সংবাদ শিরোনাম :
সংবাদ শিরোনাম :
উপকূলে আঘাত হেনেছে ঘূর্ণিঝড় রেমাল – গ্রামীন নিউজ২৪ আচরণবিধি লঙ্ঘনের দায়ে ঈশ্বরদীর চেয়ারম্যান প্রার্থী রানা সরদারের প্রার্থীতা বাতিল – গ্রামীন নিউজ২৪ শিক্ষকের অনিয়ম ও দুর্নীতির বিরুদ্ধে এলাকাবাসীর মানববন্ধন – গ্রামীন নিউজ২৪ ডুবে যাওয়ার তিনদিন পর যুবকের ভাসমান মরদেহ উদ্ধার – গ্রামীন নিউজ২৪ ধেয়ে আসছে রেমাল, সন্ধ্যায় অতিক্রম করতে পারে যেসব এলাকা – গ্রামীন নিউজ২৪ গাইবান্ধা-পলাশবাড়ী সড়কে বাস খাদে নিহত ১ – গ্রামীন নিউজ২৪ ঘূর্ণিঝড় রেমাল: চট্টগ্রাম বন্দরের সব কাজ বন্ধ, ওঠা-নামা হচ্ছে না ফ্লাইটও – গ্রামীন নিউজ২৪ মরদেহ এখনো উদ্ধার হয়নি, তবে কাজ অনেকদূর এগিয়েছে – গ্রামীন নিউজ২৪ ১২ ফুটের অধিক জলোচ্ছ্বাসের শঙ্কা, ১০ নম্বর মহাবিপদ সংকেত – গ্রামীন নিউজ২৪ ৬০৩ বোতল ভারতীয় ফেন্সিডিলসহ মাদককারবারি আটক – গ্রামীন নিউজ২৪
বিজ্ঞপ্তি :
গ্রামীন নিউজ২৪টিভি পরিবারের জন্য দেশব্যাপী প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। যোগ্যতা এইচ এসসি পাশ, অভিজ্ঞতাঃ ১ বৎসর, আগ্রহীরা যোগাযোগ করুন 01729188818, সিভি ইমেইল করুনঃ grameennews24tv@gmail.com। স্বল্প খরচে সাপ্তাহিক, মাসিক, বাৎসরিক চুক্তিতে আপনার প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন ০১৭২৯১৮৮৮১৮

ঠাকুরগাঁওয়ে ১ মণ রসুনের দামে ১কেজি গরুর মাংস – গ্রামীন নিউজ২৪

মোঃ মজিবুর রহমান শেখ, ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধিঃ / ৭৯৩ বার পঠিত
প্রকাশের সময় : রবিবার, ৯ জানুয়ারি, ২০২২, ৮:৫৭ অপরাহ্ণ
  • Print
  • চলতি মৌসুমে রসুন রোপণের সময় শুরু হওয়ায় হাট বাজারগুলোতে পর্যাপ্ত পরিমাণ রসুন আসা শুরু হয়েছে। গত মৌসুমে পর্যাপ্ত রসুন উৎপাদন হলেও ন্যায্যমূল্য না পাওয়ায় এবার কৃষকরা রসুন চাষে আগ্রহ হারাচ্ছেন।

     

     

     

