সংবাদ শিরোনাম :
সংবাদ শিরোনাম :
মোংলা বন্দর প্রতিষ্ঠার ৭২ বছরঃ বন্দরের সক্ষমতা বেড়েছে কয়েকগুন – গ্রামীন নিউজ২৪ রাজশাহীর ৮ জেলায় চলছে পরিবহন ধর্মঘট – গ্রামীন নিউজ২৪ জাগো২৪.নেটের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত – গ্রামীন নিউজ২৪ আয়াতের লাশের আরেকটি অংশ উদ্ধার – গ্রামীন নিউজ২৪ শুরু হলো মহান বিজয়ের মাস – গ্রামীন নিউজ২৪ রাজশাহীতে গলা কেটে নারী হত্যা, কার্যকর হলো রকিবুরের ফাঁসি – গ্রামীন নিউজ২৪ হেরে গিয়েও পোলান্ড শেষ ষোলতে – গ্রামীন নিউজ২৪ তাহিরপুরে তিন সাংবাদিকের বিরুদ্ধে চোরাকারবারিদের মিথ্যা মামলা: সোশ্যাল মিডিয়ায় নিন্দার ঝড় – গ্রামীন নিউজ২৪ সাতক্ষীরায় বিনামূল্যে এসএসসি-৯৩ ব্যাচের অক্সিজেন সিলিন্ডার বিতরন – গ্রামীন নিউজ২৪ কাউকে বিশৃঙ্খলা করার অনুমতি দিতে পারে না সরকার: তথ্যমন্ত্রী – গ্রামীন নিউজ২৪
বিজ্ঞপ্তি :
গ্রামীন নিউজ২৪টিভি পরিবারের জন্য দেশব্যাপী প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। যোগ্যতা এইচ এসসি পাশ, অভিজ্ঞতাঃ ১ বৎসর, আগ্রহীরা যোগাযোগ করুন 01729188818, সিভি ইমেইল করুনঃ grameennews24tv@gmail.com

ঠাকুরগাঁওয়ে আমন ধান ক্ষেত মাজরা পোকার আক্রমন কৃষকেরা দিশেহারা – গ্রামীন নিউজ২৪

মোঃ মজিবর রহমান শেখ, ঠাকুরগাঁও জেলা প্রতিনিধি / ৬৬৮ বার পঠিত
প্রকাশের সময় : শুক্রবার, ১৭ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ৬:১৮ অপরাহ্ণ
  • Print
  • বাংলাদেশে তিন ধরনের মাজরা পোকা ধানের ক্ষতি করে থাকে – হলুদ মাজরা, কালো মাথা মাজরা এবং গোলাপী মাজরা পোকা।

    এই পোকাগুলোর কীড়ার রং অনুযায়ী তাদের নামকরণ করা হয়েছে। এদের আকৃতি ও জীবন বৃত্তান্তে কিছুটা পার্থক্য থাকলেও ক্ষতির ধরণ এবং দমন পদ্ধতি একই রকম। হলুদ মাজরা পোকা প্রধানত বেশী আক্রমণ করে। নিম্নে হলুদ মাজরা পোকার বিবরণ দেয়া হলো- পূর্ণ বয়স্ক হলুদ মাজরা পোকা এক ধরনের মথ। স্ত্রী পোকার পাখার উপরে দুটো কালো ফোঁটা আছে। পুরুষ মথের পাখার মাঝখানের ফোঁটা দুটো স্পষ্ট নয় তবে পাখার পিছন দিকে ৭-৮ টা অস্পষ্ট ফোঁটা আছে। হলুদ মাজরা পোকার স্ত্রী মথ ধান গাছের পাতার আগার দিকে গাদা করে ডিম পাড়ে। এক সপ্তাহের মধ্যে ডিম ফুটে কীড়া বের হয়। কীড়ার রং সাদাটে হলুদ। কীড়াগুলো কান্ডের ভিতরে প্রবেশ করে ৩ থেকে ৪ সপ্তাহে পুত্তলিতে পরিণত হয়। তবে শীতকালে কীড়ার স্থিতিকাল ৮ সপ্তাহ পর্যন্ত হতে পারে। পুত্তলিগুলো এক থেকে দেড় সপ্তাহের মধ্যে বয়স্ক পোকায় পরিণত হয় এবং কান্ডের ভিতর থেকে বের হয়ে আসে। ক্ষতির ধরণ– মাজরা পোকা শুধুমাত্র কীড়া অবস্থায় ধান গাছের ক্ষতি করে থাকে। সদ্য ফোঁটা কীড়াগুলো দু’চারদিন খোল পাতার ভিতরের অংশ খাওয়ার পর ধান গাছের কান্ডের ভিতর প্রবেশ করে। কান্ডের ভিতর থেকে খাওয়ার সময় এক পর্যায়ে মাঝখানের ডিগ কেটে ফেলে। ফলে মরা ডিগের সৃষ্টি হয়। গাছের শীষ আসার আগে এরকম ক্ষতি হলে তাকে ‘মরা ডিগ’ বলে। আর গাছে থোর হওয়ার পর বা শীষ আসার সময় ডিগ কাটলে শীষ মারা যায় বলে একে ‘মরা শীষ’ বলে। ‘মরা শীষ’ এর ধান চিটা হয় এবং শীষটা সাদা হয়ে যায়। বোরো, আউশ এবং আমন এই তিন মৌসুমেই এই পোকার আক্রমণ দেখা যায়।

    জৈবিক পদ্ধতিতে দমন- মাজরা পোকার ডিমের গাদা সংগ্রহ করে নষ্ট করে ফেলা। ক্ষেতে ডাল-পালা পুঁতে দিয়ে পোকা খেকো পাখির সাহায্যে পোকার সংখ্যা কমানো যায়। সন্ধ্যার সময় আলোক ফাঁদের সাহায্যে মথ আকৃষ্ট করে মেরে ফেলা। রাসায়নিক পদ্ধতিতে দমন-রোগাক্রান্ত হলে নিম্নোক্ত কীটনাশক বীজতলা বা জমিতে প্রয়োগ করতে হবে। সমাধান- ধানের জমিতে ১০০ টির মধ্যে ১০-১৫ টি মরা কুশি অথবা ৫ টি মরা শীষ পাওয়া গেলে অনুমোদিত কীটনাশক যেমন- ৩৩ শতাংশ জমিতে ভিরতাকো ৪০ ডব্লিউজি ১০ গ্রাম/কারটাপ ৫০ এসপি ১০০ গ্রাম হারে অথবা কার্বোফুরান গ্রুপের কীটনাশক যেমন: ফুরাডান ৫ জি ১০ কেজি/হেক্টর হারে বা ব্রিফার ৫জি ১০ কেজি/হেক্টর হারে অথবা ডায়াজিনন গ্রুপের কীটনাশক। এছাড়া বেল্ট এক্সপার্ট, বাতির, কার্ট্রাপ্রিড, এসিপ্রিড প্লাস, ডাক্সার্কাব, মারশাল, ব্রাভো, সানটাপ ব্যবহার করতে পারেন।

    • আমাদের ইউটিউব পেজ ভিজিট করতে লগইন করুনঃ Grameen news24 Tv

    এ জাতীয় আরো সংবাদ
    এক ক্লিকে বিভাগের খবর