সংবাদ শিরোনাম :
সংবাদ শিরোনাম :
বন বিভাগের অভিযানে বন্দুকের গুলি সহ হরিণ শিকারী আটক – গ্রামীন নিউজ২৪ বিতর্কিত শিক্ষাক্রম বাতিলের দাবিতে সাতক্ষীরায় মানববন্ধন – গ্রামীন নিউজ২৪ সাপাহারে সড়ক দূর্ঘটনায় নিহত-১ – গ্রামীন নিউজ২৪ ঘোড়াঘাটে ২ যুবক নিহতের ঘটনায় বাড়িঘরে অগ্নি-সংযোগ – গ্রামীন নিউজ২৪ নওগাঁর পত্নীতলায় কর্ভাড ভ্যানের ধাক্কায় নিহত ১ – গ্রামীন নিউজ২৪ কুষ্টিয়ায় হত্যা মামলায় তিনজনের যাবজ্জীবন – গ্রামীন নিউজ২৪ বাংলাবান্ধা স্থলবন্দরে কাস্টমস দিবস উদযাপন – গ্রামীন নিউজ২৪ পাঠ্যপুস্তকের ভুল সংশোধনের দাবীতে মোংলায় মানববন্ধন – গ্রামীন নিউজ২৪ গাইবান্ধার সাদুল্লাপুরে কলেজ ছাত্রের আত্মহত্যা- গ্রামীন নিউজ২৪ ডিজিটাল সংযোগ হবে স্মার্ট বাংলাদেশের প্রধান হাতিয়ার: প্রধানমন্ত্রী – গ্রামীন নিউজ২৪
বিজ্ঞপ্তি :
গ্রামীন নিউজ২৪টিভি পরিবারের জন্য দেশব্যাপী প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। যোগ্যতা এইচ এসসি পাশ, অভিজ্ঞতাঃ ১ বৎসর, আগ্রহীরা যোগাযোগ করুন 01729188818, সিভি ইমেইল করুনঃ grameennews24tv@gmail.com

একজন ইমারত নির্মান শ্রমিকের জীবনের গল্প। – গ্রামীন নিউজ২৪

ফরহাদ হোসেন কয়রা থেকেঃ / ২০৬৮ বার পঠিত
প্রকাশের সময় : শনিবার, ১৩ নভেম্বর, ২০২১, ৯:৫৫ পূর্বাহ্ণ
  • Print
  • নিজ কাজের পাশাপাশি বিভিন্ন মানবিক, সামাজিক কাজের সাথে নিজের অবসর সময় টা কাটাতে ভালবাসি।

