সংবাদ শিরোনাম :
সংবাদ শিরোনাম :
মামুনুল হক ডিবি কার্যালয়ে গিয়েছিলেন জব্দ করা মোবাইল আনতে – গ্রামীন নিউজ২৪ সাঘাটায় অবৈধ ইটভাটা বন্ধে অভিযান: ৩ ইটভাটায় জরিমানা – গ্রামীন নিউজ২৪ আবারও বেড়েছে সোনার দাম – গ্রামীন নিউজ২৪ পুকুর থেকে প্রকৌশলীর লাশ উদ্ধার – গ্রামীন নিউজ২৪ রাহুল বিয়ে করুক, সুখী হোক: প্রিয়াঙ্কা গান্ধী – গ্রামীন নিউজ২৪ নাগরিকদের প্রতি যে কোনো বৈষম্য আইনের শাসনের পরিপন্থী: রাষ্ট্রপতি – গ্রামীন নিউজ২৪ গাইবান্ধার পলাশবাড়ীতে ছুরিকাঘাতে নিহত ১ – গ্রামীন নিউজ২৪ ১ ঘন্টার চেষ্টায় কাওরানবাজারের আগুন নিয়ন্ত্রণে – গ্রামীন নিউজ২৪ সাতক্ষীরার তালায় সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ২ – গ্রামীন নিউজ২৪ শিক্ষককে পিটিয়ে হত্যা, চাচিসহ গ্রেপ্তার ৩ – গ্রামীন নিউজ২৪
বিজ্ঞপ্তি :
গ্রামীন নিউজ২৪টিভি পরিবারের জন্য দেশব্যাপী প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। যোগ্যতা এইচ এসসি পাশ, অভিজ্ঞতাঃ ১ বৎসর, আগ্রহীরা যোগাযোগ করুন 01729188818, সিভি ইমেইল করুনঃ grameennews24tv@gmail.com। স্বল্প খরচে সাপ্তাহিক, মাসিক, বাৎসরিক চুক্তিতে আপনার প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন ০১৭২৯১৮৮৮১৮

বীর মুক্তিযোদ্ধা মরহুম আয়েন উদ্দীনের পরিবারকে গেজেট ভুক্ত হতে দিচ্ছে না – গ্রামীন নিউজ২৪

ইব্রাহীম খলীল, পাবনা জেলা প্রতিনিধিঃ / ৩০২০ বার পঠিত
প্রকাশের সময় : মঙ্গলবার, ৩১ আগস্ট, ২০২১, ২:২০ পূর্বাহ্ণ
  • Print
  • সশস্ত্র সংগ্রামের মাধ্যমে ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের জন্ম হয়। পৃথিবীর মানচিত্রে প্রতিষ্ঠিত হয় স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশ। সশস্ত্র সংগ্রামের মাধ্যমে, বিপুল রক্তের বিনিময়ে স্বাধীনতা অর্জন পৃথিবীর ইতিহাসে এক বিরল ঘটনা। রক্তে মূল্যে স্বাধীনতায় পাবনা জেলার অবদান উল্লেখযোগ্য। তারই ধারাবাহিকতায় পাবনা জেলার আটঘরিয়া থানার বংশী পাড়া নামক স্থানে পাক-হানাদার বাহিনীর সাথে সম্মুখ যুদ্ধ হয়।

    এই যুদ্ধ আটঘরিয়া থানার মধ্যে সর্ববৃহৎ যুদ্ধ হিসেবে উল্লেখযোগ্য। আর এই যুদ্ধে নেতৃত্ব দেন(বিএলএফ) কমান্ডার আনোয়ার হোসেন হোসেন রেণু, (এফএফ) কমান্ডার ওয়াসেফ আলী, আশরাফ আলী, জহুরুল হক প্রমুখ। তাদের সঙ্গেও মরহুম আয়েন উদ্দীন অংশ গ্রহণ করেছিলেন। মরহুম বীর মুক্তিযোদ্ধা আয়েন উদ্দীন মারা যাওয়ার পূূর্বে তার বড় মেয়ে আয়মালার কাছে এই সাটিফিকেট ও প্রত্যায়ন পত্র গুলো রেখেযান।

    ১৯৯৮ সালের ১৯ অক্টোবর শেখ হাসিনা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার এবং প্রধান পৃষ্ঠপোষক ও প্রধান উপদেষ্টা বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ও আব্দুল আহাদ চৌধুরী চেয়ারম্যান কেন্দ্রীয় কমান্ড কাউন্সিল বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা কতৃক সাক্ষরীত সনদপত্র। মুক্তি সনদ নংঃ০২৪৭২।

    ৩০-০৩-১৯৭২ সালে বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনীর অধিনায়ক মহাম্মাদ আতাউল গণি ওসমানী ও আঞ্চলিক অধিনায়ক ৭নং সেক্টর কাজী নুরুজ্জামান সাক্ষরীত দেশরক্ষা বিভাগ, স্বাধীনতা সংগ্রামের সনদপত্র গ্রহণ। আনসার ট্রেনিং সাটিফিকেট। সেক্টর কমান্ডার কতৃক ২২-০২-১৯৭২ TO WHOM IT MAY CONCERN সনদপত্র। সিরিয়াল নং -১৯৫।

