সংবাদ শিরোনাম :
সংবাদ শিরোনাম :
প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীকে অপহরণ ও মারধর: মাইক্রোবাস উদ্ধারসহ গ্রেপ্তার ১ – গ্রামীন নিউজ২৪ ঠাকুরগাঁওয়ে নিখোঁজের ২ দিন পরে শিক্ষার্থীর মরদেহ উদ্ধার – গ্রামীন নিউজ২৪ কোন অবস্থাতেই সাম্প্রদায়িক বিভেদ সৃষ্টি করা চলবেনা না – ধর্মমন্ত্রী – গ্রামীন নিউজ২৪ শান্তিচুক্তির পর থেকে পার্বত্য চট্টগ্রাম অঞ্চলের সার্বিক উন্নয়নে অসামান্য পরিবর্তন ঘটেছে -জাতিসংঘে পার্বত্য সচিব – গ্রামীন নিউজ২৪ সাঘাটায় সেফটি ট্যাংক থেকে ছাত্রের মরদেহ উদ্ধার – গ্রামীন নিউজ২৪ ৭ দিন বন্ধ সব স্কুল-কলেজ – গ্রামীন নিউজ২৪ অ্যাসেম্বলি বন্ধ প্রাথমিক বিদ্যালয়ে – গ্রামীন নিউজ২৪ ঢাকাগামী চলন্ত লঞ্চে আগুন – গ্রামীন নিউজ২৪ শিল্পী সমিতির নতুন সভাপতি মিশা, সাধারণ সম্পাদক ডিপজল – গ্রামীন নিউজ২৪ জামায়াতের ৩ নেতা গ্রেপ্তার – গ্রামীন নিউজ২৪
বিজ্ঞপ্তি :
গ্রামীন নিউজ২৪টিভি পরিবারের জন্য দেশব্যাপী প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। যোগ্যতা এইচ এসসি পাশ, অভিজ্ঞতাঃ ১ বৎসর, আগ্রহীরা যোগাযোগ করুন 01729188818, সিভি ইমেইল করুনঃ grameennews24tv@gmail.com। স্বল্প খরচে সাপ্তাহিক, মাসিক, বাৎসরিক চুক্তিতে আপনার প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন ০১৭২৯১৮৮৮১৮

ঠাকুরগাঁওয়ে হাসপাতাল থেকে ১০ কিলোমিটার হেঁটে বৃষ্টিতে ভিজে শিশুকে নিয়ে বাড়ি ফিরছে মা – গ্রামীন নিউজ২৪

মোঃ মজিবর রহমান শেখ, ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধিঃ / ৭০৪ বার পঠিত
প্রকাশের সময় : শুক্রবার, ২ জুলাই, ২০২১, ১১:৫৯ পূর্বাহ্ণ
  • Print
  • করোনার সংক্রমণ বৃদ্ধির কারণে লকডাউন চলছে সারাদেশের ন্যায় ঠাকুরগাঁও জেলায় । তার সাথে মুশলধারে বৃষ্টি হচ্ছে সকাল থেকে। এই বৃষ্টির মধ্যেই সন্তানকে নিয়ে হেঁটে যাচ্ছেন মা। মা এর কাছ থেকে শিশুকে কোলে নেয় দাদি। দাদির মাথায় ছাতা ধরে আছে শিশুর পিতা। এ ভাবে হেঁটে ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতাল থেকে ১০ কিলোমিটার দূরে শহরের রোড এলাকায় যাচ্ছে তারা। কথা বলে জানা যায়, শিশুটি গত ৭দিন থেকে অসুস্থ হয়ে ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালে ভর্তি ছিল। ১ জুলাই বৃহস্পতিবার শিশুটি সুস্থ হওয়ায় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ রিলিজ দেয় তাকে। এ অবস্থায় লকডাউন ও মুশলধারে বৃষ্টিতে বাহিরে কোন যানবাহন না থাকায় উপায় না পেয়ে শেষে পায়ে হেঁটে রাওনা দেয় পরিবারটি।

    শিশুটির দাদি জানান, নাতি সুস্থ হওয়ায় আর হাসপাতালে থাকিনি। কিন্তু বের হয়ে দেখি রাস্তায় কোন রিকশা বা অটো নেই। আর তার সাথে বৃষ্টি হচ্ছে।

    হাসপাতালে করোনার ভয় বেশি তাই বাধ্য হয়ে পায়ে হেঁটে রাওনা দেই বাড়ির উদ্দেশ্যে। কিন্তু এতদূর পথ পায়ে হেঁটে যেতে কষ্ট হচ্ছে। তাই কখনো শিশুটির মা তাকে কোলে নিয়ে কখনো আমি কোলে নিয়ে বাড়ির দিকে হাঁটছি। শিশুটির মা শরিফা খাতুন বলেন, আমার সন্তানকে অনেক কষ্ট করে সুস্থ করেছি। আল্লাহর কাছে শুকরিয়া সন্তান সুস্থ হয়েছে। এখন বাসায় যাবো কোন যানবাহন নেই তাই বাধ্য হয়ে পায়ে হেঁটেই যেতে হচ্ছে।


    এ জাতীয় আরো সংবাদ
    • আমাদের ইউটিউব পেজ ভিজিট করতে লগইন করুনঃ Grameen news24 Tv
    এক ক্লিকে বিভাগের খবর