    শৈশবে যখন মোটামুটি বুঝতাম তখন থেকে পরিবারে অভাব অনাটন দেখতাম, তবে মাঝে মাঝে রাত্রে মাকে একা একা কাঁদতে দেখে মায়ের কাছে জানতে চাইতাম, মা কি হয়েছে, মা আঁচল দিয়ে চোখ মুছে বলত যা এখান থেকে আমাকে মা বলে ডাকবি না। নানা অজুহাতে বাবার শাষনে মা আমি আমরা কষ্ট পেতাম।স্কুল লাইফে ভাল ছাত্র ছিলাম না তবে দুষ্টুমিতে সেরা ছিলাম। যখন খুবই ছোট ছিলাম তখন স্কুল থেকে ফিরে এসে প্রতিদিনই চুলা জালানির প্রয়োজনে বাবা আমাকে বিলে (জমিতে) পাঠাতো নাড়া (ধান গাছের অবশিষ্ট গোড়া) তুলে আনতে। যে সময় টা লেখাপড়ার পরে ছোটদের খেলার মাঠে থাকার কথা সেই সময়ে বাবার কড়া আইন ছিল আমার জীবন সিলেবাসে, প্রতিদিন এক বস্তা করে নাড়া কেটে না আনতে পারলে বাবার হাতে মার খেতে হত। কোনদিন হাফ বস্তা, কোন দিন খালি বস্তা নিয়ে ফিরতাম। যে দিন খালি বস্তা নিয়ে ফিরতাম সেদিন খেলার মাঠে সময় টা কাটতো। কিন্তু রাত্রে বাবার কাছে ধরা পড়লে খাওয়া তো বন্ধ আবার শাষন ও ছিল। কোন কোন সময়ে হাতে ঠসকা পড়ে যেত সেই সময়ে কিছুটা মুক্তি পেতাম। বাবার এই শাষনের হাত থেকে বাঁচাতে বহুবার মা বাবার সাথে মিথ্যা কথা বলতো, তখন মা কে প্রায় দেখতাম নামাজে অবসরে চোখের জল ফেলতে। আমার জন্য, আমার বাবার জন্য দোয়া করতে। আমার বাবা একজন ভ্যান চালক। তবে লেখাপড়া করার প্রতিও বাবার শাষন ছিল বেশ কড়া। নতুন কোন কলম বা খাতার প্রয়োজন হলে প্রতিটা কলম ও খাতার পৃষ্ঠার হিসাব দেখাতে হত বাবার সামনে। একটা পৃষ্টা এদিক সেদিক হলে আর উপায় ছিলনা। ক্লাস ওয়ান থেকে ফাইভ অবদি একটা স্কুল ড্রেস এ পার করেছিলাম। সেটাও সবার থেকে আলাদা রঙের ছিল। বন্ধুরা প্রতিদিন নতুন নতুন জামা কাপড় আর খাবার খেত অথচ আমি বাবার কাছে দুই টাকা চাইলেও হাজার টা কারনের উত্তর দিতে হত। সপ্তাহে অথবা মাসে কয়েকবার দুই এক টাকা পেতাম খাবারের জন্য। মা কাঁথা সেলাই করে মাঝে মাঝে আমাকে খাবার খাওয়ার জন্য দুই, এক টাকা দিত। ক্লাস ফাইভ শেষ করে বাবার ইচ্ছা ছিলনা আর পড়ালেখা করানোর। কিন্তু মায়ের ইচ্ছা আর কাঁথা সেলাই করে আমাকে পড়ানোর ইচ্ছা ছিল। বাবা তখন কিছুটা রায় দিলেন।

    ক্লাস সিক্স এ মাদ্রাসায় ভর্তি হলাম। প্রায় ৫/৬ টি মাস মাদ্রাসায় পড়েছি পাঞ্জাবি ছাড়া। স্কুল যাওয়া, স্কুল থেকে ফিরে জমিতে যাওয়া, কোন কোন সময় পুকুরের কলমি শাক তুলে বাজারে বিক্রি করা, নদি থেকে লবন পানি তুলে মাছ ব্যবসায়ীদের কাছে বিক্রি করে নিজের পকেট খরচ বের করা একটা রুটিং মিত হয়ে পড়েছিল। সেই সময়ের কথাগুলো মনে পড়লে আমি মাঝে মাঝে কেঁদে ফেলি। প্রথম প্রথম অনেক দূর হেটে মাদ্রাসা যেতাম। পরে টেম্পু / নছিমন এ এক টাকা দুই টাকা ভাড়া দিলে আমাদের নিয়ে যেত মাদ্রাসা অবদি। মাঝে মাঝে আমি সেই টাকাটা ও দিতে পারতাম না, এরজন্য ও অনেক ড্রাইভার ভাই বকাও দিত আমাকে। এক সময় বাস চালু হল তখন ও সেভাবে যেতাম আমি। কখনো পুলিশ অফিসারদের জামা কাপড় পরিস্কার করা, ভ্যান ভাড়া করে চালিয়েও নিজের খরচ ও ছোট বোনের জন্য ব্যায় করতাম।