    আটঘরিয়া যুদ্ধকালীন মুজিব বাহিনীর কমান্ডার মোঃ আনোয়ার হোসেন (রেণু) কতৃক সাক্ষরিত মুক্তিযোদ্ধা প্রত্যায়ণ পত্র।
    সাবেক প্রয়াত গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় ভূমিমন্ত্রী শামসুর রহমান শরিফ (ডিলু) কতৃক সাক্ষরিত পত্যায়ণ পত্র।
    আটঘরিয়া উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কমান্ডার জহুরুল হক কতৃক প্রত্যায়ণ পত্র।
    সহমুক্তিযোদ্ধা মোঃ আলী আশরাফ সাক্ষরিত কতৃক প্রত্যায়ণ পত্র। সহমুক্তিযোদ্ধা সাইফুল্লাহ খান মজনু কতৃক সাক্ষরিত প্রত্যায়ণ পত্র।
    সহমুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব সুলতান আহমেদ খান কতৃক সাক্ষরিত প্রত্যায়ণ পত্র।

    সহমুক্তিযোদ্ধা মরহুম- হাবিবুল্লাহ খান কতৃক সাক্ষরিত প্রত্যায়ণ পত্র। সহমুক্তিযোদ্ধা মরহুম আব্দুল মালেক খান কতৃক সাক্ষরিত
    প্রত্যায়ণ পত্র। মুক্তিযোদ্ধা যাচাই-বাছাই নির্দেশিক – ২০১৬ এর বিধান মতে জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিল বরাবর আপিল -১৭ এপ্রিল ২০১৭। মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে নাম অন্তর্ভুক্তির জন্য পাবনা জেলা প্রশাসক বরাবর আবেদন করেন তার বড় মেয়ে আয়মালা খাতুন ২৯-০৪-২০২১ ইং। আটঘরিয়া উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা তালিকায় ৩২ নম্বর ও ডিআইজি-১২৯৬৩৫ – এবং ক্রমিক নম্বর ৮ তালিকায় আয়েনউদ্দীনের নাম অন্তর্ভুক্ত আছে।

    তবে আয়েন উদ্দীনের মেয়ে মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রণালয়ে গেলে সেখানথেকে তাকে বলা হয় আপনি আপনার নিজ উপজেলা সমাজসেবা অফিসে গিয়ে www.mohwa.govt:bd এই ঠিকানায় মুক্তি বার্তা ও লাল বার্তা গেজেটে আপনার বাবার নাম উঠাবেন। মরহুম আয়েন উদ্দীনের বড় মেয়ে আয়মালা খাতুন উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা অফিস, ইউএনও অফিস, আটঘরিয়া সমাজ সেবা অফিসে ঘুরেও কোন সফলতা আনতে পারেননি।

    মরহুম আয়েন উদ্দীনের পরিবার সাংবাদিকদের কে জানান,কোন অদৃশ্য অপশক্তি তার বাবা কে মুক্তি যোদ্ধার গেজেট ভুক্ত হতে দিচ্ছে না। আমার বাবার সাথে যারা যুদ্ধ করেছেন তারা সবাই ভাতা পান। কথাগুলো বলার সময় মুক্তিযোদ্ধা আয়েন উদ্দীনের বড় মেয়ে কান্নায় ভেঙে পড়েন। অবেগ তাড়িত হয়ে তিনি বলেন,দেশ স্বাধীনতার ৫০ শে পা রাখছে আর কতদিন আমাকে ফাইল পত্র নিয়ে মানুষের দুয়ারে-দুয়ারে বেড়াতে হবে।

    মুক্তিযোদ্ধার সাটিফিকেট থাকার পরেও স্বীকৃতি মিলছেনা আটঘরিয়া উপজেলার অন্তগর্ত শ্রীকান্তপুর গ্রামের বীর মুক্তিযোদ্ধা মরহুম আয়েন উদ্দীনের। মারা যাওয়ার সময় মেলেনি নূন্যতম কোন রাষ্ট্রীয় সম্মাননা। স্থানীয় এক মুক্তিযোদ্ধা তড়িৎ ঘরিত করে দাফন কাপনের ব্যাবস্থা করতে বলেন বলে জানান, তার পরিবার।

    মুক্তিযোদ্ধার সম্মান পাচ্ছে না ৭১ রণাঙ্গনের এই বীর মুক্তিযোদ্ধার পরিবার। ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধে আটঘরিয়া উপজেলার শ্রীকান্তপুর গ্রামের মরহুম আয়েন উদ্দীন পাকিস্তানের দখলদারদের হাত থেকে দেশকে শত্রুমুক্ত করতে স্থানীয় ভাবে যুদ্ধ শেষ করে আটঘরিয়া ৭নং সেক্টর কমান্ডার আনোয়ার হোসেন রেণুর সঙ্গে যুদ্ধে বিভিন্ন এলাকায় অংশগ্রহণ করেন। তিনি ছিলেন একজন প্রত্যাক্ষ যোদ্ধা।


    এ জাতীয় আরো সংবাদ
    • আমাদের ইউটিউব পেজ ভিজিট করতে লগইন করুনঃ Grameen news24 Tv
    এক ক্লিকে বিভাগের খবর