সংবাদ শিরোনাম :
সংবাদ শিরোনাম :
ঘোড়াঘাট প্রেসক্লাবের ৩৬ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত – গ্রামীন নিউজ২৪ বিয়ে খেতে এসে পদ্মায় নিখোঁজ, ২ শিশুর মরদেহ উদ্ধার – গ্রামীন নিউজ২৪ চট্টগ্রামে বস্তিতে লাগা আগুন নিয়ন্ত্রণে – গ্রামীন নিউজ২৪ বিদ্যুৎ কেন্দ্রে আগুন সিলেটে বিদ্যুৎহীন ১৭ হাজার গ্রাহক – গ্রামীন নিউজ২৪ গোবিন্দগঞ্জ থেকে অটোচালকের মরদেহ উদ্ধার – গ্রামীন নিউজ২৪ এমভি আবদুল্লাহকে জি‌ম্মি করা ৮ সোমালিয়ান জলদস্যু গ্রেপ্তার – গ্রামীন নিউজ২৪ প্রধানমন্ত্রী সকল সংস্কৃতির সম্প্রদায়কে এক ছাতার নিচে ধরে রেখেছেন-পার্বত্য প্রতিমন্ত্রী – গ্রামীন নিউজ২৪ রমনার বটমূলে চলছে বর্ষবরণ অনুষ্ঠান – গ্রামীন নিউজ২৪ আজ পহেলা বৈশাখ – গ্রামীন নিউজ২৪ ৩১ দিন পর অক্ষত অবস্থায় মুক্ত জাহাজসহ জিম্মি ২৩ নাবিক – গ্রামীন নিউজ২৪
বিজ্ঞপ্তি :
গ্রামীন নিউজ২৪টিভি পরিবারের জন্য দেশব্যাপী প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। যোগ্যতা এইচ এসসি পাশ, অভিজ্ঞতাঃ ১ বৎসর, আগ্রহীরা যোগাযোগ করুন 01729188818, সিভি ইমেইল করুনঃ grameennews24tv@gmail.com। স্বল্প খরচে সাপ্তাহিক, মাসিক, বাৎসরিক চুক্তিতে আপনার প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন ০১৭২৯১৮৮৮১৮

ফুলের চারা বিক্রি করে মাসে লাখ টাকা আয় করেন স্কুল পড়ুয়া ইমরান – গ্রামীন নিউজ২৪

প্রীতম প্রণয়, শরীয়তপুর প্রতিনিধিঃ / ৬৮৩ বার পঠিত
প্রকাশের সময় : রবিবার, ১৩ আগস্ট, ২০২৩, ৩:৩০ অপরাহ্ণ
  • Print
  • ইমরান আহাম্মেদ বয়স(১৭)। শরীয়তপুর সদর পৌরসভার ১ নং ওয়ার্ডের শাবনুর মার্কেট এলাকায় তারা বাসা। আবুল বাসার কাজী ও শিউলি আক্তার দম্পতির এক মাএ ছেলে ইমরান আহাম্মেদ। ইমরান আহাম্মেদ মজিদ জরিনা ফাউন্ডেশন স্কুল অ্যান্ড কলেজ থেকে এবার এসএসসি পাশ করেন । তার পরিবারে সদস্য সংখ্যা ৪ জন।ভাই বোন দের মধ্যে সে সবার ছোট। তার বড় বোন এবার বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হবে।

    ইমরান আহাম্মেদ যখন চতুর্থ শ্রেনিত পড়তেন তখন থেকেই তার ফুল গাছ রোপন করার ইচ্ছা যাগে।তখন সে বিভিন্ন যায়গা থেকে ফুল গাছ সংগ্রহ করে বাড়ির আঙ্গিনায় লাগাতেন। তখন থেকে তার সপ্ন যাগে সে একদিন বড় ফুলের বাগান তৈরি করবেন।

