সংবাদ শিরোনাম :
সংবাদ শিরোনাম :
চিকিৎসাশাস্ত্রে নোবেল পুরস্কার পেয়েছেন সুইডিশ বিজ্ঞানী – গ্রামীন নিউজ২৪ আফগানিস্তানে শিক্ষা কেন্দ্রে আত্মঘাতী বোমা হামলায় নিহত বেড়ে ৪৩ – গ্রামীন নিউজ২৪ ঠাকুরগাঁওয়ে ছাগল চুরি করে পালানোর সময় গণধোলাই খেলেন যুবলীগ নেতা – গ্রামীন নিউজ২৪ খালার বাড়িতে চুরি, দেখে ফেলায় খালা ও শিশু ভাইকে হত্যা – গ্রামীন নিউজ২৪ লঘুচাপের প্রভাবে মোংলাসহ সংলগ্ন উপকূলীয় এলাকায় বৃষ্টি বাড়ছে, কমেছে সুন্দরবনে পর্যটকও – গ্রামীন নিউজ২৪ গাইবান্ধায় স্ত্রীকে হত্যার দায়ে স্বামীর যাবজ্জীবন- গ্রামীন নিউজ২৪ পুলিশ সদস্য কর্তৃক স্ত্রীর কাছ থেকে যৌতুক দাবি ও শারীরিক নির্যাতন – গ্রামীন নিউজ২৪ দেশের পথে রওয়ানা হয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা – গ্রামীন নিউজ২৪ শারদীয় দুর্গাপূজায় জঙ্গি হামলার কোনো হুমকি নেই র‍্যাব ডিজি – গ্রামীন নিউজ২৪ ছাত্রলীগ নেতা সুদীপ্ত বিশ্বাস হত্যার বিচার শুরু – গ্রামীন নিউজ২৪
বিজ্ঞপ্তি :
গ্রামীন নিউজ২৪টিভি পরিবারের জন্য দেশব্যাপী প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। যোগ্যতা এইচ এসসি পাশ, অভিজ্ঞতাঃ ১ বৎসর, আগ্রহীরা যোগাযোগ করুন 01729188818, সিভি ইমেইল করুনঃ grameennews24tv@gmail.com

বিলুপ্তির পথে মুদ্রাক্ষরিক যন্ত্র – গ্রামীন নিউজ২৪

মোঃ মানিক হোসেন, রাজশাহী প্রতিনিধি: / ১৫১৬ বার পঠিত
প্রকাশের সময় : শুক্রবার, ২৯ অক্টোবর, ২০২১, ৭:২৩ পূর্বাহ্ণ
  • Print
  • কথায় আছে, পুরান চাউল ভাতে বাড়ে। কিন্তু বিজ্ঞান প্রমান করেছে, পুরান চাউলের উৎপাদন কম, সময় লাগে বেশি। যুগের বিবর্তনে আধুনিকতার ছোঁয়ায় রাতারাতি পরিবর্তন হচ্ছে প্রিয় কিছু ব্যবহার করা জিনিসের। সেকেলের কেরোসিনের বাতি থেকে আধুনিকতার স্পর্শে আবিষ্কার হয়েছে বৈদ্যুতিক বাতি। যাত্রীবহনকারী পায়ে চালিত রিকশার আদলে কম কষ্টের ইজিবাইক রিকশা। কমে গেছে পরিশ্রম, সময় কমিয়ে হাতের নাগালের মধ্যে সবটুকু সুখের আয়োজন। তবুও অনেক মানুষ পারে না ব্যবহার করা পুরাতন জিনিসের মায়া ত্যাগ করতে। ভরসা পায় না নতুনের প্রতি। অভিযোগে নয়, কিছু উপাদানের অভাবে বিলুপ্ত হচ্ছে প্রিয় বস্তুগুলো।

    কালির সংকটে আর কম্পিউটারের প্রিন্টারের কারনে বিলুপ্তির পথে বসেছে টাইপ রাইটার মেশিন (মুদ্রাক্ষরিক যন্ত্র)। জানা যায়, ১৮৬৬ খ্রিস্টাব্দে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের যন্ত্রপ্রকৌশলী ক্রিস্টোফার শোলস্ আধুনিক ধাঁচের টাইপ রাইটার মেশিন নির্মাণ করেন। সর্বপ্রথম ১৮৭৪ খ্রিস্টাব্দে রেমিংটন রান্ড কোম্পানী শোলস্ অ্যান্ড গ্লিডেনস্ ব্রান্ডের টাইপরাইটার মেশিন বাজারজাত করা হয়। বোতাম টিপে কাগজে লেখার জন্য টাইপ রাইটার মেশিন ব্যবহার করা হয়। সর্বপ্রথম টাইপ রাইটার মেশিনে বিদ্যুতের ব্যবহার ছিলনা । বাংলাদেশে কম্পিউটারের ব্যবহারের সূচনা হয় ষাটের দশকে।টাইপ রাইটারের কী-বোর্ডের নকশা থেকে এসেছে কম্পিউটারের কী-বোর্ড ।