    এদিকে ব্যবসায়ীরা দাবি করছেন, বিদেশ থেকে অতিরিক্ত রসুন আমদানির ফলে কৃষকরা ন্যায্যমূল্য থেকে বঞ্চিত হয়েছে। ঠাকুরগাঁও জেলার রাণীশংকৈল উপজেলার নেকমরদ বাজার বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার লাহিড়ী বাজার । এখানে প্রতি কেজি গরুর মাংস বিক্রি হচ্ছে ৫৫০ টাকায়। আর এখানকার কৃষকরা প্রতি মণ রসুন বিক্রি করেছেন ৫৫০ থেকে ৬০০ টাকা। কাঙ্ক্ষিত দাম না পাওয়ায় রসুন উৎপাদন করেও উৎপাদন খরচ তুলতে হিমশিম খাচ্ছেন চাষিরা । চলতি মৌসুমে রসুনের ভালো ফলন পেলেও ন্যায্য দাম পাননি ঠাকুরগাঁও জেলার ৫ টি উপজেলার রসুন চাষিরা। অনেক পরিশ্রমের ফসল রসুন বিক্রি করে খরচের টাকাই উঠছে না কৃষকদের। দাম না থাকায় তাই এককেজি গরুর মাংস কিনতে একমণ রসুন বেঁচতে হচ্ছে । রসুনের দাম নিয়ে হতাশা প্রকাশ করে কৃষকরা বলেছেন, এবার রসুনের খুব দাম কম। গৃহস্থ সবার লোকসান হচ্ছে। আগে রসুন বিক্রি করেছি ১ হাজার ৮০০ থেকে ২ হাজার টাকায়, তবে বর্তমানে তা ৬০০ থেকে ৬৫০ টাকায় বিক্রি করতে হচ্ছে। অপরদিকে বিদেশ থেকে রসুন আমদানির ফলে ঠাকুরগাঁও জেলার ৫টি উপজেলায় দেশীয় রসুনের চাহিদা কমেছে বলে জানান, ব্যবসায়ীরা। এর ফলে দাম কমে আসায় রসুন কম কিনছেন তারা। এ বিষয়ে ব্যবসায়ীরা বলেছেন, বিভিন্ন দেশের রসুন আসায়, বর্তমানে বাজার কম। রানীশংকৈল উপজেলার ধর্মগড় ইউনিয়নের ভরনিয়া গ্রামের কৃষক আফজাল হোসেন বলেন, চলতি মৌসুমে রসুনের দাম একেবারেই কম। ভালো মানের রসুন ৭৫০ থেকে ৯০০ টাকা দরে বিক্রি হলেও অধিকাংশ রসুন ৫৫০ থেকে ৬০০ টাকায় প্রতি মণ বিক্রি হচ্ছে। বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার ধনতলা ইউনিয়নের ভান্ডারদহ গ্রামের কৃষক ফরিদ হোসেন বলেন, এবার রসুনের দাম খুবই কম । চাড়োল ইউনিয়নের ছোট সিংগা গ্রামের কৃষক ইসলাম উদ্দিন বলেন , রসুন ৫৫০ টাকা থেকে ৬০০ টাকায় প্রতি মণ হচ্ছে । এতে কৃষকের উৎপাদন খরচই উঠছে না। অথচ চায়না থেকে আমদানি করা রসুন ৪ হাজার টাকা মণ দরে বিক্রি হচ্ছে। এ অবস্থা হলে কৃষক বাঁচবে না।

     

     

     

    ভবানন্দপুর গ্রামের কৃষক ইকবাল হোসেন বলেন, একসময় প্রতি মণ রসুন ৮/৯ হাজার টাকা দরে বিক্রি করেছি। তখন প্রতি হাটেই রসুন বেঁচে মাংস মাছ কিনে মনের আনন্দে বাড়ি ফিরতাম। তখন দুই-তিন কেজি রসুনের দামেই এক কেজি গরুর মাংস কেনা যেত। অথচ এখন এক কেজি মাংস কিনতে এক মণ রসুন বেচতে হচ্ছে। এ অবস্থার পরিবর্তন না হলে কৃষক সর্বস্বান্ত হয়ে যাবে। রানীশংকৈল উপজেলার রাতোর গ্রামের রসুন চাষি রওশন আলী বলেন, ‘বাজার ব্যবস্থাপনায় কৃষকের কোনো ভূমিকা না থাকায় কৃষকরা তাদের কাঙ্ক্ষিত পণ্যের মূল্য পাচ্ছে না। এছাড়া কৃষকের ঘরে কৃষি পণ্য মজুতের সুযোগ না থাকায় এবং সরকারিভাবে কোনো সংরক্ষণাগার গড়ে না ওঠায় এ অঞ্চলের রসুন চাষিরা পাইকারদের হাতে জিম্মি হয়ে আছেন।’ দেড় মণ রসুন নিয়ে রবিবার নেকমরদ হাটে এসেছেন আবু সালেক নামে এক কৃষক। শীতের মৌসুমে বাড়িতে মেয়ে আর নাতিরা এসেছে। রসুন বিক্রি করে মাংস মাছ কিনে বাড়ি ফিরবেন। কিন্তু বাজারে রসুনের দাম দেখে তিনি হতাশ। কেননা এক মণ রসুনের দাম এক কেজি মাংসের সমান রানীশংকৈল উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সঞ্জয় দেবনাথ বলেন, কৃষকদের স্বার্থে সরকারিভাবে কৃষি পণ্যের সংরক্ষণাগার গড়ে তোলার দাবি জানিয়ে তিনি বলেন, ‘সংরক্ষণের ব্যবস্থা থাকলে কৃষকরা রসুন সংরক্ষণ করে কাঙ্ক্ষিত দাম পেলে ভালো দামে বিক্রি করার সুযোগ হবে।’ বালিয়াডাঙ্গী উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সুবোধ চন্দ্র রায় বলেন , কৃষকদের স্বার্থে সরকারিভাবে কৃষিপণ্যের সংরক্ষণাগার গড়ে তোলার দাবি জানিয়ে তিনি বলেন, সংরক্ষণের ব্যবস্থা থাকলে কৃষকরা রসুন সংগ্রহ করে ভালো দামে বিক্রি করার সুযোগ হবে ।


    এ জাতীয় আরো সংবাদ
    • আমাদের ইউটিউব পেজ ভিজিট করতে লগইন করুনঃ Grameen news24 Tv
    এক ক্লিকে বিভাগের খবর