    ইমরান আহাম্মেদ যখন পঞ্চম শ্রেনিতে পড়তেন তখন সে বৃক্ষ মেলা থেকে ২৫০ টাকা দিয়ে একটি গোলাপ ফুলের চারা কিনেন।এরপর সে যখন ষষ্ঠ শ্রেনিতে পড়তেন তখন এক বৃক্ষমেলা থেকে নয়নতারা, হাসনাহেনা, ও চায়না টগরের চারা কিনে আনেন।এরপর সেই বীজ থেকে চারা হয়।এবং সেই চারা গাছে ফুল ফোঁটে। তা দেখে সে আনন্দিত ও অনেক খুশি হয়।এর পর থেকে সে ফুল বাগান তৈরি করার জন্য অনেক আগ্রহ হয়ে পড়েন।

    ইমরান আহাম্মেদ যখন অষ্টম শ্রেনিতে পড়তেন তখন করোনা মাহামারি ছিলো।অনলাইন ক্লাস করার জন্য বাসা থেকে একটি স্মার্টফোন কিনে দেওয়া হয়। তার মামা এনায়েত হোসেন ফেসবুকের একটি ছাদবাগানের গ্রুপের সাথে পরিচয় করিয়ে দেন তাকে।

    এরপর ইমরান আহাম্মেদ সারা বাংলাদেশের মানুষের চারা রোপনের ছবি দেখেন। তখন থেকে ফুল বাগান তৈরি করার আগ্রহ আরো বেরে যায় তার।

    এরপর নতুন নতুন কিছু চারা গাছের সংগ্রহের জন্য সে কিছু ফেসবুক গ্রুপের সাথে যুক্ত হয়। ইমরান আহাম্মেদ তার বাসার ছাদে এই ফুলের বাগান তেরি করেন।

    এরপর সে দেখে ফুল গাছের চারা সংগ্রহ করার জন্য যে সকল ফেসবুক গ্রুপের সাথে যুক্ত হয়েছেন,ওই সব গ্রুপে যে সকল চারা বিক্রি হচ্ছে,ওই সব চারা তার কাছে প্রচুর পরিমানের আছে। তখন থেকে সে পরিকল্পনা করেন আমিও আমার চারা গাছ গুলো অনলাইনে বিক্রি করবো।

     


    ২০২১ সালের ৮ই জুন তার ব্যাক্তিগত ফেসবুক আইডি তে চারা গাছ গুলো বিক্রি করার জন্য একটি পোস্ট করেন ফেসবুকে। তখন তেমন কোন সারা পান নেই। এরপর আস্তে আস্তে ভালে ফলাফল পেতে থাকেন তিনি। তখন তার কাছে নয় প্রকারের কালারের জবা ফুলের গাছ ছিলো। এর পর ধীরে ধীরে বিভিন্ন যায়গা থেকে তার ফুলের চারার গাছ গুলো সবাই তার কাছ থেকে নিতে থাকেন। এরপর দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে আরো কিছু ভিন্ন ধরনের জবা ফুলের চারা সংগ্রহ করেন তিনি।

    এরপর ২০২২ সালের ১০ই জানুয়ারি তার কাছের রোপন করা,জবা ফুলের বিভিন্ন প্রকারের চারা গুলো অনলাইলে বিক্রি করার জন্য ফেসবুকে আবারো একটি প্রোস্ট করেন। জবা ফুলে চারা গুলো প্রতিটা পিচের দর ছিলো ৩৪০ টাকা। এরপর বিভিন্ন জেলা থেকে মানুষ তার চারা গুলো কিনেন।

    এরপর ইমরান আহাম্মেদ আরো ভিন্ন ধরনের কিছু ট্রপিক্যাল কালারের জবা ফুলের চারা খুচ্ছিলেন এ চারা বাংলাদেশের কোথাও খুঁজে পাচ্ছিলেন না। তখন সে কিছুটা হতাশার মধ্যে পড়ে যান। সে অনলাইনের মধ্যমে জানতে পারেন এ প্রজাতির চারা গুলো ইন্ডিয়াতে পাওয়া যাবে। তখন সে অনলাইনের মাধ্যমে ওই প্রজাতির কিছু চারা অর্ডার করেন। এর দীর্ঘ ৫ মাস পর ট্রপিক্যাল কালারের জবা ফুলের চারা গুলো আনতে সক্ষম হন তিনি। ইমরান আহাম্মেদ জানিয়েছেন তার বিভিন্ন প্রজাতির জবা ফুলের চারা গুলো ইন্ডিয়া থেকে সংগ্রহ করা।