    “আগের চেয়ে এখন টাইপিস্ট মেশিনের ব্যবহার কমে এসেছে। কালির ( রিবন) সরবরাহ কমে যাওয়ায় আর কম্পিউটারের টাইপে কাজ খুব কম। হাতে গোনা কয়েকটি টাইপিস্ট রাজশাহী কোর্টে দেখতে পাবেন। তবে আমি ১৭ বছর ধরে কাজ করছি এবং সর্বকনিষ্ঠ টাইপিস্ট হিসেবে আছি।”- জানালেন মোস্তাফিজুর রহমান (৪০)।

    রাজশাহীর কোর্ট কোলাহলে মুখরিত হয়ে থাকতো, একসময় ঝড় উঠতো টাইপ রাইটারের খটখট শব্দে। দলিল-পত্র থেকে যেকোন নথিপত্র লিখতে ছুটে টাইপিস্টদের কাছে। সারি বেঁধে অপেক্ষা করতে হতো অনেক সময়।

    টাইপ রাইটারের প্রয়োজনীয়তা অনেক কমে গেছে । তবুও এখনো অনেকে ধরে রেখেছেন পুরনো সেই পেশা।

    রাজশাহী নগরীর রাজপাড়া থানার হাবিবুর রহমান (৬৯) প্রায় ১০ বছর সেনাবাহিনী করেছেন। তিনি অবসরপ্রাপ্ত সেনা সার্জেন্ট ও মুক্তিযোদ্ধা। সেনাবাহিনী থেকে টাইপ মেশিনে প্রশিক্ষণ থাকায় ১৯৭৩ সাল থেকে রাজশাহী কোর্টে টাইপ রাইটারের কাজ করছেন।

    তিনি বলেন, আমার হাতে ৭ টি টাইপ রাইটার মেশিন ব্যবহার হয়েছে। অনেক দামি ছিল আমাদের কাছে। পেশার জিনিস আজীবন দামি থেকে গেল। আধুনিকতার ছোঁয়ায় মেশিনের ব্যবহার কমে যাওয়ায়, বাধ্য হচ্ছি টাইপ রাইটার মেশিন ছাড়তে। এই কোর্টে জলিল , বণি , রবি কাজ করতো। এখন আমি, সাত্তার সাহেব, মোস্তাফিজুর, রেন্টু কাজ করছি। আমার বেশ কয়েকটি শিষ্য ছিল, আমার কাছ থেকে টাইপ রাইটারের কাজ শিখেছিল। কোর্টে হয়তো তাদের লাগবে না, তবে সরকারি ও বেসরকারি অফিসে চাকরি করছে।

    আনোয়ারুল ইসলাম (৪৪) বলেন, আমার বাবা (মৃত আনসার) টাইপিস্ট ছিলেন। তিনি আমাকে কাজ শিখিয়ে ছিলেন। আমি এখন স্টাম্প,ভেন্ডার নিয়ে বসি। টাইপ রাইটার মেশিনে আর কাজ পাইনা।
    পেশাদার হিসেবে যখন কাজে ঢুকি তখন কাজটা ভাল লেগেছে, রুজিও ভালো ছিল। আর্থিকভাবে আমার যা প্রয়োজন তার থেকে ভাল আয় হতো। ইংরেজি টাইপের মেশিন ১৯৭৩ সালে এবং মুনীর অপটিমা বাংলা টাইপের মেশিন ১৯৮৫ সালে রাজশাহী কোর্টে আসে।

    টাইপিস্ট আব্দুস সাত্তার (৭০) পেশা সম্পর্কে জানান, রাজশাহী কোর্টে বেশকয়েকজন টাইপিস্ট ছিলেন। তাঁদের মধ্যে অনেকেই মারা গেছেন, অনেকেই কাজ ছেড়ে দিয়েছেন। এখন টাইপ রাইটারের টাইপিস্টের সংখ্যা হাতেগোনা কয়েকজন। চারিদিকে কম্পিউটারের ব্যাপকতা বাড়লেও মায়া এখনো টাইপ-রাইটার মেশিনকে ঘিরে।

    হাসান মৃধা নামে একজন দলিল লেখক বলেন, যন্ত্র পুরনো হলেও, টাইপ রাইটারের প্রয়োজনীয়তা এখনো ফুরিয়ে যায়নি। এখনো আদালতের কিছু নোটিশ এবং নথিপত্র আছে, যা টাইপ রাইটার ছাড়া কম্পিউটারে করানো সম্ভব নয়। অনেক ফর্ম আছে যেগুলো কম্পিউটারে টাইপ করলে সেগুলো কোর্টে গ্রহণযোগ্য হয় না। এছাড়া কিছু নোটিশ আছে, সিআরও ফর্ম আছে যেগুলো টাইপরাইটার ছাড়া আমাদের করা সম্ভব না।

    টাইপিস্ট হাবিবুর রহমানের শিষ্য রেন্টু বলেন, এখানে না আসলে আমার পেটের ভাত হজম হয় না। যদিও আগে অবস্থা খুব ভালো ছিল, সারাদিনে ৫০০ থেকে ৭০০ টাকা পেতাম। এখন ২৫০-৩০০ টাকা পাই আবার মাঝে মাঝে কাজ হয় না।

    • আমাদের ইউটিউব পেজ ভিজিট করতে লগইন করুনঃ Grameen news24 Tv

    এ জাতীয় আরো সংবাদ
    এক ক্লিকে বিভাগের খবর