সংবাদ শিরোনাম :
সংবাদ শিরোনাম :
দক্ষিণ তুরস্ক এবং উত্তর সিরিয়ার ভূমিকম্পে মৃতের সংখ্যা ১৭০০ ছাড়িয়েছে – গ্রামীন নিউজ২৪ ঘোড়াঘাটে স্ত্রীর উপর অভিমান করে যুবকের বিষপানে মৃত্যু – গ্রামীন নিউজ২৪ নড়াইলের লোহাগড়ায় গৃহবধুকে গলা কেটে হত্যা – গ্রামীন নিউজ২৪ সাতক্ষীরায় ১৮ পিস স্বর্ণের বারসহ গ্রেপ্তার এক – গ্রামীন নিউজ২৪ ঠাকুরগাঁওয়ে বিরল প্রজাতির গন্ধগোকুল উদ্ধার – গ্রামীন নিউজ২৪ মোংলায় ইয়াবাসহ খুলনার মাদককারবারী আটক – গ্রামীন নিউজ২৪ হরিণের মাংস উদ্ধার করতে গিয়ে চোরা শিকারীদের হামলায় আহত ৪ বনরক্ষী – গ্রামীন নিউজ২৪ সংসদ সদস্য মুক্তিযোদ্ধা মোছলেম উদ্দিনের মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোক – গ্রামীন নিউজ২৪ স্বামীর সামনে স্ত্রীকে ধর্ষন ইউপি সদস্য আটক – গ্রামীন নিউজ২৪ ঠাকুরগাঁওয়ে বাবাকে কুপিয়ে হত্যা করলো ছেলে – গ্রামীন নিউজ২৪
বিজ্ঞপ্তি :
গ্রামীন নিউজ২৪টিভি পরিবারের জন্য দেশব্যাপী প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। যোগ্যতা এইচ এসসি পাশ, অভিজ্ঞতাঃ ১ বৎসর, আগ্রহীরা যোগাযোগ করুন 01729188818, সিভি ইমেইল করুনঃ grameennews24tv@gmail.com

সাদুল্লাপুরে রিকশাচালক ছকু হত্যা মামলার দুই আসামি কারাগারে – গ্রামীন নিউজ২৪

স্টাফ রিপোর্টারঃ / ২৭৩৪ বার পঠিত
প্রকাশের সময় : মঙ্গলবার, ২৬ অক্টোবর, ২০২১, ৩:৫১ অপরাহ্ণ
  • Print
  • গাইবান্ধার সাদুল্লাপুরে রিকশাচালক ছকু মিয়া হত্যা মামলার দুই আসামিকে কারাগারে পাঠিয়েছে আদালত।

    আজ মঙ্গলববার দুপুরে গাইবান্ধা চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির হয়ে আত্মসমর্পণ করে জামিন আবেদন করে দুই আসামি। পরে আদালতের বিচারক আশিকুল খবির শুনানি শেষে জামিন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

    আসামিরা হলেন, মন্টু মিয়া ও রনজু মিয়া। তারা সাদুল্লাপুর উপজেলার দামোদরপুর ইউনিয়নের পূর্ব দামোদরপুর গ্রামের মৃত কফিল উদ্দিনের ছেলে।

    মামলার এজাহারে বলা হয়, সাদুল্লাপুর উপজেলার পূর্ব দামোদরপুর গ্রামের ছয় ভাই আলমগীর, আংগুর, রনজু, মনজু, সনজু ও মন্টু মিয়া দীর্ঘদিন ধরে এলাকায় দাদনের কারবারে জড়িত। তাদের সঙ্গে রিকশাচালক ছকু মিয়ার পারিবারিক ও দাদনের টাকা নিয়ে বিরোধ ছিল। ছকুর ছেলের সঙ্গে মন্টু মিয়ার মেয়ের প্রেমের সম্পর্ক নিয়ে সেই বিরোধ আরও বাড়ে।

    এ নিয়ে গত ১৫ মে সন্ধ্যা ৭টার দিকে ছকু মিয়াকে তারই বাড়িতে আটকে হাত-পা বেঁধে ফেলে ছয় ভাইসহ তাদের লোকজন। পরে তাকে মারপিটের একপর্যায়ে রনজু মিয়া হঠাৎ উত্তেজিত হয়ে ছকুর গোপনাঙ্গে লাথি দেন। আর মন্টু বুকের ওপর দুই পা দিয়ে পরপর কয়েকবার আঘাত করেন। এভাবেই রাতভর ছকুর উপর চলে অমানবিক নির্যাতন।

    এ ঘটনার পাঁচদিন পর দামোদরপুর ইউপি চেয়ারম্যান সাজেদুল ইসলাম স্বাধীনের উপস্থিতিতে সালিশ বৈঠকে ‘ছেলের প্রেমের খেসারত’ হিসেবে ছকু মিয়াকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। সেই টাকার জন্য ছকুর একমাত্র ঘরটিও ১৫ হাজারে বিক্রি করে দেন দাদন কারবারিরা। এরপর তাকে ভিটেছাড়া করা হয়। পরে ছকু মিয়া আশ্রয় নেন গাজীপুরের শ্রীপুরে ছেলের বাসার। সেখানে হাসপাতালের ব্যবস্থাপত্র অনুযায়ী চিকিৎসা নেয়ার সময় ৩ জুন মৃত্যু হয় তার।

    এ ঘটনায় থানায় মামলা না নিলে গত ১৬ জুন নিহত ছকু মিয়ার ছেলে মোজাম্মেল হক জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম আদালতে (সাদুল্লাপুর) মামলা করেন। পরে আদালতের বিচারক শবনম মুস্তারী সাদুল্লাপুর থানাকে মামলা রেকর্ডভুক্ত করে ২৩ জুনের মধ্যে মরদেহ উত্তোলনসহ প্রতিবেদন জমা দেয়ার নির্দেশ দেন।

    গত ২১ জুন সাদুল্লাপুর থানা পুলিশ ও জেলার নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট লোকমান হোসেনের উপস্থিতে মরদেহ উত্তোলন করে ময়নাতদন্তের জন্য রংপুর মেডিকেল কলেজ (রমেক) হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়।

    এদিকে, মামলার বাদি মোজাম্মেল হক মামলা করার পর তাকেও বাড়ি ছাড়া করার অভিযোগ উঠেছে। বর্তমানে পাশের একটি গ্রামে আশ্রয় নিয়েছেন তিনি।

    বিষয়টি নিশ্চিত করে বাদিপক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট জাহাঙ্গীর হোসেন জানান, দুই আসামি আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিনের আবেদন করে। কিন্তু হত্যার ঘটনাটি স্পর্শকাতর হওয়ায় বিচারক তাদের জামিন নামঞ্জুর করেন।

    আসামিপক্ষে আইনজীবী ছিলেন, অ্যাডভোকেট সৈয়দ ছামছুল আলম হিরু, অ্যাডভোকেট আহসানুল করিম লাছু, অ্যাডভোকেট নিরাঞ্জন কুমার ঘোষ ও আদালতের সাবেক পাবলিক প্রসিউকিটর (পিপি) শফিকুর রহমান শফি।

    সাহিম/বা.বি

    • আমাদের ইউটিউব পেজ ভিজিট করতে লগইন করুনঃ Grameen news24 Tv

    এ জাতীয় আরো সংবাদ
    এক ক্লিকে বিভাগের খবর