    ইমরান আহামেদ বলেন আমি নিজেও কোনদিন ভাবি নেই,ইন্ডিয়া থেকে ভিন্ন প্রজাতির জবা ফুলের চারা এনে বাংলাদেশে বিক্রি করবো। তিনি আরো বলেন অনলাইনে চারা গাছ গুলো ভালোভাবে বিক্রি করার জন্য আল ইমরান নার্সারি নামে একটি ফেসবুক পেজ খোলেন। সে আরো বলেন আমার নার্সারির প্রতিষ্ঠান অনলাইন ভিওিক, এবং আমার নার্সারি একটি বিশ্বাস যোগ্য অনলাইন প্রতিষ্ঠান। সারা বাংলাদেশের মানুষ আল ইমরান নার্সারি ফেসবুক পেজে মেসেজ করে বিভিন্ন ধরনের জবা ফুলের চারা গুলো অর্ডার করেন। সে আরো বলেন বর্তমানে ৬৪ টি জেলায় আমার জবা ফুলের চারা রয়েছে। এতো ভালো সুনাম পাওয়ার কারনে অনলাইনে যে কালারের জবা ফুলের চারা ক্রেতা চাইবে সেই কালারের জবা ফুলের চারা আমি ক্রেতাকে দিতে পারবো। আমার কাছে এখন ৩০০ প্রজাতি কালারের জবা ফুলে গাছ রয়েছে। আমি ১ মাস ধরে বৈদশিক ভালো এক প্রজাতির এডেনিয়াম নামের এক ফুলের চারা বিক্রি করা শুরু করেছি।আশা করি খুব শ্রিঘই ভালো ফলাফল পাওয়া যাবে। ইমরান আহাম্মেদের লক্ষ্য বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় জবা ফুলের প্রজেক্ট করবে। এছাড়া জবা ফুল ব্যতীত এডেনিয়াম ও বাগান বিলাসের আরও দুইটি প্রজেক্ট খুব শিগগিরই গড়ে তুলবে সে।

    জবা ফুলের মধ্যে যেগুলো অস্ট্রেলিয়ান ও আমেরিকান জবা এগুলোর মূল্য ১৭০ টাকা থেকে ২৯০ টাকা। বিভিন্ন ধরনের কালার অনুযায়ী। ট্রপিক্যাল কালারের জবার মূল্য ৭৯০ টাকা থেকে ১০০০ টাকা। বিভিন্ন ধরনের কালার অনুযায়ী। এডেনিয়াম ফুলের চারার মূল্য ৩৬০ থেকে ৪৯০ টাকা। বাগানবিলাস ফুলের চারার মূল্য ১৫০ টাকা থেকে ২০০০ টাকা প্রর্যন্ত। ইমরান আহাম্মেদ আরো বলেন আমার কাছে বর্তমানে কালো জবার ফুলের চারা রয়েছে, এটা বাংলাদেশের ভেতরে আর কারো কাছে নেই। তিনি আরে বলেন দশম শ্রেনিতে পড়ার অবস্থায় জবা ফুলের চারা বিক্রি প্রতি মাসে পঞ্চাশ থেকে আশি হাজার টাকা বিক্রি করতাম। তিনি আরো বলেন,এখন আমার প্রতি মাসে সব ধরনের জবা ফুলের চারা অনলাইলে বিক্রি করে পঞ্চাশ হাজার টাকা থেকে এক লক্ষ টাকা প্রর্যন্ত ইনকাম করি।

    শরীয়তপুর পৌরসভার ১নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর জাহাঙ্গীর ব্যাপারী বলেন, সদ্য মাধ্যমিক পাস করা একটি ছেলে ফুলের চারা বিক্রি করে লাখ টাকা আয় করে, এটা সত্যিই আশ্চর্যের বিষয়। কেউ যদি ভালো কাজে সময় ব্যয় করে তাহলে সাফল্য আসবেই। দেশের শিক্ষার্থী ও বেকার যুবকদের জন্য অনুকরণীয় হতে পারে ছোট্ট ইমরান। আমি ইমরানের সাফল্য কামনা করছি।


    এ জাতীয় আরো সংবাদ
    • আমাদের ইউটিউব পেজ ভিজিট করতে লগইন করুনঃ Grameen news24 Tv
    এক ক্লিকে বিভাগের খবর