্যান্সার হবে মেজর কিডারে ডিজে জ,ব্রিটিশ মেডিকেল জার্নাল জানায় 33% ক্যান্সারের কারণ হলো খাদ্য অভ্যাস। হৃদরোগ এর কারণ ও খাদ্যাভ্যাস এবং সামাজিক পারিবারিক এবং রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক সমস্যা ও এর অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। জার্নাল অব ইউরোপিয়ান ক্লিনিক্যাল নিউট্রিশন পত্রিকার রিপোর্ট হলো পৃথিবীর দশটি নিকৃষ্ট খাদ্য যা জন্তু-জানোয়ারের খায় না মানুষ খায় যেমন বার্গার আইসক্রিম কোমল পানীয় সিন্থেটিক হদ সিনথেটিক মেডিসিন ধূমপান অ্যালকোহল সিন্থেটিক কালার ইত্যাদি। সামাজিক পারিবারিক রাজনৈতিক কারণ গুলি হল সমাজ দ্বারা মানুষ এ হৃদয় ক্ষত বিক্ষত হলে রক্তের স্রোতে ক্যাটেকোলামাইন হরমোনের মাত্রা বেড়ে যায় তখন মানুষের হৃদরোগ , ব্রেন স্ট্রোক ইত্যাদি রোগ জ্যামিতিক হারে বৃদ্ধি পায়। সরকার, রাজনীতিবিদ, সমাজকর্মী সাধারণ জনগণ ঐক্যবদ্ধ হলে হৃদরোগ কে গলা টিপে হত্যা করা সম্ভব। এ ব্যাপারে কিছু পুষ্টি খাদ্যের প্রতি নজর দেওয়া দরকার যেমন মাশরুম, সয়াবিন, সজনে ডাঁটা ইত্যাদি। কিন্তু দুর্ভাগ্যজনক হলেও সত্য এই পুষ্টি খাদ্য বাজারজাতকরণের জন্য সমাজে বাধা অনেক রকম যেমন বিএসটিআই, পুলিশ প্রশাসন, ড্রাগ অ্যাডমিনিস্ট্রেশন ইত্যাদি। এগুলো হলো হাজার বছরের দেশীয় সংস্কৃতির অংশ এগুলোকে বিএসটিআই’র মারপ্যাঁচে বন্দি করলে সমাজে উদ্যোক্তা তৈরি হবে না। আইনি জটিলতার ভয় কেউ ব্যবসা করবে না, তাই প্রয়োজন সরকারি এমন কোনো নীতিমালা যা সাধারন বেকার যুবকরা এ ব্যবসা আসতে পারে। তাই সরকারের উচিৎ বেকারত্ব দূরীকরণে বেকার উদ্যোক্তাদের জন্য আইনি জটিলতার বিষয় টি গুরুত্ব সহকারে দেখার পরামর্শ রইল।

    হৃদরোগের ঝুঁকি কমানোর পদ্ধতি সমূহ:
    ১) সকল প্রকার ফাস্টফুড বর্জন।
    ২) দৈনিক 200 গ্রাম মৌসুমী ফল, 200 গ্রাম সবজি, 100 গ্রাম পাতা বহুল শাক, এক বাটি ডাল নিয়মিত খেতে হবে।
    ৩) সাধ্যমত 40 মিনিট হাঁটতে হবে, কারণ হাঁটলে কোলেস্টেরল, ট্রাই গ্লিসারাইড, এলডিএল কমে এবং এইচডিএল বাড়ে।
    ৪) ধীরে ধীরে রান্নার তেল কমিয়ে 0 নিয়ে আসতে হবে।
    ৫ মেডিটেশনের মাধ্যমে পুরাতন মানসিক যন্ত্রণা ঝেড়ে ফেলতে হবে।
    ৬) সিগারেট, জর্দা, মদ্যপান থেকে বিরত থাকতে হবে।
    ৭) নিয়মিত প্রাণায়াম যোগ করতে হবে। প্রাণায়াম যোগই হতে পারে হৃদ রোগকে না বলার বড় ঔষধ।
    ৮) কাউন্সিলিং করা
    ৯) হৃদপিণ্ড বান্ধব খাবার বাদাম, আখরোট, মাশরুম, সয়াবিন ইত্যাদি খাওয়া উচিত। মাশরুম খেলে হৃদরোগের ঝুঁকি বহুলাংশে কমে যায়।

    সচেতনতা, খাদ্যভাস পরিবর্তন , প্রাণায়াম যোগ, লাইফ স্টাইল পরিবর্তন করে আমরা হৃদ রোগের সংখ্যা কমাতে সকলে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করতে হবে, তাহলেই সম্ভব হৃদ রোগ কে না বলা।

    হৃদ রোগ সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে এবং চিকিৎসা সেবা নিতে ০১৭১২২৭৬৭৫৩

    শামীমা ইয়াসমিন


    এ জাতীয় আরো সংবাদ
    • আমাদের ইউটিউব পেজ ভিজিট করতে লগইন করুনঃ Grameen news24 Tv
    এক ক্লিকে বিভাগের খবর