সংবাদ শিরোনাম :
সংবাদ শিরোনাম :
পত্নীতলায় ৩ কোটি টাকার মাদকদ্রব্য ধ্বংস ও মূর্তি হস্তান্তর – গ্রামীন নিউজ২৪ মানষিকভাবে বিপর্যস্ত কলেজ পড়ুয়া ছাত্রের আত্মহত্যা – গ্রামীন নিউজ২৪ কয়রায় আইনশৃঙ্খলা কমিটির মাসিক সভা – গ্রামীন নিউজ২৪ সংবাদ প্রকাশের জেরে তিন সাংবাদিকের নামে চোরাকারবারির মামলা – গ্রামীন নিউজ২৪ সুন্দরগঞ্জে শহীদ বুদ্ধিজীবি দিবস ও মহান বিজয় দিবস উদযাপনের প্রস্তুতিমূলক সভা – গ্রামীন নিউজ২৪ বরিশালে স্ত্রীর বঁটির কোপে স্বামী নিহত – গ্রামীন নিউজ২৪ দুপুর ১২ টা পর্যন্ত সামিন টেক্সটাইলে লাগা আগুন নিয়ন্ত্রনে আসেনি – গ্রামীন নিউজ২৪ জিএম কাদেরের দায়িত্ব পালনে নিষেধাজ্ঞার আদেশ স্থগিত – গ্রামীন নিউজ২৪ জন্ম নেয়া তিন সন্তানের ভবিষ্যত নিয়ে চিন্তায় মা-বাবা – গ্রামীন নিউজ২৪ গোবিন্দগঞ্জে গলাকেটে ব্যবসায়ীকে হত্যা – গ্রামীন নিউজ২৪
বিজ্ঞপ্তি :
গ্রামীন নিউজ২৪টিভি পরিবারের জন্য দেশব্যাপী প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। যোগ্যতা এইচ এসসি পাশ, অভিজ্ঞতাঃ ১ বৎসর, আগ্রহীরা যোগাযোগ করুন 01729188818, সিভি ইমেইল করুনঃ grameennews24tv@gmail.com

ঠাকুরগাঁওয়ে হাসপাতাল থেকে ১০ কিলোমিটার হেঁটে বৃষ্টিতে ভিজে শিশুকে নিয়ে বাড়ি ফিরছে মা – গ্রামীন নিউজ২৪

মোঃ মজিবর রহমান শেখ, ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধিঃ / ৬৬২ বার পঠিত
প্রকাশের সময় : শুক্রবার, ২ জুলাই, ২০২১, ১১:৫৯ পূর্বাহ্ণ
  • Print
  • করোনার সংক্রমণ বৃদ্ধির কারণে লকডাউন চলছে সারাদেশের ন্যায় ঠাকুরগাঁও জেলায় । তার সাথে মুশলধারে বৃষ্টি হচ্ছে সকাল থেকে। এই বৃষ্টির মধ্যেই সন্তানকে নিয়ে হেঁটে যাচ্ছেন মা। মা এর কাছ থেকে শিশুকে কোলে নেয় দাদি। দাদির মাথায় ছাতা ধরে আছে শিশুর পিতা। এ ভাবে হেঁটে ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতাল থেকে ১০ কিলোমিটার দূরে শহরের রোড এলাকায় যাচ্ছে তারা। কথা বলে জানা যায়, শিশুটি গত ৭দিন থেকে অসুস্থ হয়ে ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালে ভর্তি ছিল। ১ জুলাই বৃহস্পতিবার শিশুটি সুস্থ হওয়ায় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ রিলিজ দেয় তাকে। এ অবস্থায় লকডাউন ও মুশলধারে বৃষ্টিতে বাহিরে কোন যানবাহন না থাকায় উপায় না পেয়ে শেষে পায়ে হেঁটে রাওনা দেয় পরিবারটি।

    শিশুটির দাদি জানান, নাতি সুস্থ হওয়ায় আর হাসপাতালে থাকিনি। কিন্তু বের হয়ে দেখি রাস্তায় কোন রিকশা বা অটো নেই। আর তার সাথে বৃষ্টি হচ্ছে।

    হাসপাতালে করোনার ভয় বেশি তাই বাধ্য হয়ে পায়ে হেঁটে রাওনা দেই বাড়ির উদ্দেশ্যে। কিন্তু এতদূর পথ পায়ে হেঁটে যেতে কষ্ট হচ্ছে। তাই কখনো শিশুটির মা তাকে কোলে নিয়ে কখনো আমি কোলে নিয়ে বাড়ির দিকে হাঁটছি। শিশুটির মা শরিফা খাতুন বলেন, আমার সন্তানকে অনেক কষ্ট করে সুস্থ করেছি। আল্লাহর কাছে শুকরিয়া সন্তান সুস্থ হয়েছে। এখন বাসায় যাবো কোন যানবাহন নেই তাই বাধ্য হয়ে পায়ে হেঁটেই যেতে হচ্ছে।

    • আমাদের ইউটিউব পেজ ভিজিট করতে লগইন করুনঃ Grameen news24 Tv

    এ জাতীয় আরো সংবাদ
    এক ক্লিকে বিভাগের খবর