সংবাদ শিরোনাম :
সংবাদ শিরোনাম :
সিরিয়ার পূর্বাঞ্চলে বিমান হামলায় নিহত ৭ – গ্রামীন নিউজ২৪ পাকিস্তানে মসজিদে হামলা নিহত বেড়ে ৭২ – গ্রামীন নিউজ২৪ সাজু মেম্বরের ভাই মাদকসহ গ্রেফতার পত্রিকায় লেখায় সাংবাদিকদের প্রাণনাশের হুমকি – গ্রামীন নিউজ২৪ পাতাল মেট্রোরেল নির্মাণ কাজ ২ ফেব্রুয়ারী উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী – গ্রামীন নিউজ২৪ ঘোড়াঘাটে অগ্নিসংযোগে ক্ষতিগ্রস্ত ৩৫টি পরিবার পেল ত্রাণ সামগ্রী – গ্রামীন নিউজ২৪ ডুমুরিয়া উপজেলা প্রকৌশলী দপ্তরের উদ্যেগে মানব বন্ধন অনুষ্ঠিত – গ্রামীন নিউজ২৪ ঠাকুরগাঁওয়ে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের জরিমানা – গ্রামীন নিউজ২৪ পাকিস্তানের মসজিদে শক্তিশালী বিস্ফোরণ নিহত ২৮ – গ্রামীন নিউজ২৪ ঝিকরগাছায় বিদেশি মদসহ আটক এক – গ্রামীন নিউজ২৪ চাঁপাইনবাবগঞ্জে র‍্যাব-৫ এর অভিযানে হেরোইন সহ একজন গ্রেফতার – গ্রামীন নিউজ২৪
বিজ্ঞপ্তি :
গ্রামীন নিউজ২৪টিভি পরিবারের জন্য দেশব্যাপী প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। যোগ্যতা এইচ এসসি পাশ, অভিজ্ঞতাঃ ১ বৎসর, আগ্রহীরা যোগাযোগ করুন 01729188818, সিভি ইমেইল করুনঃ grameennews24tv@gmail.com

৪ দিনেও মামলা নেয়নি রাজশাহীর মতিহার থানা – গ্রামীন নিউজ২৪

স্টাফ রিপোর্টারঃ / ১২৪৭ বার পঠিত
প্রকাশের সময় : শুক্রবার, ১০ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ৮:১৩ অপরাহ্ণ
  • Print
  • রাজশাহী নগরীতে এক পরিবারের সদস্যদের হত্যাচেষ্টা ঘটনার চারদিন পেরিয়ে গেলেও মামলা নেয়নি পুলিশ। শরীরে গুরুতর আঘাতের চিহ্ন থাকলেও পুলিশ মেডিকেল রিপোর্ট নিয়ে আসার অজুহাত দেখাচ্ছে।

    বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় রাজশাহী প্রেস ক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলন ভুক্তভোগী পরিবার মতিহার থানা পুলিশের বিরুদ্ধে এই অভিযোগ করেন।

    সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন, রাজশাহী সরকারি মহিলা কলেজের অনার্স দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী হালিমা খাতুন। তিনি নগরীর মির্জাপুর এলাকার আবু হানিফের মেয়ে।

    সংবাদ সম্মেলনে হালিমা খাতুন জানান, গত মঙ্গলবার দুপুরে পূর্ব বিরোধের জেরে এলাকার চিহ্নিত সন্ত্রাসী মতি, বাবু, জুয়েল, চাঁন, সুরুজ, শিশির ও বুলুসহ কয়েকজন তার পরিবারের সদস্যদেরকে বেধকড় মারধর করেন। ঘটনার সময় তারা মতিহার থানা পুলিশকে ফোন করে সাহায্য পাননি।

    আহতরা রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা নেন। বুধবার বাড়ি ফিরে মতিহার থানায় যান এজাহার নিয়ে। পুলিশ এজাহারটি গ্রহণ করলেও আজ শুক্রবার (১০ সেপ্টেম্বর) পর্যন্ত সেটা মামলা হিসেবে রেকর্ড করেনি।

    হামলার শিকার হালিমা খাতুন বলেন, আমার মাথায় আটটি সেলাই দিতে হয়েছে। প্রত্যেকের শরীরে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। কিন্তু পুলিশ বলছে, মেডিকেল সার্টিফিকেট ছাড়া মামলা রেকর্ড করবে না তারা।

    তিনি বলেন, আমরা গত বুধবার ও বৃহস্পতিবার থানায় গিয়েছি মামলা করতে। কিন্তু পুলিশের একই কথা, ‘আগে মেডিকেল সার্টিফিকেট নিয়ে আসেন’। তিনি প্রশ্ন রাখেন, যেখানে মাথা ফেটেছে, শরীরে আঘাতের গুরুতর জখম আছে, সেখানে মেডিকেল সার্টিফিকেট আগে আনতে হবে কেন?

    কলেজছাত্রী হালিমা বলেন, আমরা রামেক মেডিকেল সার্টিফিকেট চেয়েছি। কিন্তু নিয়মানুযায়ী তা পেতে দেরি হবে। পুলিশ মামলার রেফারেন্সে চাইলে কর্তৃপক্ষ তা সরবরাহ করবে। পুলিশ হামলাকারীদের পক্ষ নিয়ে কাজ করছে বলে তারা অভিযোগ করেন।

    ভুক্তভোগীরা বলছেন, তারা ফের সন্ত্রাসীদের হামলার ভয়ে বাড়ি ফিরতে পারছেন না।

    এই বিষয়ে হামলকারীদের বক্তব্য জানতে যোগাযোগ করা হলেও তারা কথা বলতে রাজি হননি।

    প্রকাশ্যে হামলা ও আহত করার পরও মামলা না নেওয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে আরএমপির মতিহার থানার ওসি আনোয়ার আলী বলেন, বিষয়টি তার জানা (নলেজে) নেই। তবে খোঁজ নেবেন।

    • আমাদের ইউটিউব পেজ ভিজিট করতে লগইন করুনঃ Grameen news24 Tv

    এ জাতীয় আরো সংবাদ
    এক ক্লিকে বিভাগের খবর