    এভাবে যখন নবম শ্রেণিতে উঠলাম তখন আমি গনিত ও ইংরেজি তেমন জানতাম না বা বুঝতাম না। সেই সময় কিছু টাকা দিয়ে মাত্র এক মাস প্রাইভেট পড়েছিলাম একজন বড় ভাইয়ের কাছে। পরের মাসে আর টাকা দিতে পারিনি বলে প্রাইভেটেও যেতে পারিনি। যখন ফরম পেলাপ করতে হবে তখন এতগুলো টাকা আমাকে কে দিবে। অনেকের কাছে হাত পেতে ছিল আমার মা, কেউ তখন একটা টাকা দিয়ে সহযোগিতা করেনি আমাকে। মায়ের জমানো আর বাবার জমানো কিছু টাকা দিয়ে প্রিন্সিপাল ও ভয়েজ প্রিন্সিপাল হুজুরের সাথে কথা বলে ফরম পেলাপ করিয়ে দেয়। অবশ্য টেষ্ট পরিক্ষায় সামাজিক বিজ্ঞানে বাদে অন্য সব সাবজেক্টে পাশ করেছিলাম। টেষ্ট পরিক্ষার পরে দাখিল পরিক্ষার সময় সকলে নতুন পোশাক পরে পরিক্ষা দিতে যায়, আমি আমার ছোট মামার পাঞ্জাবী ধার করে পরিক্ষা দিয়েছিলাম, পরে অবশ্য পাঞ্জাবি টা মামা আমাকে দিয়েছিল। তিন মাস পর পরিক্ষায় ফলাফল দিল, আমি পাশ করেছিলাম ৩.৫৬ পয়েন্টে । ছাত্র হিসাবে আমি মোটামুটি ভাল ফলাফল করেও সেদিন মন খুলে হাসতে পারিনি আমি। দাখিল পাশ করে বেকার ছিলাম। মা বললো বাবা আর একটু পড়াশুনা করো। তখন আমার মেঝ মামা আমাকে পড়াশুনা করার জন্য কিছু বই কিনে দিল, বিনিময়ে উনার ইলেকট্রনিক দোকানে কাজ করতে হবে। সারাদিন কাজ করে রাত্রে ক্লান্তি কে হার মানিয়ে ও পড়ালেখা করতে থাকি। একসময় সেই একই অধ্যায় চলে এলো কলেজ জীবনে। কলেজ এর ফরম পেলাপ করার টাকা ম্যানেজ করতে হিমসীম হয়ে পড়েছিলাম। দোকানে কাজ করে যে টাকা পেতাম তখন অভাবের সংসারে ব্যায় করে অবশিষ্ট রাখার মত ছিলনা। আজ কাল করে ২৫ শে মে ২০০৯ আইলা শুরু হল, বন্ধুরা সবাই পরিক্ষা দিল আর আমার স্বপ্ন গুলো আইলার স্রোতে ভাসিয়ে নিয়ে গেল। ভেবেছিলাম পরের বছর পরিক্ষা দিব, পরে পরে করে কর্ম জীবনে জীবিকার পিছু ছুটেই চলেছিলাম নেশার মত। পরে অবশ্য শুনেছিলাম আইলার কারনে উপকূলীয় অঞ্চলের শিক্ষার্থীদের ছাড় দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু আমি সেই আঙ্গিনা থেকে ঝরে পড়েছিলাম।

     

    আমি সেই আইলার সময়ে দেখেছিলাম কিভাবে একটা ছেলে ঝরে পড়েছিল শিক্ষাঙ্গন থেকে, দেখেছিলাম কিভাবে মানুষের লাশ স্রোতে ভেষে যেতে, দেখেছিলাম কিভাবে না খেয়ে ও জীবন কে বাঁচিয়ে রাখতে মানুষ পরিশ্রম করে। সেই সময়ে আমার থেকে যারান ন আরো বেশি অভাবে আর ক্ষতিগ্রস্ত ছিল তাদের জন্য সেচ্ছাসেবক হিসাবে টুকটাক কাজ করতাম “মানব কল্যাণ ইউনিট ” নামে একটা সৃজনশীল চিন্তা ধারায় উজ্জীবিত একটা সংগঠনের হয়ে। বর্তমান সেই সংগঠনের প্রচার সম্পাদক হয়েছি আমি। এভাবে একসময় উপকূলীয় অঞ্চলের পরিস্থিতি স্বাভাবিক হতে শুরু করে। বয়স যত বেশি হচ্ছিল চাহিদা ততই বাড়তে থাকে বলে নতুন কাজের সন্ধ্যানে একটা চাকুরির অফার পেয়েছিলাম যেখানে আমানত হিসাবে ২০ হাজার টাকা দেওয়া লাগবে। কিন্তু আমার পক্ষে সেটাও অসম্ভব হয়ে পড়েছিল।

    কৃষি কাজের পাশাপাশি নানা ধারনের দিন মুজুরির কাজ করতে শুরু করি। বাবার পাশাপাশি আমিও সংসারের বোঝা কিছুটা কাধে নেওয়ার চেষ্টা করতাম। বোনের পড়ালেখা, জামা কাপড় সহ নিজের খরচ ও চলে।

    • আমাদের ইউটিউব পেজ ভিজিট করতে লগইন করুনঃ Grameen news24 Tv

    এ জাতীয় আরো সংবাদ
    এক ক্লিকে বিভাগের খবর