সংবাদ শিরোনাম :
সংবাদ শিরোনাম :
আটঘরিয়ায় প্রথম বারের মতো বারি-২ মৌরি মশলা চাষ করে সফল কৃষক জহুরা বেগম – গ্রামীন নিউজ২৪ বিএসএফ সদস্যের লাশ মিলল ইছামতী নদীতে – গ্রামীন নিউজ২৪ ক্ষমতার অপব্যবহার যেন না হয় সেদিকে খেয়াল রাখতে আহবান: রাষ্ট্রপতি – গ্রামীন নিউজ২৪ মায়ের জানাযায় অংশ নিতে এসে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত প্রবাসী ছেলে – গ্রামীন নিউজ২৪ রাখাইন রাজ্যের রাজধানীর কাছে পুলিশ স্টেশন দখল করলো আরাকান আর্মি – গ্রামীন নিউজ২৪ রোহিঙ্গা ক্যাম্প থেকে ৪ আরসা সদস্য গ্রেপ্তার, অস্ত্র উদ্ধার – গ্রামীন নিউজ২৪ এখন মানুষ ৪ বেলা খায়: প্রধানমন্ত্রী – গ্রামীন নিউজ২৪ মাদারীপুর এক্সপ্রেসওয়েতে বাস-ট্রাকের সংঘর্ষে নিহত ৫ – গ্রামীন নিউজ২৪ আটঘরিয়ায় সড়ক দূর্ঘটনায় হেলপার নিহত – গ্রামীন নিউজ২৪ প্রতারনার মামলায় যুবলীগ নেত্রী রিমান্ডে – গ্রামীন নিউজ২৪
বিজ্ঞপ্তি :
গ্রামীন নিউজ২৪টিভি পরিবারের জন্য দেশব্যাপী প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। যোগ্যতা এইচ এসসি পাশ, অভিজ্ঞতাঃ ১ বৎসর, আগ্রহীরা যোগাযোগ করুন 01729188818, সিভি ইমেইল করুনঃ grameennews24tv@gmail.com। স্বল্প খরচে সাপ্তাহিক, মাসিক, বাৎসরিক চুক্তিতে আপনার প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন ০১৭২৯১৮৮৮১৮

নিউজবাংলার সাংবাদিকের নামে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবি প্রেস ইউনিটির – গ্রামীন নিউজ২৪

স্টাফ রিপোর্টারঃ / ৪১১ বার পঠিত
প্রকাশের সময় : শনিবার, ১১ ডিসেম্বর, ২০২১, ৬:৩৩ অপরাহ্ণ
  • Print
  • সংবাদ প্রকাশ করার জেরে নিউজবাংলার গাইবান্ধা জেলা প্রতিনিধি ও প্রেসক্লাব গাইবান্ধার যুগ্ম সম্পাদক পিয়ারুল ইসলামের নামে করা মামলা প্রত্যাহারের দাবি জানিয়েছে অনলাইন প্রেস ইউনিটি, ঢাকার নেতৃবৃন্দ।

     

     

     

    শনিবার সন্ধ্যায় সংগঠনটির পক্ষ থেকে এক যৌথ বিবৃতির মাধ্যমে এ দাবি জানানো হয়।

     

     

     

    সংগঠনটির উপদেষ্টা বীর মুক্তিযোদ্ধা মাহবুবুর রহমান, প্রতিষ্ঠাতা মোমিন মেহেদী, ভাইস চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আবদুল অদুদ, এম লোকমান হোসাঈন, সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব শান্তা ফারজানা, যুগ্ম মহাসচিব শৈবাল আদিত্য যৌথ স্বাক্ষরে এই বিবৃতি দেন।

     

     

     

    বিবৃতিতে বলা হয়, গাইবান্ধার এক রিকশাচালককে নির্যাতন ও পরবর্তী সময়ে তার মৃত্যুর ঘটনায় ধারাবাহিক প্রতিবেদন প্রকাশ করায় পিয়ারুল ইসলামকে নারী নির্যাতনের একটি মামলায় আসামি হিসেবে দেখানো হয়েছে। দ্রুত এই হয়রানিমূলক মামলা প্রত্যাহার করতে হবে। একই সাথে সারাদেশে সংবাদযোদ্ধাদের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত সকল মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের পাশাপাশি ৫৭ ধারা আইন বাতিলের দাবিও জানানো হয়।

     

     

     

    উল্লখ্য, গাইবান্ধার সাদুল্লাপুরের পূর্ব দামোদরপুর গ্রামে গত জুনে ছকু মিয়া নামে এক রিকশাচালকের মৃত্যু হয় নির্যাতনে। নিহতের ছেলে মোজাম্মেল হক মামলায় অভিযোগ করেন, স্থানীয় দাদনকারবারির ছয় ভাই ১৫ মে হাত-পা বেঁধে রাতভর পিটিয়ে তার বাবার হাত-পা ও দাঁত ভেঙে দেন।

     

     

     

    অভিযোগে বলা হয়, ওই দাদনকারবারিদের সঙ্গে ছকু মিয়ার দাদনের টাকা নিয়ে পুরোনো বিরোধ ছিল। ছকুর ছেলে মোজাম্মেলের সঙ্গে দাদনকারবারি মন্টু মিয়ার মেয়ের প্রেমের সম্পর্ক জানতে পেরে মন্টু তার ভাইদের নিয়ে ছকুকে রাতভর নির্যাতন করে।

     

     

     

    আলমগীর, আংগুর, রনজু, মনজু, সনজু ও মন্টু মিয়া রাতভর ছকুকে পিটিয়ে গুরুতর আহত করে কোনো চিকিৎসার সুযোগ না দিয়ে পরদিন ১৬ মে দিনভর তাকে জিম্মি করে রাখে। পরে পুলিশ তাকে উদ্ধার করে চিকিৎসার ব্যবস্থা করে।

     

     

     

    এক সপ্তাহ পর দামোদরপুর ইউপি চেয়ারম্যান এ জে এম সাজেদুল ইসলাম স্বাধীনের উপস্থিতিতে সালিশ বৈঠকে ‘ছেলের প্রেমের খেসারত’ হিসেবে ছকু মিয়াকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। সেই টাকার জন্য ছকুর একমাত্র ঘরটিও ১৫ হাজার টাকায় বিক্রি করে দেন দাদনকারবারিরা। এরপর তাকে ভিটেছাড়া করা হয়। পরে ছকু মিয়া আশ্রয় নেন গাজীপুরের শ্রীপুরে ছেলের বাসার। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ৩ জুন মৃত্যু হয় তার।

     

     

     

    পরে ছকুর ছেলে মোজাম্মেল বাবা হত্যার মামলা করতে চাইলে থানায় তার মামলা নেয়া হয়নি। উল্টো মোজাম্মেল ও তার বোনকে গ্রাম থেকে উচ্ছেদ করে ওই ছয় ভাই।

     

     

     

    পরবর্তী সময়ে গত ১৬ জুন ছকু মিয়ার ছেলে মোজাম্মেল হক জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম আদালতে (সাদুল্লাপুর) মামলা করেন। মামলায় ছয় ভাই আলমগীর, আংগুর, রনজু, মনজু, সনজু, মন্টুসহ নয়জনকে আসামি করা হয়। পরে আদালতের বিচারক শবনম মুস্তারী সাদুল্লাপুর থানাকে মামলা রেকর্ডভুক্ত করে ২৩ জুনের মধ্যে মরদেহ উত্তোলন ও ময়নাতদন্ত করে প্রতিবেদন জমা দেয়ার নির্দেশ দেন।

     

     

     

    পুরো ঘটনায় শুরু থেকে একাধিক প্রতিবেদন প্রকাশ করে নিউজবাংলা।

     

     

     

    আদালতের এই নির্দেশনা পাওয়ার পরই ছকু হত্যার প্রধান আসামি মন্টু মিয়ার স্ত্রী বাদী হয়ে তাদের মেয়েকে অপহরণ ও ধর্ষণের অভিযোগে গাইবান্ধা নারী ও শিশু ট্রাইব্যুনাল-২ আদালতে ছকুর ছেলে মোজাম্মেল, নিউজবাংলার গাইবান্ধা প্রতিনিধিসহ মোট ছয়জনের বিরুদ্ধে মামলা করেন। মামলায় সাক্ষী হন ছকু হত্যা মামলার নয় আসামি।

     

     

    এই মামলায় তদন্ত করতে গিয়ে ওই কিশোরীকে ধর্ষণের কোনো আলামত মেলেনি শারীরিক পরীক্ষায়। তদন্ত প্রতিবেদনের একটি অনুলিপি এসেছে নিউজবাংলার হাতে। সেখানে শারীরিক পরীক্ষার বরাত দিয়ে চিকিৎসকের মন্তব্য লেখা হয়েছে: ‘নো সাইন অফ ফোর্সফুল সেক্সুয়াল ইন্টারকোর্স।’


    এ জাতীয় আরো সংবাদ
    • আমাদের ইউটিউব পেজ ভিজিট করতে লগইন করুনঃ Grameen news24 Tv
    এক ক্লিকে বিভাগের খবর